গ্যালারি

রেসিপিঃ বিফ কাচ্চি বিরিয়ানী (স্পেশাল, খুব সহজ করে দেখানো)


গরুর গোশত দিয়েও সুন্দর কাচ্চি বিরিয়ানী হয়ে থাকে। আজ আমরা আপনাদের সেটাই দেখাবো। তবে আগেই বলে দিচ্ছি যদি আপনি গরুর গোশত পছন্দ না করেন তবে খাসীর গোশত দিয়ে সেইম ওয়েতে রান্না করতে পারেন এবং সেটা হয়ে যাবে, মাটন কাচ্চি বিরিয়ানী! ছবি একটু বেশি যোগ করে দিলাম যাতে পুরো রান্নটা আপনার চোখের সামনে ভেসে থাকে কিংবা রান্নার কোন পর্যায়ে আটকে গেলে ছবি দেখেই বুঝে যেতে পারবেন। হাতে সময় নেই, চলুন দেখে ফেলি! গল্প আর একদিন করা যাবে, আমি আবার কাজে বিশ্বাসী, মানুষ দুনিয়াতে এসেছে কাজের জন্যই, ফলে কাজ ছাড়া আর কি উপায়!

উপকরণ ও পরিমানঃ (৬ জন ফুল প্লেট, চুক্তি)
– গরু মাংস, দুই কেজি কম বেশি, বড় সাইজে কাটা হলে ভাল দেখাবে, কাচ্চিতে বড় দেয় এবং একজন এক টুকরা দিয়ে খাবার শুরু করে (চাইলে আরো বেশি দিতে পারেন, যারা গোস্ত প্রতি লোকমায় চাইবেন!)
– পোলাউ চাল, ১ কেজি
– আলু, মাঝারি সাইজ, ৮/১০টা

– টক দই, দেড় কাপ
– কাঁচা পেপে বাটা, তিন টেবিল চামচ
– পেঁয়াজ কুঁচি, দেড় কাপ (দেশী পেঁয়াজ নিন)
– আদা বাটা, তিন/চার টেবিল চামচ (দেশী ভাল)
– রসুন বাটা, তিন/চার টেবিল চামচ (দেশী ভাল)
– মরিচ গুড়া, এক টেবিল চামচ (অনেকে এটা না দিয়ে কাচা মরিচ বাটা দিয়ে থাকেন, ইচ্ছা)
– জিরা গুড়া, ১ টেবিল চামচ
– ধনিয়া গুড়া, ১ টেবিল চামচ
– গোল মরিচ বাটা, আধা চা চামচ বা কম
– জয়ত্রী বাটা, হাফ চা চামচ
– জয়ফল বাটা, এক চিমটি
– বাদাম বাটা, হাফ কাপের বেশি (কাজু বাদাম বাটা হলেও ভাল চলবে)
– গরম মশলা (এলাচি ৭/৮টা, দারুচিনি কয়েক পিস, লং ৭/৮ পিস)
– কিসমিস, ৩/৪ টেবিল চামচ
– কোওড়া জল, দুই/তিন কর্ক
(চাউল হাফ সিদ্ধে লবন, কয়েকটা এলাচি, দারুচিনি, লং, তেজপাতা লাগবে)

– লবন, পরিমান মত
– আলু বোখারা, কয়েকটা (হলে ভাল, আমাদের ছিল না)
– কাচা মরিচ, আস্ত কয়েকটা
– তেল, এক কাপের কম/বেশি (আমি সামান্য কম তেলেই রান্না করেছি, একটু তেল বেশি দিলে রান্নার স্বাদের রিক্স বা লেগে যাবার ভয় থাকে না!)
– পানি (গরম হলে ভাল, রান্না শুরুর আগে কিছু পানি গরম করে রেখে দিতে পারেন তবে না হলে নাই, ব্যাপার না!)

