Gallery

রেসিপিঃ জালি কাবাব (এক্সক্লুসিভ আইটেম)


আমি অনেক রান্না করতে চাই, আমি অনেক লিখতে চাই। কিন্তু চাইলেই কি আর দুনিয়ার সব কিছু চলে? না, চলে না! দুনিয়ার প্রায় সব কিছুই ভাগ্যের উপর নির্ভরশীল। হ্যাঁ, এক সময়ে আমি কর্মে বিশ্বাসী ছিলাম! মনে করতাম কর্ম করলেই ভাগ্য বদলে যাবে! অবশ্য এখন আর তা মনে করি না! এখন মনে করি দুনিয়ার সব কিছুই ভাগ্য! ভাগ্যে থাকলে সব কিছু ভাল চলে, ভাগ্য খারাপ হলে দুনিয়ার সব কিছুই নষ্ট হয়ে যায়!

গত কয়দিন আগে আসুলিয়া স্কুলের ইতিহাস পড়ানো একজন শিক্ষকের সাথে পরিচিত হলাম। আসুলিয়াতে থাকেন, তিন ছেলেমেয়ে, বড়জন মেয়ে ছোট দুইজন ছেলে। বড় মেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মার্ষ্টাস পাশ করেছেন, বিয়ে হয়েছে স্বামী ও একটা ছেলে নিয়ে সুখী পরিবার! ছেলে দুটোও আসুলিয়া স্কুল, সাভার ক্যান্টনমেন্ট স্কুল থেকে পাশ করে এখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩য় ও ২য় বর্ষের ছাত্র। স্যার জানালেন, মেয়ে ছেলেদের তিনি কখনো তেমন মাষ্টার মুন্সী দিতেই পারেন নাই, তেমন ভাল খাবার কিংবা স্কুল কলেজে যাবার রিক্সা ভাড়াও দিতে পারেন নাই, হেঁটেই ওরা স্কুল কলেজে যেত! আসলে ভাগ্য হয়ত একেই বলে! একেই হয়ত বলে একজন ভাগ্যবান গর্বিত পিতা মাতা। শত চেষ্টায় ফুল ফুটানোও ব্যর্থ হতে পারে, অথচ ভাগ্যে থাকলে সেই ফুল আপনার কবস্থানেই ফুটবে!

আরো উদাহ্দরণ নিন! দুইজন মানুষ একই বিল্ডিং এ থাকেন, একই সময়ে একই গাড়িতে করে অফিসের পথে চলেন! একজন হাসি মুখে দাঁত খিলাল করতে করতে গাড়িতে উঠেন, অন্যজন বিরস বদনে! দাঁত খিলালের কারন তিনি প্রতিদিন সকালের নাস্তা সময় মত রেডি পান, খেয়ে বের হন এবং দুপুরের খাবার সাথে নিয়ে নেন! আর বিরস বদনের অভাগার কোনদিন নাস্তা মিলে তাও সময় মত নয়, কোনদিন একেবারেই নয়! দুনিয়াতে বেঁচে থাকতে হলে অভিনয় করেই যেতে হয়, তবে অভাগাদের একটু বেশী অভিনয় করতে হয়! সবই ভাগ্য, শত চাইলেও তা পাল্টে না!

যাই হোক, আপনাদের মন খারাপ করে দিলাম না তো? আসলে আমি যা চাইছি তা হচ্ছে না, ভাগ্য আমার চাওয়া মত কাজ করছে না! আমার দুঃখটা এখানেই! আমার চাওয়া তো তেমন একটা বেশি নয়, সামান্য! তা হলেও কেন হবে না! হা হা হা, আমি জানি দুনিয়ার বেশীর ভাগ মানুষই আমার মত করে দিন কাটাচ্ছেন! প্রতিদিন কাজ করতে চান অনেকে, কিন্তু তা অনেকই পারছেন না! যারা হয়ত এই বাঁধা কাটিয়ে এগিয়ে যাচ্ছেন, তাদের নামই ইতিহাস মনে রাখবে! (তাও ভাগ্য!)

আজ অনেক লেকচার হল! আশা করি আপনারা বোর ফিল করছেন না! চলুন আজ একটা মজাদার রান্না দেখি। আপনাদের সবার ভাল লাগবে, ইয়েস জালি কাবাব! এই জালি কাবাব আপনারা অনেকে খেয়েছেন কিন্তু হয়ত বানানো দেখেন নাই। খুব একটা কঠিন কাজ বলা যাবে না, তবে মশলা পাতি যোগাড় করতে পারলেই হল। সাথে লাগবে গোশতের কিমা! ব্যস!

