গ্যালারি

রেসিপিঃ চিকেন উইংস ফ্রাই Chicken Wings Fry (সহজ এবং ঝটপট)


নেটের দুনিয়াতে রান্নাবান্না খুঁজতে গেলে সবাই আগে কি খুঁজে দেখেন? আমার অভিজ্ঞতায় বলে, বাংলাদেশীরা প্রথমেই খুঁজে দেখেন, চিকেন ফ্রাই! কারন আমি আমার গল্প ও রান্না’য় একটা বিশেষ দিক খেয়াল রাখি কে কিভাবে এই সাইটে এল! হ্যাঁ, সব চেয়ে বেশি বার খুঁজে দেখা রেসিপিও হচ্ছে, চিকেন ফ্রাই! আমি চিকেন ফ্রাইএর বেশ কয়েকটা রেসিপি দিয়েছি, সব গুলো হিট তালিকায় আছে! এই বিষয়ে অবশ্য আমি আগেও বলেছি, এখনো বলি, চিকেন ফ্রাই আসলেই একটা মজাদার আইটেম, ছেলে বুড়ো নাতি নাতনী মোটামুটি সবাই পছন্দ করবেনই। এই চিকেন ফ্রাইএর উপর ভরসা করে দুনিয়াতে কত কি খাবারের দোকান বিখ্যাত হল, কত কি চেইনের দোকান এই দুনিয়াতে এল। তবে আমি মনে করি চিকেন ফ্রাই করাটা তেমন কোন কঠিন রান্না নয়। রান্নায় আগ্রহ থাকলে যে কেহ যে কোন সময়েই এই ফ্রাই করে নিতে পারেন। আমার আগের রেসিপি গুলো দেখে নিতে পারেন!

যাই হোক, আজ আবারো চিকেন উইংস ফ্রাই দেখিয়ে দিব। ঠিক একই কায়দায় আপনি চিকেনের যে কোন অংশের গোসত নিয়েও ফ্রাই করতে পারেন। মশলাপাতি একটু বেশি ব্যবহার করেছি তবে সব আপনার আমার হাতের নাগালেই, রান্নাঘরে আছেই (আরো কিছু মশলা যোগ বা বিযোগ করলেও কিছু আসত যেত না)। এর আগেও একবার এই রেসিপি দেখিয়েছি বলে মনে পড়ে! দেখা যাক এবার কি হয়! গতকাল সন্ধ্যায় এই ফ্রাই করা হয়েছে। আমার দুই ছেলে বুলেট ও ব্যালট বেশ পছন্দ করেছে।

তবে আমি মনে করি, চিকেন ফ্রাই অন্তত হোটেল থেকে কিনে খাবেন না, ঘরে বানান (এটা আমার অনুরোধ থাকলো!) ঘরের খাবার ভেজাল ছাড়া বা অতিরিক্ত মশলাপাতি বা নানান প্রকারের সল্ট বা রাসায়নিক ব্যতিত। শুনি প্রায় সব হোটেলে চিকেন ফ্রাই তৈরীতে কিছু না কিছু ভেজাল দিয়ে থাকে, স্বাদ বাড়ানোর জন্য অন্তত পুরানো পোড়া তেল হলেও ভেজাল করে, চিনি সহ নানান কিছু দিয়ে দেয়। আমি লক্ষ করেছি এই সব হোটেল বা রেষ্টুরেন্টের এই ধরনের ফ্রাই বা খাবার খেলে সাথে সাথেই পেশার হাই হয়ে উঠে! শিশু বা যোয়ানেরা টের না পেলেও একটু বয়সীরা নিশ্চয় টের পান!

চলুন দেখে ফেলি! খুব সাধারন এবং সহজ রান্না, কিন্তু বেশ মজাদার। ছবি গুলো দেখে আপনিও পারবেন।

পরিমান ও উপকরণঃ
– চিকেন উইংসঃ এক কেজি, সাইজ ভেদে এক কেজিতে ১৪ থেকে ১৮ পিস হতে পারে।
– পেঁয়াজ বাটাঃ এক টেবিল চামচ
– আদা বাটাঃ এক টেবিল চামচ
– রসুন বাটাঃ এক টেবিল চামচ
– লাল মরিচ গুড়াঃ হাফ টেবিল চামচ (ঝাল কম খেলে আরো কম)
– হলুদ গুড়াঃ হাফ টেবিল চামচ
– টমেটো সসঃ ৪/৫ টেবিল চামচ
– লেবুর রসঃ এক টেবিল চামচ
– ডিমঃ মুরগীর ডিম একটা
– লবনঃ পরিমান মত
– তেলঃ ভাঁজার জন্য যা লাগে
– ময়দাঃ হাফ কাপ

