Gallery

রেসিপিঃ ডিম ও ফুলকপির ফুলঝুরি (বরিশালের রান্না)


আমাদের বরিশাল অঞ্চলের মানুষের ডিম অত্যান্ত প্রিয় একটা খাবার (আমি আশা করি ভুল বলি নাই!)। শুধু ডিম খেয়েই এই অঞ্চলের মানুষেরা দিনের পর দিন কাটাতে পারেন। ডিমে কোন অরুচি নেই বলেই আমি আমার বরিশালের বন্ধুদের কাছে শুনেছি। এই অঞ্চলে ডিম দিয়ে অনেক রান্না হয়ে থাকে। পাশাপাশি ডিম দিয়ে যে কোন তরকারী রান্নাও করা হয়ে থাকে বা বলা চলে, ডিম দিয়ে এই অঞ্চলের মানুষেরা নানা প্রকারের তরকারী রান্না করে্‌ যারা কম্বিনেশন অন্য জেলার লোকেরা দেখলে হয়ত বিশ্বাস করতে চাইবেন না এবং সাদা ভাতের সাথে সেই তরকারী খেয়ে থাকেন। ডিম সিদ্ধ, ডিম পোস, ডিমের অমলেট আমাদের স জেলাতেই চালু আছে, সাথে ডিম আলুর মাখামাখি একটা খাবার আমাদের প্রায় জেলাতে জনপ্রিয় হলেও ডিমের সাথে যেকোন তরকারীর রান্না এখনো আমাদের সারা দেশে চালু হয় নাই। আমি নিশ্চিত খাদ্যরসিক ছাড়া এমন খাবার সচারাচর অনেকে মুখে নিতে ভেবে দেখবেন।

আমি নিজেও ডিম পছন্দ করি, বিশেষ করে হাঁসের ডিম আমার পছন্দের তালিখায় উপরের দিকে আছে! সে যাই হোক, ডিম ও ফুলকপি দিয়ে একটা রান্না হয়ে যাক, এটা আমাদের বরিশালবাসীদের জন্য উৎসর্গিত! লোক মুখে যা শুনি, তা হচ্ছে, বর্তমানে বরিশাল জেলা হচ্ছে বাংলাদেশের সব চেয়ে পরিছন্ন শহর! একজন ভাল প্রশাসক কি করে একটা শহর পরিছন্ন রেখে দিতে পারেন তার প্রমান হচ্ছে এখনকার বরিশাল (সেই মেয়র আর এই দুনিয়াতে নেই, তার অবর্তমানে হয়ত এই পরিছন্নতা হারাবে এই শহর), আগে ছিল চট্রগ্রাম (এই শহরে নুতন মেয়র এসে আবার সব কিছু গুলিয়ে নোংরা করে ফেলেছে আবার)। যাই হোক এই রান্নায় সামান্য একটু টুইস্ট আছে, আমরা ডিমকে দুই ভাগে ভাগ করেছি, যা সাধারণত বরিশালে করা হয় না, ডিম আস্ত রাখা হয়!

চলুন দেখে ফেলি, হাতে সময় নেই! দুই পর্বের রান্না!(বার বার একই কায়দা করে গল্প কমিয়ে নেয়া!)

পরিমান ও উপকরনঃ (পরিমান আপনিও অনুমান করতে পারেন)
– গোটা ৩/৪ হাঁসের ডিম
– একটা মাঝারি ফুল কপি

– পেঁয়াজ কুঁচি
– আদা বাটা
– রসুন বাটা
– মরিচ গুড়া
– হলুদ গুড়া
– জিরা গুড়া
– কয়েকটা কাঁচা মরিচ

– লবন (বুঝে শুনে, পরিমান মত, কয়েক ধাপে)
– তেল (হাফ কাপ সব মিলিয়ে বা কম)

– ধনিয়া পাতার কুঁচি, একটু বেশী হলেই ভাল

প্রস্তুত প্রনালীঃ
ডিম ও ফুলকপি প্রস্তুতকরনঃ

ডিম সিদ্ধ করে নিন এবং খোসা ছাড়িয়ে রাখুন। পাশাপাশি ফুলকপি এক চিমটি লবন যোগে সামান্য সিদ্ধ করে পানি ঝরিয়ে রাখুন।


এবার কড়াইতে সামান লবন মাখিয়ে ডিম গুলো সামান্য তেলে ভাঁজুন। ডিমের গায়ে ছুরি দিয়ে আঁচড় কেটে নিন, হলদে ভাব আনুন।