বিশেষ তরল মিশ্রনঃ
– দেড় কাপ পানি
– ৬/৭ টেবিল চামচ গুড়া দুধ
– ঘি, ৬/৮ টেবিল চামচ, ভাল ঘি হলে ঘ্রান বেড়ে যাবে।

প্রণালীঃ (ছবি কথা বলে)
গোশত প্রিপারেশন – মশলা সহ;
20181005_125042
ছবি ১, গোস্তের টুকরা গুলো একটু বড় সাইজের হতে হবে।

20181005_125632
ছবি ২, প্রথমে টক দই ও পেঁপে বাটা দিয়ে মাখিয়ে নিন। পরে উপরে উল্লেখিত সব মশলা দিয়ে দিন, দুই তিন চামচ টেবিল চামচ লবন দিতে ভুলবেন না। এবং তেলও দিয়ে দিন।

20181005_125734
ছবি ৩, ভাল করে মাখিয়ে ঘন্টা খানেকের জন্য রেখে দিন কিংব আনান্য কাজের সময় টুকু হাতে নিন।

বেরেস্থা; এটা দেখানোর দরকার ছিলো না, তবুও মনে মানে না, আপনাদের কাছে রান্না কত সহজ করা যায়, সেই চিন্তায়! 
20181005_130306
ছবি ৪, ইন্ডিয়ান পেঁয়াজে ভাল বেরেস্থা হয় না, থ্যাতানো বা সহজে পূড়ে যায়। বেরেস্থায় দেশী পেঁয়াজ উত্তম, খাবারের স্বাদ ভাল হয়।

20181005_130658
ছবি ৫, বেরেস্থা তুলে রাখুন, তেল গুলো কাজে লাগবে আলু ভাঁজায়।

আলু প্রিপারেশন;
20181005_130805
ছবি ৬, আলুর ছিল্কা তুলে ধুয়ে নিন। সামান্য হলুদ লবনে মাখিয়ে নিন। এর পর গরম তেলে ভাঁজুন, ছবি দেখুন।

20181005_131149
ছবি ৭, আলু হলদে এবং সামান্য পোড়া পোড়া হলে তুলে রাখুন।

বেরেস্থা ও আলুর ব্যবহার;
20181005_130746
ছবি ৮, মেরিনেটড করে রাখা গোশতে বেরেস্থা ছিটিয়ে দিন।

20181005_131249
ছবি ৯; এভাবে মেরিনেট করে রাখা গোশতে আলু ছিটিয়ে বিছিয়ে দিন। (আলু বোখারা থাকলে এই পর্যায়ে বিছিয়ে দিন! আমাদের ছিল না, বাজার থেকে তখন আনাও যাচ্ছিলো না!)

চাউল প্রিপারেশন;
20181005_131408
ছবি ১০, একটা চাল রান্নার পাত্রে কয়েক জগ পানি নিন, তাতে মশলাপাতি দিন, লবন দিতে ভুল্বেন না! লবন একটু বেশি দিতে হবে।

20181005_132104
ছবি ১১, পানি ফুটে উঠলে, ধুয়ে রাখা চাল দিন।

20181005_132437
ছবি ১২, আগুন বাড়িয়ে দিন, একবার পানি ফুটে উঠতে দিন।

20181005_132443
ছবি ১৩, হাফ সিদ্ধ হল কি না দেখে নিন, ব্যস পানি ফেলে চাল গুলো পানি ঝরিয়ে রাখুন।

বিশেষ মিশ্রন তৈরী; রান্না শুরুর আগেই তৈরী করে রেখে দিতে পারেন বা চাউল রেডী হবার সময়েই যোগাড় করতে পারেন। 
20181005_132113
ছবি ১৪, দুধ ঘিয়ের মিশ্রন – ৬/৭ টেবিল চামচ গুড়া দুধ দেড়কাপ পানিতে গুলে নিন এবং ৫/৭ টেবিল চামচ ঘি মিশিয়ে নিন। (ছবিতে কালো যা দেখছেন সেটা কিছু নয়, কয়েকটা বেরেস্থা পড়ে গিয়েছিল, আশা করি ইগ্নোর করবেন)

চাউল দিয়ে গোশত ঢেকে দেয়া;
20181005_132553
ছবি ১৫, এবার ঝর ঝরে চাল দিয়ে গোশত ঢেকে দিন।

20181005_132710
ছবি ১৬, চারিদিকে সমভাবে!