প্রনালী ও চিত্রকল্পঃ ছবি কথা বলে।
20180717_210728
ছবি ১; চিকেন উইংস গুলো ভাল করে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন।

20180717_210918
ছবি ২; এবার একে একে লবন সহ উল্লেখিত মশলা গুলো দিয়ে দিন, ডিমটা ভেঙ্গে দিন।

20180717_210949
ছবি ৩; লেবুর রস চিপে দিন।

20180717_211031
ছবি ৪; ভাল করে মাখিয়ে মিশিয়ে নিন।

20180717_211227
ছবি ৫; ফ্রীজে আধাঘন্টার জন্য সংরক্ষনের জন্য একটা আলাদা বাটিতে নিতে পারেন, ফ্রীজে রাখতেই হবে  এমন নয়, খোলা জায়গাতেও আপনি কিছু সময়ের জন্য রেখে দিতে পারেন। মশলা মিক্সের জন্য বা মাংসে মসলার প্রবেশ জন্য সময় দিলে ভাল।

20180717_211257
ছবি ৬; ফ্রীজে এভাবে রাখতে পারেন।

20180717_215607
ছবি ৭; ফ্রীজ থেকে বের করে এভাবে ময়দার গুড়োয় (সামান্য লবন দিয়ে ময়দার গুড়ো মিশিয়ে নিবেন) গড়িয়ে চিকেন গুলো তুলে রাখুন।

20180717_215729
ছবি ৮; এভাবে চিকেন গুলো জমিয়ে রাখার পাশাপাশি কড়াইতে তেল গরম করে নিন।

20180717_215755
ছবি ৯; এবার তেলে চিকেন গুলো ছেড়ে দিন। যে কোন কিছু তেলে ভাঁজার সময় অতিরিক্ত সাবধানতার প্রয়োজন আছে, একটা নিদিষ্ট দুরত্বে থাকুন। পুরুষদের জন্য, খালি গায়ে তেলে ভাঁজার কাছে না থাকাই ভাল, তেলের ছিটে ত্বকে পড়লে সারা জীবনের জন্য দাগ হয়ে পড়ে!

20180717_215816
ছবি ১০; ঘরে যেহেতু রান্না, তেলের অপচয় না করাই ভাল। মোটামুটি এক চান্সে চার পিস ভাঁজি করা যায় এমন তেল হলেই হল।

20180717_215856
ছবি ১১; এক পিট হয়ে গেলে অন্য পিট উলটে দিতে হবে।

20180717_215934
ছবি ১২; রঙ দেখেই হল কি না বোঝা যায়।

20180717_221029
ছবি ১৩; একটু কড়া ভাঁজা চাইলেও চালানো যায়।

20180717_220456
ছবি ১৪; ব্যস, এবার তুলতে থাকুন।

20180717_221820
ছবি ১৫; একের পর  এক ভেঁজে জমিয়ে নিন।

20180717_221859
ছবি ১৬;পরিবেশন আপনি আপনার মত করেই করুন। মেয়ের শ্বশুর এলে এক ধরনের প্লেট, ছেলের শাশুড়ি এলে আর এক ধরনের, সবই আপনার ইচ্ছা, আপনি কাকে কেমন আদরযত্ন করবেন!!

সবাইকে শুভেচ্ছা।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন।

4 responses to “রেসিপিঃ চিকেন উইংস ফ্রাই Chicken Wings Fry (সহজ এবং ঝটপট)

  1. হা হা হা। মেয়ের শ্বশুর এলে
    এবং ছেলের শ্বাশুড়ি এলে ভিন্ন ভিন্ন প্লেট।
    যাহোক ধন্যবাদ জানাচ্ছি এমন মজার একটি খাবার খাওয়ানোর জন্য। অর্থাৎ আজ অফিস থেকে ফেরার পথেই উইংস নিয়ে যাবো। উইংসের কথা মনে করিয়ে দিলেন এবং এমন সহজ পদ্ধতির কথা বলে যে সাহসটা দিলেন সেটাই হল আসল কথা। বাকিটা আমি করে নিমুনে।

    Liked by 1 person

  2. হা হা হা। মেয়ের শ্বশুর এলে
    এবং ছেলের শ্বাশুড়ি এলে ভিন্ন ভিন্ন প্লেট।
    যাহোক ধন্যবাদ জানাচ্ছি এমন মজার একটি খাবার খাওয়ানোর জন্য। অর্থাৎ আজ অফিস থেকে ফেরার পথেই উইংস নিয়ে যাবো। উইংসের কথা মনে করিয়ে দিলেন এবং এমন সহজ পদ্ধতির কথা বলে যে সাহসটা দিলেন সেটাই হল আসল কথা। বাকিটা আমি করে নিমুনে।

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s