উপকরন ও পরিমানঃ
– গরুর গোসতের কিমাঃ হাফ কেজি (কম বেশি, তবে সাইজ কেমন করবেন সেটার উপর কয়টা হবে তা নির্ধারিত হবে)
– পাউরুটিঃ ২ স্লাইস
– পেঁপে বাটাঃ হাফ কাপ
– কাঁচা মরিচ কুঁচি বা বাটাঃ ১ চা চামচ
– পেঁয়াজ বাটাঃ মাঝারি ২ টা
– রসুন বাটাঃ এক চা চামচ
– আদা বাটাঃ হাফ চা চামচের কম
– হলুদ গুড়াঃ এক চা চামচের কম
– জিরা গুড়াঃ হাফ চা চামচ
– বাদাম বাটাঃ দুই চা চামচ
– টমেটো সসঃ ১ টেবিল চামচ
– গরম মশলাঃ হাফ চা চামচ (এলাচি, দারুচিনি, লং, জয়ত্রী, গোল মরিচ গুড়া করেও দিতে পারেন)
– ধনে পাতার কুচি বা বাটাঃ  দুই চা চামচ
– পুদিনা পাতার কুচি বা বাটাঃ এক চা চামচ (পছন্দ করলে দিতে পারেন)
– লবনঃ পরিমান মত, দেখে
– ডিমঃ দুইটা (একটা পরে)
– তেলঃ ভাঁজার জন্য যা লাগে

প্রনালীঃ (ছবি কথা বলে)

ছবি ১, গোশতের কিমা নিন। হাতে বানানো কিমা হলে ভাল হয়।


ছবি ২, কিমাতে উপরে উল্লেখিত সন মশলা পাতি দিয়ে দিন (তেল ও একটা ডিম আলাদা রাখুন)


ছবি ৩, ভাল করে মাখিয়ে নিন। লবন দেখে নিন।


ছবি ৪, ফ্রীজের সাধারন চেম্বারে ঘণ্টা খানেক রাখুন।


ছবি ৫, বের করার পর এমনি দেখাবে।


ছবি ৬, ডিমটা ভেঙ্গে ফাটিয়ে নিন। ছোট সাইজের বেশি করলে ডিম আরো একটা লাগবে। আর কিমার কাইতেও আর একটা ডিম দিলে স্বাদ বাড়বে!


ছবি ৭, এবার তেল গরম করে (খোলা ফ্রাই প্যানে) এভাবে কাবাব ভাঁজুন।


ছবি ৮, এক পিঠ হয়ে গেলে অন্য পিঠ উল্টে দিন। আগুন মাঝারি থাকবে।


ছবি ৯, চুলার ধার ছেড়ে যাওয়া চলবে না। লক্ষ রাখুন। পুড়ে গেলে সব বরবাদ হয়ে যাবে, আবার কম ভাঁজা হলে ভিতরটা কাঁচা থেকে যাবে!


ছবি ১০, এবার কাবাব গুলো তুলে রাখুন এবং ঠান্ডা করুন। ঠান্ডা হয়ে গেলে আবার কাজে নামুন।


ছবি ১১, ডিমের কাইতে কাবাব গুলো চুবিয়ে আবারো ভাঁজুন।


ছবি ১২, আগুন মাঝারি।


ছবি ১৩, এভাবে হয়ে গেলে তুলে রাখুন।


ছবি ১৪, আরো জমান। ব্যস হয়ে গেল!


ছবি ১৫, সব গুলো হয়ে গেলে পরিবেশন করুন।


ছবি ১৬, বিকালের নাস্তা কিংবা সাধারন খাবারের সাথে পরিবেশন করতে পারেন। পোলাউ বা বিরিয়ানীর সাথে একটা চ্রম আইটেম হিসাবে চালিয়ে দেয়া যায়।


ছবি ১৭, ভেতরটা এমনি দেখাবে।


ছবি ১৮, স্বাদ ১০০ তে ১০০! হা হা হা।

খুব সাধারন রান্না, আজই রান্না করে ফেলুন। কিমা সহ সব কিছুই হাতের কাছে আছে নিশ্চয়! থাকার কথাই!

সবাইকে শুভেচ্ছা।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

2 responses to “রেসিপিঃ জালি কাবাব (এক্সক্লুসিভ আইটেম)

  1. Eid Mubarok bhai…..2 diner ei duniya….valo thakte cai but ..ALLAH’r kase doa kori jeno Akerat must must valo kate…….

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s