Gallery

আড্ডাঃ হোটেলে দুপুরের খাবার (পরিজন নিয়ে)


সাধারণত হোটেলে দুপুরের খাবার খেয়ে থাকেন নানা কর্মজীবি মানুষেরা, নারী কিংবা পুরুষগন। সপ্তাহিক ছুটির দিনে সবাই চেষ্টা করেন দুপুরের খাবার ঘরে খেতে কিন্তু নানান কাজে যদি এই ছুটির দিনে আপনি দুপুরের খাবার ঘরে তৈরী করতে না পারেন, তবে তো হোটেলেই খেতে হয়! এটা মন্দ আইডিয়া নয়, আপনার বাসার ধারে কাছে কোথায়ও কোন হোটেল পছন্দ করে, নিজের বাজেট মত খেয়ে আস্তে পারেন।

যাই হোক, গত কয়েকদিন আগে তেমনি সুযোগ হয়ে ছিল আমাদের। আর আমার নিজেরো কয়েকদিন ধরে এক গ্লাস বোরহানী খেতে ইচ্ছা হচ্ছিলো! ঘরে বাইরে খাব বলতেই সবার মুখে হাসি ফুটলো। আমরা রাওয়ানা হলাম।

আমাদের বাসার পাশেই হোটেল, আল কাদেরীয়া হোটেল এন্ড রেষ্টুরেন্ট। আমাদের রাম্পুরাতে এই হোটেল ভাল নাম কামিয়েছে। সকাল বিকাল রাত ভীড় লেগেই আছে। বিশেষ করে আমি এই হোটেলের দিকে নজর রাখি সব সময়েই। এই হোটেলের পরিবেশ মোটামুটি মধ্যবিত্তরা হজম করতে পারে। পরিবার, নারী শিশু সবাইকে নিয়ে এই হোটেলে বসে খাবার খাওয়া যায়। খাবারের দাম মধ্যবিত্তদের নাগালে আছে বলে আমি মনে করি। আপনি আপনার বাজেট ভেবে জিজ্ঞেস করে খেতে পারেন। চলুন ছবি দেখি এবং এই হোটেল, খাবার দাবার নিয়ে কথা বলি।

ছবি ১, প্রতিটা টেবিলে এই ধরনের  দোয়া দরুদ আপনাকে মহান আল্লাহর নাম স্বরন করিয়ে দেব।


ছবি ২, খাবারের অর্ডার দিয়ে এভাবে আড্ডা দিতে পারেন।


ছবি ৩, বড় ছেলে এখন আর ছবি তুলতে চায় না।


ছবি ৪, এই হচ্ছে আমার পছন্দের বোরহানী! যা শুরুতেই দিতে বলেছিলাম।


ছবি ৫, সালাত কুঁচি।


ছবি ৬, আমি যার যা পছন্দ খেতে বলেছিলাম, বড় ছেলে মোরগ পোলাউ পছন্দ করলো।


ছবি ৭, মোরগ পোলাউ এর ভিতর! মোরগের সাইজ ভাল তবে দেশী নয়, এটা সংকর জাতীয় মোরগ হতে পারে, তবে ফার্ম নয়!


ছবি ৮, এটা আমার প্লেট। আমি এবং আমার প্রিয়তমা কাচ্ছি বিরিয়ানী পছন্দ করেছিলাম।


ছবি ৯, এই হচ্ছে খাবারের শুরু! ছোট শিশুদের জন্য বিশেষ চেয়াররের ব্যবস্থা না থাকায় খাবারে সমস্যা হয়েছে। এই ধরনের হোটেলের কাছ থেকে অবশ্য এই সার্ভিস আশাও করা যায় না! এত সার্ভিস এরা এখনো চিন্তাও করে নাই!


ছবি ১০, হোটেলের ভিতরের দৃশ্য। (এই হোটেল নিয়ে আমি আগেও লিখেছিলাম একবার, সেই আগের সার্ভিসে কিছুটা কমতি মনে হল।)

যাই হোক, তবুও মন্দের ভাল। আমাদের মত সাধারন মানুষ ঘরে রান্না না করলে অন্তত এই ধরনের হোটেলে এক বেলা চালিয়ে দিতে পারি।

এই হোটেলের কয়েকটা দিক না বললেই নয়। ১) পুরা হোটেল সিসি ক্যামেরায় সাজ্জিত। ২) এখানে যে কোন ক্রেডিট কার্ড বা ব্যাংক কার্ড দিয়ে বিল দেয়া যায়। ৩) Free Wifi আওতায় ছিল কিন্তু কিছুদিন আগে থেকে এই সার্ভিস বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

আমাদের খাবারের দাম ছিলঃ পার প্লেট মোরগ পোলাউ ১৫০ (ডিম সহ), পার প্লেট কাচ্ছি ১৩০ (ডিম সহ), বোরহানী গ্লাস ৪০ টাকা,  ফালুদা নরমাল ৮০ টাকা (এটা পার্সেল নেয়া হয়েছিল)।

সবাইকে শুভেচ্ছা। প্রিয়জনদের নিয়ে আপনার মহল্লার এই রকম হোটেলে খেয়ে দেখতে পারেন। তবে খাবারের প্রশংসা না থাকলে সেই হোটেলে না যাওয়াই ভাল, খাবার শেষে আপনার মনে অনেক দুঃখ লাগবে, মনে হবে আপনার কষ্টার্জিত টাকা জলে দিলেন। খাবার ভাল হলে এই আফসোস থাকবে না!

6 responses to “আড্ডাঃ হোটেলে দুপুরের খাবার (পরিজন নিয়ে)

  1. ফ্রি ওয়াইফাই বন্ধ করে একদম কাজের কাজ করছে,এখন মানুষ একসাথে কোথাও খেতে গেলে ওইখানে ফ্রি ওয়াইফাই পেলে বন্ধুর সাথে আড্ডা না দিয়ে ফেসবুকে মন দেয়,বাইরে খাওয়ার আসল মজা বা উদ্দেশ্য অক্ষুণ্ণ থাকে না

    শুভেচ্ছা

    Liked by 1 person

  2. I was in BD last week. I wish I could go to a hotel and eat all these delicious foods. Unfortunately, my stomach can’t handle it. 😦

    Liked by 1 person

    • হা হা হা, প্রবাসে দীর্ঘ দিন থেকে আসলে এমনি হয়! আমি নিজেও প্রবাসী ছিলাম বলে বুঝতে পারি। প্রবাসে ভেজাল মুক্ত খাবার খেয়ে একটা অবস্থা হয়ে যায়, দেশে এসে সামান্য ভেজাল পড়লেই! হা হা হা… যাই হোক, বাদ দিন, নিজেই এমনি মজাদার রান্না করুন এবং খেয়ে চলুন।
      শুভেচ্ছা নিন।

      Like

  3. আমি পূর্ব রামপুরা থাকি। আমি ও এই হোটেলে খেয়েছি। খাওয়ার মান ভাল।হোটেলটা হওয়াতে আমাদের জন্য খুব সুবিধা হইসে।

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s