গ্যালারি

রেসিপিঃ বাঁধা কপি ভাঁজি, কলকাতা স্টাইল (স্বাদ না হলে টাকা ফেরত)


আর যাই হোক বা না হোক, অনলাইনে রেসিপি লিখে আমি আমার পরিচিত আত্বীয় স্বজন বন্ধু বান্ধবদের মধ্যে একটা পরিচিতি পেয়ে গেছি! হা হা হা। বাস্তবে দেখা হলে আমাকে আজকাল কি লিখছি সেটা জিজ্ঞেস করেন। গত কয়েকদিন আগে এমনই একটা মজার ঘটনা ঘটে গেল। আমাদের এক সিনিয়র ভাই তার স্ত্রী নিয়ে ঈদের শপিং করছেন, মার্কেটে ভাই সহ ভাবীর সাথে অনেকদিন পর দেখা হল। ভাবী প্রথমেই আমাকে বললেন, করলার ঝোল রেসিপিটা বেশ হয়েছে। হা হা হা, উনি আমার রেসিপি দেখেন এটা আমি কল্পনাও করতে পারি নাই! পরে বুঝতে পারছি ভাই কিংবা ভাতিজা (বিবিএ পড়ুয়া) আমার সাইটে নুতন রেসিপি এলেই ভাবীকে দেখিয়ে থাকে। আমি আগেই ভাই থেকে শুনেছি, ভাবী অনেক চমৎকার রান্না করেন। কাজেই রান্নার প্রতি আগ্রহ থাকবেই। ঘটনায় খুব আনন্দ পেয়েছি, অন্তত কিছুটা হলেও কাজ হচ্ছে!

ফেসবুকের লিঙ্ক ধরে অনেক আমার রেসিপি সাইটে আসেন এবং এর পর ইমেল দিয়ে যান। রেসিপি প্রকাশের সাথে সাথে ইমেইলে পেয়ে যান। আমি এমন জানি বা দেখেছি যে, কয়েকদিনে নুতন রেসিপি না এলে, অনেকে আমার খোজ নেন এবং আমি কেমন আছি জানতে চান। এই ধরনের মেইল বা এস এম এস বা ফোন আমাকে আনন্দ দিয়ে থাকে, চলার পথ সুন্দর করে।

বাজারে এখুনি শীতের সবজি পাওয়া যাচ্ছে! সবই এই সরকারের কৃতিত্ব! বাঁধাকপি ভাঁজি খেলাম আজ তবে রান্নার ফরমুলা একটু ভিন্ন, আমাদের গতানুগতিক নয় (রেসিপিটা কালেক্ট হয়েছে আমাদের পাশের বাসার ‘নীপা ভাবী’ থেকে)। বেশ ভাল লেগেছে!

খুব সহজ এবং সাধারন এবং কম মশলায় রান্না। চলুন দেখে ফেলি। আগেই বলে নেই, পেঁয়াজ/রসুন কুচি বা বাটা ছাড়া এই রান্না!

উপকরনঃ
– একটা মাঝারি বাঁধাকপির হাফ (পাতলা করে ফালি করে কাটতে হবে)
– কয়েকটা চিংড়ি (সামান্য বেশি/কমে কি আসে যায়)
–  এক চিমটি কালি জিরা
– জিরা গুড়া বা বাটা, হাফ চা চামচ
– লাল মরিচ গুড়া, হাফ চা চামচ (ঝাল বুঝে কম হতে পারে)
– হলুদ গুড়া, হাফ চা চামচ
– কয়েকটা কাচা মরিচ ফালি
– হাফ চামচের কম চিনি (চিনি না দিলে স্বাদ একটু ভিন্ন হয়, তরকারির মলিনতা থাকে না)
– ধনিয়া পাতার কুচি (এক চা চামচ বা বেশী)
– লবন, পরিমান মত (প্রথম ধাপে সামান্য, পরে সঠিক করে)
– তেল, যত কমে রান্না করা যায় তবে আমরা ৪/৫ টেবিল চামচ দিয়েছিলাম
– পানি, সামান্য

প্রনালীঃ

বাঁধাকপি এভাবে কুঁচে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখুন।


কড়াইতে তেল গরম করে এক চিমটি কালিজিরা ভাজুন। লবন দিয়ে দিন।


এবার গরম তেলে জিরা গুড়া/বাটা দিন এবং সামান্য ভেজে চিংড়ি দিন।


কাচা মরিচ ফালি দিন।


আগুন মাধ্যম আঁচে থাকবে। হলুদ মরিচ গুড়া দিন। ভাজুন।


এবার হাফ কাপ পানি। ভাজুন।


এবার বাঁধাকপির কুচি দিন।


ভাল করে মিশিয়ে দিন।


ঢাকনা দেবার আগে হাফ চামচ চিনি ছিটিয়ে দিন এবং মাধ্যম আছে মিনিট ১০-১৫ রাখুন। চুলার ধার ছেড়ে যাবেন না। মাঝে নাড়িয়ে দিন কয়েকবার, লক্ষ রাখবেন যাতে কড়াইয়ের তলায় না লেগে যায়।


এমনই অবস্থায় এসে যাবে। যারা একটু কচকচে খেতে চান তারা আগুন থামিয়ে দিতে পারেন, আর যারা একটু নরম চান তারা আর একটু আগুনে রাখতে পারেন। এই সময়ে ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন, না লাগলে ‘ওকে’ বলে আগ বাড়ুন।


ঠিক রান্না বাটিতে তুলে ফেলার আগে কিছু ধনিয়া পাতার কুচি ছিটিয়ে দিয়ে মিশিয়ে নিন।


পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত!


রুটি বা সাদা ভাতের সাথে খেয়েই দেখুন না, ভাল না লাগলে আমি আপনার এই রান্নার খরচের টাকা ফেরত দিব, প্রমিজ করলাম! আর কি বলতে পারি! তবুও রান্না করুন।

সবাইকে শুভেচ্ছা।

কৃতজ্ঞতাঃ নীপা ভাবী ও মানসুরা হোসেন

Advertisements

5 responses to “রেসিপিঃ বাঁধা কপি ভাঁজি, কলকাতা স্টাইল (স্বাদ না হলে টাকা ফেরত)

  1. বাধাকপি রান্নাটা আমাদের খুব একটা সুবিধা হয়না, অনেকটা ঘাসের মত লাগে, তাই ওটা খাওয়া বাদ দিয়েছি, আপনার রেসিপি দেখে আবার ট্রাই দিতে হবে।

    Like

  2. এইমাত্র করে আসলাম, অসাধারন। আমি এখন থেকে এই রকম করেই রাননা করব। ভাবিকে অনেক ধন্যবাদ।

    Liked by 1 person

  3. Recipe ta knowdoubt khub I testy tar thekeo valo laglo recipe lekhar eto sundor easy style ja ami er age r kokhono pai ni tar jonyo aro besi kore thanx r suveccha janai.

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s