গ্যালারি

রেসিপিঃ চিংড়ি, ক্যাপ্সিক্যাম ও টমেটো মিক্স (সাধারন সহজ রান্না)


অনেকদিন ধরে রান্নাঘরে যাই না! মানে, অন্য কাজে এত বেশী সময় দিচ্ছি যে, রান্না কি হচ্ছে, কি না হচ্ছে সেই দিকে মন আর নেই! রাতে গিয়ে যা পাচ্ছি তাই খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ছি! এদিকে বাসা থেকে আজকাল আর তেমন চাপ নেই, বেশি কথা বললে বলি, চল হোটেলের খাবার খেয়ে নেই! মাসে কয়েক দফা হোটেলে খাইয়ে দিলে তাদের মানে ব্যাটারী, বুলেট, ব্যালটের কোন শব্দ আর বের হয় না! যাই হোক, বলে নেয়া ভাল আজকাল ছুটির দিনেও আমি অফিস করছি! অফিসের কিছু কাজ আছে যা একটু নিরিবিলিতে করতে পারলে ভুলের সম্ভবনা থাকে না! যেহেতু একক কোম্পানীতে কাজ করি, ফলে অনেক কিছুই দেখতে হয়, আমি নিজেও ভুল মুক্ত থাকতে চাই! বন্ধের দিনে কাজ মানেই একটা আলাদা ব্যাপার, সময় বাঁচে! কম সময়ে অনেক কাজ করে ফেলা যায়! আরো বলে রাখা ভাল, আমাদের অফিস ছোট একটা রুমে! সারাদিনে এত মানুষ আসে যে, মাঝে মাঝে মনে হয়, মাছ বাজারে আছি!

সে যাই হোক, আজ বন্ধের দিন, ছুটির দিন! ভেবেছিলাম সকাল সকাল অফিসে চলে আসবো, কিন্তু আপনাদের ব্যাটারী আফা জানালেন, আজ ঘরে ছোট ভাইয়ের স্ত্রী, মেয়ে এবং আম্মা আসবেন! এ ছাড়া আরো সামান্য কয়েকটা কাজ ছিল, বাজার করা (মেহমানদের জন্য কিছু ভাল রান্নার জন্য কিছু কেনা) এবং ব্যালটের চুল কাটিয়ে আনা!

ব্যালট বাবাজী চুল কাটাতে কোন সমস্যা করে না! খুব শান্ত শিষ্ট! এই সময়ে বড় ছেলে বুলেট বাবাজীকে সেলুন পর্যন্ত আন্তেই আমার দম বন্ধ হয়ে যেত! হা হা হা…

যাই হোক, বাসায় ফিরে যা বুঝতে পারলাম, তেহারী রান্না হবে খুব জমিয়ে, বলে রাখা ভাল তেহারী মধ্যবিত্তদের মারাত্বক পছন্দের খাবার, আমারো! তবে আমি সাথে একটা আইটেম করবো বলে ভেবে নিলাম! তেহারীর সাথে একটু ঝোলঝাল না হলে কি জমে! জুম্মার নামাজ পড়ে এসে দেখলাম, তেহারী রেডী! রান্নাঘর ফাঁকা! ক্যাপ্সিক্যাম, টমেটো দিয়ে চিংড়ির ঝোল রান্না মন্দ হবে না! রান্না করতে গিয়ে জানলাম, আম্মা সয়াসস/ফিস সস/টস দিয়ে কোন রান্না পছন্দ করেন না বা খান না! ফলে রান্নার ফর্মুলা পাল্টাতে হল। পুরা দেশী মশলা ও কায়দায় রান্না। চলুন দেখে আসি! শুরুতেই বলে নেই, ভাইয়ের স্ত্রী, মেয়ে এবং আম্মা এই রান্নার তারিফ করেছেন! আর আমার রান্না টেষ্টার বুলেটের মুখে কোন কথা ছিল না! বলে নেই, রান্নায় সহযোগীতা করেছেন যথারীতি মানসুরা হোসেন!

চলুন দেখে ফেলি, খুব সহজ ও সাধারন রান্না! এটাকে ঝটপট রান্নাও বলা যেতে পারে!

