Gallery

রেসিপিঃ জাম্বুরা ভর্তা (শুকনা মরিচ পোড়া দিয়ে)


জাম্বুরা! পুরাই আমাদের দেশি ফল। আই লাইক ইট! মজার বিষয় এই যে, জাম্বুরায় কোন ভেজাল মিশাতে পারছে না বা ভেজাইল্যারা ভেজাল করছে এমন কোন কথা এখনো উঠে নাই! তাই নিশ্চিন্ত মনে বাজার থেকে জাম্বুরা কেনা যায়! এখন আমাদের দেশে জাম্বুরা সিজন চলছে। দামে সস্তা, গুনে মানেও ভাল জাম্বুরা রাস্তা ঘাটে পাওয়া যাচ্ছে! গতকাল মাঝারি মানের দুটো জাম্বুরা কিনে ফেললাম! আজ সকালে অফিসে বের হবার আগে, জাম্বুরা বানিয়ে খেয়ে আসলাম!

আপনাদের জানিয়ে রাখতে চাই, দেশি ফল জাম্বুরার অনেক ঔষধি গুন আছে। শুনেছি, শরীরে সুগার নিয়ন্ত্রনে রাখতে জাম্বুরার তুলনা নাই! ডায়াবেটিক্সে আক্রান্তরা নিয়মিত জাম্বুরার খেয়ে থাকেন এবং ধনীরা এই জাম্বুরার জুস পান করে থাকেন। ফলফলাদি মহান আল্লাহর অশেষ নেয়ামত। মানুষ সহ দুনিয়ার অনেক প্রানী ফলফলাদি খেয়ে বেঁচে থাকে, ফলফলাদিতে নানান ধরণের গুনাগুন থাকার ফলে মানুষ ও প্রানী আরাম পায়!

যাই হোক, নেট থেকে সার্চ করে আপনারা এই গুনাগুন জেনে নিতে পারেন। তবে আসুন আজ, আমাদের দেশে প্রচলিত একটা জাম্বুরা খাওয়ার নিয়ম দেখিয়ে দেই, জাম্বুরা ভর্তা! জাম্বুরা ভর্তায় আবার ভুল ধরার চেষ্টা করবেন না, জাম্বুরার ভিতরের কোষ দিয়েই এই ভর্তা। খুব সাধারন এবং সহজ। গ্রাম বাংলার ঘরে ঘরে এমনি করেই এই ভর্তা খাওয়া হয়। আর আগেই মাফ চেয়ে নেই এই ভর্তা বানানোর সময় বাসায় কারেন্ট মামা (বিদ্যুত মামা) ছিল না, ফলে ভাল ছবি তুলতে পারি নাই। অনুমানে ফ্লাস দিয়ে যা উঠেছে! ফেসবুকে একটা ছবি ছাপিয়ে দেখলাম, সবাই লাল বেশী লাগছে বলে জানিয়েছেন! জাম্বুরা এত লাল হতে পারে না! হা হা হা।

উপকরনঃ (পরিমান আপনি নিজেই অনুমান করতে পারবেন)
– জাম্বুরার কোষ
– শুকনা মরিচ (আগুনে পুড়িয়ে নিতে হবে)
– চিনি
– লবন

প্রনালীঃ

ছবি ১


ছবি ২


ছবি ৩ (চিনিটা বেশী দেয়া চলে না, চিনিটা জাম্বুরা কেমন তার স্বাদের উপর নির্ভর করে দিতে পারেন)


ছবি ৪


ছবি ৫, ভাল করে মিশিয়ে নিন। টেবিলে তোলার আগে পুনঃরায় স্বাদ দেখে নিন, যা লাগে দিন।


ছবি ৬, ব্যস রেডী।


ছবি ৭, স্কুলে যাবার আগে আমার বড় ছেলে বুলেট খেয়ে তারিফ করে গেল! আমি জিজ্ঞেস করলাম, কেমন হল! বলল, ডিলিসিয়াস!


ছবি ৮, ছোট ছোট ব্যাপারেই প্রিয়জনের মুখে হাসি ফুটানো যায় যদি আপনি ইচ্ছা করেন! আপনার সামান্য আগ্রহ, ভালবাসা আপনার প্রিয়জনের জন্য আরো ভালবাসা বয়ে নিয়ে আসতে পারে!

তবে প্রিয়জন কষ্ট করে আপনার সামনে যা কিছুই নিয়ে আসবে, তাতে কমেন্ট করতে সাবধান! আপনার ছোট একটা বাজে কমেন্ট সেই প্রিয়জন মনে কষ্ট নিতে পারেন এবং সেই রাগ ক্ষোভ সারা জীবন মনে পুষে আপনার ভালবাসা ত্যাগ করতে পারেন! কাজেই পজেটিভ কমেন্ট প্লিজ, আমাকে না, আপনার জন্য যিনি রান্না করেন উনাকে! মা, বোন, স্ত্রী বা মেয়েকে!

সবাইকে শুভেচ্ছা।

Advertisements

6 responses to “রেসিপিঃ জাম্বুরা ভর্তা (শুকনা মরিচ পোড়া দিয়ে)

  1. পিক গুলো দেখে খুব ইচ্ছে করছে খেতে …।

    Liked by 1 person

  2. darun tobe etar sathe kintu olpo ektu sorishar tel o dia jete pare

    Liked by 1 person

  3. টক জাতীয় ফলের মধ্যে বাতাবী লেবু আর আমড়া আমার দারুণ প্রিয়। আপনার রেসিপি দেখে জিবে জল এসে গেল । 🙂

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s