ডিম তুলে রেখে এবার ফুল কপি গুলো সামান্য ভেঁজে নিন।


এভাবে ডিম ও ফুলকপি ভেঁজে তুলে রাখুন এবং সেই কড়াইতেই মুল রান্নায় লেগে পড়ুন।

মুলরান্নাঃ

কড়াইতে আর একটু তেল দিয়ে প্রথমে পেঁয়াজ কুছি ভাঁজুন, পেঁয়াজ হলদে হয়ে এলে এবার আদা, রসুন বাটা ও সাথে কয়েকটা কাঁচা মরিচ দিন। (ডিম এবং ফুল কপিতে লবন আছে বলে, খুব কম লবন দিয়ে শুরু করুন, পরে ফাইন্যাল লবন দেখে ঠিক করা যাবে)


ভেঁজে নিন, ঘ্রান বের হবে, এবার হাফ কাপ পানি দিয়ে দিন, আগুন মাধ্যম আঁচে থাকবে।


এবার মরিচ ও হলুদ গুড়া দিন।


ঝোল বানিয়ে নিন, এবার জিরা গুড়া দিন (জিরা টেলে গুড়া করে নিতে হবে)। ভাল করে কষিয়ে তেল উপরে উঠিয়ে নিতে হবে।


এবার প্রথমে ফুলকপি গুলো দিন।


ডিম গুলো দুই ভাগ করে এভাবে সাজিয়ে বসিয়ে দিন (আপনি ডিম গোটা রেখে দিতে পারেন, ব্যাপার না)


পাশ দিয়ে এক কাপ বা গা গা পানি দিন।


আগুন মাধ্যম আঁচে থাকবে, ঢাকনা দিয়ে ঢেকে দিন। মিনিট ১০ থাকুক, মাঝে নাড়িয়ে দিতে ভুলবেন না।


এই রকম অবস্থায় এসে যাবে।


ফাইন্যাল লবন দেখে নিন, লাগলে দিন, না লাগলে ওকে বলে আগে বাড়ুন। ঝোল কেমন রাখবেন তা আপনি নির্ধারন করুন। তবে বেশী নাড়া নাড়ি করবেন না, এতে ডিমের হলুদ অংশ বের হয়ে যাবে বা ফুলকপি ভেঙ্গে যাবে। (ডিম গোটা রাখলে এই সমস্যা নেই)। ধনিয়া পাতার কুঁচি ছিটিয়ে দিন।


ব্যস, পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।


গরম সাদা ভাতের সাথে ঝাক্কাস! আমি নিশ্চিত, অনায়সে দুই প্লেট চালান দিয়ে দিতে পারবেন। একবার রান্না করেই দেখুন। চরম খাবার, কি আছে এই জীবনে!

সহজ ও সাধারন রান্না, হাতের কাছে সব কিছুই পাবেন, বাজার হয়ে ফেরার সময় শুধু হাঁসের ডিম এবং ফুলকপি কিনে বাসায় ফিরুন! মনে রাখুন, রান্না হচ্ছে ভালবাসার বাস্তব প্রমান!

সবাইকে শুভেচ্ছা।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

Advertisements

8 responses to “রেসিপিঃ ডিম ও ফুলকপির ফুলঝুরি (বরিশালের রান্না)

  1. Innovative recipe, I must try this.

    Liked by 1 person

  2. হাসের ডিম এ গন্ধ লাগে , তবে আজ মুরগির ডিম দিয়ে চেষ্টা করে দেখব ,ধন্যবাদ .

    Liked by 1 person

  3. আজকেই ট্রাই করব।

    Liked by 1 person

  4. Your all recipes r awesome… can u show some dessert recipes?? Chulay cake bananor recipe ta dekte pele khub khusi hotam….thank u soo much..

    Liked by 1 person

  5. আমি রান্ন করেছি, মোটামুটি সবাই প্রশংসাই করেছে, ধন্যবাদ উদরাজী ভাই

    Liked by 1 person

  6. আমি রান্ন করেছি, মোটামুটি সবাই প্রশংসাই করেছে, ধন্যবাদ উদরাজী ভাই

    Liked by 1 person

  7. My parents belonged to Barisal, but I am born and brought up in New Delhi. However my tastes remain as of Barisal people. I will try the recipe today.
    Chandan Bose

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s