উপকরন ও পরিমানঃ
– চিংড়ি মাছঃ কয়েকটা (আমরা ১০টা নিয়েছিলাম)
– ক্যাপ্সিক্যামঃ দুইটা
– টমেটোঃ ৩/৪ টা মাঝারি
– পেঁয়াজ ফালিঃ মাঝারি ৮/১০ কয়েকটা
– আদা বাটাঃ এক চা চামচ
– গুড়া মরিচঃ হাফ চা চামচ বা সামান্য বেশি (ঝাল বুঝে)
– হলুদ গুড়াঃ হাফ চা চামচ বা সামান্য বেশি
– চিনিঃ হাফ চা চামচের কম (না দিলেও নাই, স্বাদ একটু বাড়াবে মাত্র)
– ভিনেগারঃ এক কর্ক
– কাঁচা মরিচঃ কয়েকটা
– লবনঃ পরিমান মত (দুই চিমটি কম বেশী দিয়ে শুরু)
– তেলঃ ৪/৫ টেবিল চামচ
– পানিঃ হাফ কাপের কম

প্রনালীঃ (ছবি কথা বলে)

ছবি ১ (এই ছবিটা পুরানো একটা রেসিপি থেকে নিয়েছি বুঝানোর জন্য, ছবি তুলতে ভুলে গিয়েছিলাম) চিংড়ি গুলোকে এভাবে পরিস্কার করে নিয়ে দুই চিমটি হলুদ ও সামান্য লবন দিয়ে মেখে রেখে দিতে হবে।


ছবি ২, তেল গরম করে চিংড়ি মাছ গুলো সামান্য ভেজে নিতে হবে।


ছবি ৩, আগুন বাড়িয়ে।


ছবি ৪, এর পর তুলে রাখুন এবং মুল রান্নায় চলুন।


ছবি ৫, সেই কড়াইতেই প্রথমে তেলে পেঁয়াজ ফালি ও আদা বাটা দিন। ভাঁজুন।


ছবি ৬, এবার মরিচ গুড়া, হলুদ গুড়া, সামান্য লবন, চিনি ও এক কর্ক ভিনেগার দিন। এবং ভাঁজুন।


ছবি ৭, এবার ক্যাপ্সিক্যাম ও টমেটো দিন।


ছবি ৮, মিশিয়ে নিন।


ছবি ৯, ভাঁজুন।


ছবি ১০, ভেঁজে রাখা চিংড়ি গুলো দিয়ে দিন।


ছবি ১১, আগুন বাড়িয়ে ভাঁজুন।  ভাজা শেষে হাফ কাপের কম পানি দিন, এটা ঝোল হয়ে যাবে!


ছবি ১২, কয়েকটা কাঁচা মরিচ দিলে মন্দ কি!


ছবি ১৩, আর সামান্য সময় চুলায় রাখুন, ঢাকনা দেয়ার দরকার নেই, আগুন বাড়িয়ে রাখুন এবং রান্নাঘর ছেড়ে যাবেন না! ফাইন্যাল লবন চেখে দেখুন, রাইট হলে আগে বাড়ুন! লাগলে দিতে কার্পণ্য করবেন না! মনে রাখুন, লবন স্বাদ সঠিক না হলে রান্নার কোন মুল্য নেই! লবন স্বাদ বেশী বা কম, রান্নাকারীর ইজ্জতের ফালুদা বানিয়ে ফেলতে পারে!


ছবি ১৪, পরিবেশনা!


ছবি ১৫, অপূর্ব!


ছবি ১৬, তেহারীর সাথে জমে উঠেছিল বেশ!

একবার রান্না করেই দেখুন, আশা করি মনে রাখতেই হবে! পোলাউ বা গরম সাদা ভাতের সাথেও এই আইটেম জমে যাবে নিশ্চয়!

সবাইকে শুভেচ্ছা। আবারো নানান রেসিপি নিয়ে ফিরে আসছি, সাথে থাকুন! আপনাদের সময় কাটুক আনন্দে ও সুখে!

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

Advertisements

5 responses to “রেসিপিঃ চিংড়ি, ক্যাপ্সিক্যাম ও টমেটো মিক্স (সাধারন সহজ রান্না)

  1. Bhai congratulation for 29 17 539 hit ar jonno

    Liked by 1 person

  2. একদিন ট্রাই করবো ইনশাল্লাহ্ 🙂

    Like

  3. Dear Shahadat Bhai , you are my inspiration in cooking practice at home.

    Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s