গ্যালারি

বিচিত্র পেশাঃ ২ (আমাদের রুবেল মিয়া ও তার বিশেষ ভাঁজিয়া)


[অনেক দিন ধরে ভাবছি, বিচিত্র পেশা নিয়ে একটা সিরিজ লিখবো। পথে ঘাটে হাঁটতে গেলে সাধারণত এই ধরনের পেশার মানুষের দেখা মিলে। এই বিচিত্র পেশার মানুষদের সাথে আমি কথা বলে আনন্দ পাই, তাদের ছবি তুলি মোবাইলে। ভাবছি এই মানুষ গুলোকে অনলাইনের পাতায় নিয়ে আসবো। তবে কিছু ভুল করছি, অনেকের নাম, মোবাইল বা ঠিকানা রাখা সম্ভব হলেও তা করতে পারি নাই।]

আজকের বিচিত্র পেশার মানুষটার নাম মোঃ রুবেল মিয়া। তিনি রাস্তার ধারে চোখের সামনে এক ধরনের বিশেষ ভাজিয়া বিক্রি করে থাকেন এবং বিশেষ করে শীতের সন্ধ্যায় তার এই ভাঁজিয়া (তিনি একটা নাম বলেছেন, তা আমি এই সময়ে মনে করতে পারছি না) অনেকেই পছন্দ করে থাকেন। রামপুরা, মধুবাগ, মগবাজার এলাকাতে তিনি ঘুরে ঘুরে এই ভাঁজিয়া বিক্রি করে থাকেন।


বেশ কয়েকদিন আগে রুবেলের সাথে কথা হয়েছিল। আমাকে দেখলে বেশ সন্মান করে, আমি অনেক আগে একবার খেয়েছিলাম, ভাল লেগেছিল। তার এই ভাজিয়ার বিশেষত্ব হল, তিন পদের ডাল বাটা, নানান পদের মশলা (মশলা গুলো আমাকে বলে দিয়েছে, কিন্তু আমি প্রকাশ করছি না। হা হা হা), লবন এবং ভাঁজার আগে ছোট চিংড়ি গায়ে লাগিয়ে নিয়ে থাকেন। কখনো চিংড়ি বেটেও দিয়ে থাকেন।

দুই সাইজের ভাঁজিয়া থাকে, একটা ছোট এবং একটা বড়। ছোট সাইজের দাম ৫ টাকা, বড় সাইজের দাম ১০ টাকা। দিনে ৭০০/৮০০ টাকার বা এর বেশী টাকার ভাঁজিয়া বিক্রি করা যায় বলে জানালেন। সন্ধ্যা থেকে রাত নয়টা পর্যন্ত সময়ে বিক্রি বেশী হয়। তবে বাসা থেকে যা কাই বানিয়ে নিয়ে আসেন তা শেষ হলে গেলেই বিক্রি বন্ধ করে চলে যান।

গত প্রায় ১০ বছর ধরে তিনি এই ব্যবসা করে আসছেন। টাঙ্গাইলে গ্রামের বাড়ি থেকে এক সময় এই ঢাকা শহরে উঠে আসেন এবং শহরে যখন হাবু ডুবু খাচ্ছিলেন তখন দুই বন্ধু মিলে এই অভিনব ভাঁজিয়া বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং এখনো দুই বন্ধু আলাদা করে দুই এলাকাতে এই ভাঁজিয়া বিক্রি করেন তবে থাকেন দুই বন্ধু একই এলাকাতে। রুবেল বিবাহিত এবং এক মেয়ের পিতা, খুশি মনে জানালেন তিনি ভাল আছেন। যেহেতু সকালে বাসায় থাকেন, সেই সময়েই তিনি নিজে এবং স্ত্রীর হেল্পে ভাজিয়ার কাই বানিয়ে থাকেন।

তবে ব্যবসার গাড়িটা যদি একটু গ্লাস দিয়ে ঘেরা দিতে পারতেন তবে খাবার গুলো আরো বেশী নিরাপদ হত। এখন খাবার খোলা রাখতে হয় বলে খাবারে কিছুটা ধুলাবালু পড়ে বলে অনেক কাষ্টমার খেতে চান না। খাদ্যে কোন ভেজাল দেন না, এক দিনের তেল অন্যদিনে ব্যবহার করেন না তাই কম তেলে সময় নিয়ে ভাঁজিয়া ভেঁজে তুলে থাকেন।

বিচিত্র এই দেশ, বিচিত্র এই দেশের মানুষ, কত কি বিচিত্র পেশা! তবে সবই জীবিকার টানে!

বিচিত্র পেশাঃ ১
http://www.somewhereinblog.net/blog/udraji/29997495

(আপনারা হয়ত জানেন যে, আমি নানান বাংলা ব্লগে রেসিপি ছাড়াও নানান বিষয় নিয়ে লিখে থাকি। সামহোয়ারইনব্লগের প্রকাশিত আমার এই সিরিজের লেখাটা রেসিপি পোষ্টের সাথে কিছুটা হলেও যায়। বিশেষ করে আমাদের মোঃ রুবেল মিয়ার বিশেষ ভাঁজিয়া ও তাদের নিজস্ব রেসিপিতে বানানো ভাঁজিয়া আপনি একবার খেলে আবার খেতে চাইবেন, না হলেও অন্তত মনে রাখবেন। আমাদের রেসিপি পাঠক, পাঠিকা ভাই বোন বন্ধুদের জন্য এখানেও প্রকাশ করা হল। সবাইকে শুভেচ্ছা জানাই।)

Advertisements

5 responses to “বিচিত্র পেশাঃ ২ (আমাদের রুবেল মিয়া ও তার বিশেষ ভাঁজিয়া)

  1. পিংব্যাকঃ simpleNewz - রান্নাঘর (গল্প ও রান্না) / Udraji's Kitchen (Story and Recipe) RSS Feed for 2014-12-07

  2. Dhaka Sohore cerag bati akhon deka jay na….Rubel’r cerag bati also un common subject.

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s