গ্যালারি

আড্ডাঃ একদিন বিকেল সন্ধ্যায় (ছবি ও গল্প)


ছুটির দিনে বাসায় থাকলে আমি সাধারণত ছেলেদের ও তাদের মায়ের সাথে সময় কাটাই! দুপুরে ভাল খাবার খেতে চাই, নিজে রান্না করতে চাই, বিকেলে ওদের নিয়ে ঘুরতে কোথায়ও যেতে চাই, রাতে হোটেলে খেতে পারলে ভাল লাগে! অনেক সময় হয়, অনেক সময় হয় না! তবে ছুটির এমন দিনে সারাদিন বাসায় পড়ে থাকাও অনেক সময় বিরক্তি এসে যায়! কাজের মানুষ আমি, কাজ না থাকলে শরীর চলে না! প্রায় আমি ভাবি এক, হয় আরেক! বিশেষ করে সকালে ঘুম থেকে দেরী করে উঠলেই সকালের কাজ গুলো আর করা হয় না, সময়াভাবে কেমন হয়ে পরি। শুক্রবারের নামাজ থাকার কারনে অনেকটা খৈ হারিয়ে ফেলি! পরে সেই খৈ খুঁজতে খুঁজতে বিকাল গড়ায়! চলুন আমার লাইফ স্টাইলের কিছু ছবি আজ দেখি এবং সাথে গল্প করি। দুই দিনের দুনিয়া, আশা করি আপনারাও আনন্দে আপনাদের দিন কাটাবেন, সেই দোয়া করি!

20181018_220538
ছবি ১, বড় ছেলের মাথায় ব্যায়ামের নানাদিক প্রবেশ করাতে পেরেছি কিন্তু তাকে কোন ব্যাপারেই সিরিয়াস মনে হয় না। বিষয় গুলোর ভিতরে একটু প্রবেশ করতে পারলে সে অনেক ভাল করতে পারত।

20181018_220720
ছবি ২, বড় ছেলের অবস্থা দেখে ছোট ছেলেও তৈরী হচ্ছে!

20181019_114703
ছবি ৩, নিউজ বিষয়ে এখন দুনিয়ার সেরা চ্যানেল হচ্ছে আল-জাজিরা। চরম অথেটিক নিউজ দেয়! আর বিশেষ করে যে কোন খবরের পিছনে লেগে থাকে, সারা দুনিয়ার নিপীড়িত মানুষ গুলোর মুখ তারা সহজেই তুলে ধরছে। নাইজেরিয়া নিয়ে তাদের একটা অনুষ্ঠান হয়, ‘মাই নাইজেরিয়া’। দারুন অনুষ্ঠান, এই অনুষ্ঠান দেখে আমি আনন্দিত হই। নাইজেরিয়ানরা বুক ফুলে বলে থাকে, “দিস ইস মাই নাইজেরিয়া”, চরম লাগে! গত কালের পর্ব ছিল, লেডি ম্যাকানিক নিয়ে। আমার কাছে মনে হল, নাইজেরিয়ান এই মহিলা সারা বিশ্বের গর্ব। সমাজের অবহেলিত মহিলাদের তিনি ম্যাকানিক হিসাবে টেনিং দিচ্ছেন এবং তাদের কর্মজীবি হিসাবে তৈরী করে দিচ্ছেন। এই চিন্তা কয়জন করতে পারে? আই লাভ ইট। এই মহিলার কথা গুলো শুনলে, এটা জোশ আসে। মানুষ হিসাবে মানুষের প্রতি এই দরদ আমার মনে হয় তাকে একদিন নাইজেরিয়ার প্রধানমন্ত্রী বা প্রেসিডেন্ট বানিয়ে দিবেই!

20181019_195050
ছবি ৪, দুপুরে হাজীর বিরিয়ানী খেয়ে বিকেলে ছোট ছেলেকে নিয়ে হাঁটতে বের হলাম। রাস্তায় অনেক মানুষ এবং গরম আবহাওয়া, আর ছেলেটা হাঁটতে চায় না ফলে বুদ্ধি করে টাইম পাস করার জন্য একটা বড় দোকানে প্রবেশ করলাম, সেইলর। অনেক বড় দোকান। দোকানের ভিতর হেঁটে আনন্দ পাওয়া যায়। ওকে নিয়ে প্রবেশ করতেই সেই এমন একটা বসার জায়গা পেয়ে শুয়ে পড়ে!

20181019_195105
ছবি ৫, ছবি তোলা দুরহ ব্যাপার। দোকানে প্রবেশ করেই আমার মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়ে মাঝে মাঝে চেয়ে নিয়ে ছবি গুলো তুলেছি।

20181019_195107
ছবি ৬, এই সব দোকান মালিকদের ইনভেষ্টমেন্ট কত হয়ে পারে!

20181019_195125
ছবি ৭, আহ কালেকশন! স্ত্রীর  জন্য কিছু কিনতে চাই কিন্তু পারি না! রঙ, ডিজাইন আমি কিনে দিলে নিশ্চয় পছন্দ করবেন না, অতীত অভিজ্ঞতা তাই বলে! ফলে দেখেই গেলাম! আর একদিন উনাকে নিয়ে আসতে হবে। বাসার কাছেই এমন সুন্দর দোকান, আহ! আমরা যদি না কিনি, তা হলে কেমনে চলবে!

20181019_195208
ছবি ৮, ঘুরে ফিরে দেখে শুনে কেনা কাটায় আনন্দ আছে। অনেক পরিবারকে দেখলাম। ভাল লাগলো, বাংলার মানুষ এভাবে এগিয়ে চলুক। সারা দুনিয়ার মানুষ আনন্দ করতে পারলে, ভাল খেতে পারলে, আমাদের দেশের মানুষ কেন তা পারবে না!

20181019_195355
ছবি ৯, ছবি তুলতে বলেই খিছ মেরে দেয়!

20181019_195911
ছবি ১০, একটা গেঞ্ছি ট্রায়াল দিচ্ছিলাম। ছেলেকে মাথা কেটে ছবি তুলতে বললাম, সে বুঝতে পেরেছিলো। তবুও সামান্য ক্রপ করতে হল! আমার আমি, এই তো!

20181019_200800
ছবি ১১, ছোট ছেলের জন্য দুটো প্যান্ট এবং একটা সার্ট কিনলাম। আমার নিজের জন্য একটা প্যান্ট ও একটা গেঞ্জি কিনেছিলাম।

20181019_202707
ছবি ১২, ফেরার পথে প্রান গ্রুপের টেষ্টি দোকানে প্রবেশ করলাম। প্রায় গ্রুপের খাবারের ও পানীয় সকল পন্য নিয়ে এই সব দোকান বেশ সুন্দর করে সাজানো। মানুষ দোকান দেখেই মালামাল কিনে থাকে। কেনা কাটায় মানুষের বিশ্বাস স্থাপন একটা জরুরী বিষয়।

20181019_202756
ছবি ১৩, বাইরে। মানুষ আর মানুষ, সন্ধ্যায় মানুষের মেলা বসে!

20181019_203822
ছবি ১৪, বাসায়! স্ত্রী ও বড় ছেলের জন্য কোন কিছু কেনা হয় নাই! না, তাদের মন খারাপ হবে না, আগামী আর একদিন তাদের নিয়ে বের হব!

সবাইকে শুভেচ্ছা। আনন্দে বাঁচুন, বাংলাদেশের প্রতিটা মানুষ আনন্দে থাকুন, এই কামনা করি!

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s