20181005_132833
ছবি ১৭, সেই দুধ ঘিয়ের তরল মিশ্রন ছিটিয়ে দিন, পাত্রের গা ঘেঁষেও চারিদিকে দিন। কয়েকটা কাঁচা মরিচ দিতে ভুলবেন না। তরলটা দেয়ার একটা ছবি তোলা দরকার ছিলো, যা মিসিং মনে হচ্ছে।

আটার কাই দিয়ে পাত্র এয়ার টাইট করে দেয়া;
20181005_133229
ছবি ১৮, আটা দিয়ে এভাবে কাই করে বিরিয়ানী রান্নার পাত্রের কান্দায় লাগিয়ে দিন।

20181005_133340
ছবি ১৯, ঢাকনা দিন, এভাবে পাত্রটা এয়ার টাইট হয়ে যাবে।

মুল রান্না; মাঝারি আঁচে ঘন্টা দুয়েক দরকার হবে, দমে থাকবে।
20181005_133351
ছবি ২০, এবার চুলায় আগুন দিন। মিনিট ১০ একে বারে খোলা আগুন দিন।

20181005_133413
ছবি ২১, এর পর চুলায় একটা তাওয়া দিয়ে তার উপরে বিরিয়ানীর হাড়ি দিন। এটাই শহুরে দম! গ্রাম বা খোলা জায়গা হলে উপরে নীচে কয়লা দিয়ে দম দেয়া যেত!

20181005_144824
ছবি ২২, এভাবে কমের পক্ষে ঘন্টা দুই লাগবে, আগুন নিন্ম তাপে থাকবে। মাটন/খাসীর গোশত হলে কিছু কম সময় লাগবে।

20181005_145603
ছবি ২৩, আগুন দেয়ার ঘন্টা দুই পর একটা পাতলা ছুরি দিয়ে আটার কাই কেটে নিতে হবে মানে ঢাকনা খোলার ব্যবস্থা করতে হবে।

20181005_145628
ছবি ২৪, ঢাকনা খুলে নিচ থেকে উলটে দেখুন, গোশত  নরম হল কি না! ইনকেইস যদি নরম না হয় তবে সামান্য পানি ছিটিয়ে আরো কিছুক্ষন ঢাকনা দিয়ে মাধ্যম আঁচে রাখতে পারেন। তবে ঘন্টা দুয়েক রাখলে আশা করি, এমনিতেই হয়ে যাবে! ভয়ের কিছু নেই।

20181005_145753
ছবি ২৫, খাবার তুলে টেবিলে নিন।

পরিবেশনা;
20181005_150043
ছবি ২৬, দেখা যাক আপনি কত কোপাতে পারেন!

20181005_150059
ছবি ২৭, মজাদার বিফ কাচ্চি।

20181005_150348
ছবি ২৮, আমার প্লেট।

সবাইকে শুভেচ্ছা। আমাদের সাথে থাকুন, আমরা আসছি আরো আরো রেসিপি নিয়ে।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

2 responses to “রেসিপিঃ বিফ কাচ্চি বিরিয়ানী (স্পেশাল, খুব সহজ করে দেখানো)

  1. Beef er jonno 2 hours lagle murgi dia korle koto somoi lagte pare ? apner ranna dekhei bujha jachche onk mojer hoise.

    Liked by 1 person

    • ধন্যবাদ বোন। ফার্মের মোরগ/মুরগী হলে ঘন্টা খানেক যথেষ্ট! তবে সেই ক্ষেত্রে চাউল গুলো উত্তম করে ফুটিয়ে নিতে হবে। খাসি বা দেশী মোরগ/মুরগী হলে ঘন্টা দেড়েক লাগবেই। দম মানে এই সময় আগুন মাঝারি বা আরো নিন্মে থাকবে। একদিন ছুটির দিনে রান্না করেই ফেলুন। শুভেচ্ছা নিন।

      Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s