গ্যালারি

রেসিপিঃ মুরগী রান্না (পুরাতন রান্না, নুতন গল্পে)


আপনাদের নানা পদের মোরগ/মুরগী রান্না দেখিয়েছি। আপনারা “মোরগ/মুরগী (চিকেন)” ক্যাটাগরিতে গিয়ে দেখতে পারেন। এখন আর নুতন বা ব্যতিক্রমী রান্না না পেলে বা করলে সেই রেসিপি আর তুলি না। একই ধরনের রান্না, পর পর দেয়ার কোন মানে হয় না! প্রতিটা রেসিপিতে যদি বৈচিত্র না থাকে তা হলে কি আর চলে? আপনাদের মত আমিও এভাবে বিষয়টা দেখি! যাই হোক, আজ পুরানো রেসিপির ছবি হার্ডডিক্সে দেখতে গিয়ে দেখতে পেলাম, একটা মুরগী রান্নার ছবি, যা আমি আপনাদের দেখাই নাই! যতদুর মনে পড়ে বছর দুয়েক আগের রান্না এবং একদিন রাতে বাসায় ফিরে (সে দিন বাসায় ব্যাটারী ও পরিবারের কেহ ছিল না, তারা মনে হয় বেড়াতে গিয়েছিল) আমি এই রান্না করেছিলাম! সাথে ছিল সাদা ভাত! আজ ভাবছি আপনাদের সেই রান্নার ছবি গুলো দেখিয়ে দেব! এতদিন না দেখানোর কারন, রেসিপি হিসাবে এই রান্নাটা আমার কাছে তখন যুতসই মনে হয় নাই! হা হা হা, চলুন তার আগে গল্প করে নেই!

আজ উইকিপিডিয়াতে মোরগ/মুরগী (চিকেন) নিয়ে কি লেখা আছে তা পড়ছিলাম। বেশ মজাদার তথ্য পেলাম। দুনিয়াতে সেরা গৃহপালিত প্রানীর নাম হচ্ছে মোরগ/মুরগী (চিকেন)। মানুষের অতি নিকটে পাখী গোত্রের এই প্রানীটা মানুষের অনেক উপকারী বন্ধু। সারা বিশ্বের মানুষ চিকেনের মাংস ও ডিম খেয়ে থাকে! সোজা কথায় চিকেন মানুষের খাদ্যের বিরাট যোগানদাতা! চিকেনের পুরুষদের ইংরেজীতে বলে “Rooster” এবং “Hen” বলা হয় নারী চিকেনদের। তবে বাংলায় চিকেন (Chicken) এর কোন সামষ্টিক অর্থ পেলাম না! বাংলায় “মোরগ” বা “মুরগী”ই বলা হয়ে থাকে! যারা আপনারা এখন খুব শহুরে হয়ে পড়ছেন বা আমাদের শিশুদের কথাই বলি, তারা এখন হয়ত “মোরগ” কাকে বলে আর “মুরগী” কাকে বলে তা জানতে পারছে না! নিন্মে একটা ছবি দিয়ে তা বুঝিয়ে দিলাম! হা হা হা। “মোরগ” হচ্ছে যে ডিম পাড়ে না কিন্তু বাহাদুরি করে বেড়ায়! আর “মুরগী” হচ্ছে যে ডিম পাড়ে, আবার ডিমে তা দিয়ে বাচ্চা ফুটায় এবং পরবর্তিতে বাচ্চাদের বড় করেও তুলে!

The chicken (Gallus gallus domesticus) is a domesticated fowl, a subspecies of the Red Junglefowl. As one of the most common and widespread domestic animals, with a population of more than 24 billion in 2003,[1] there are more chickens in the world than any other species of bird. Humans keep chickens primarily as a source of food, consuming both their meat and their eggs. বাকী অংশ পড়তে এখানে ক্লিক করতে পারেন! (ছবি ও সুত্রঃ উইকিপিডিয়া)

চলুন পুরানো চিকেন রান্নার ছবি দেখে ফেলি! এটা রান্না হয়েছিল ব্যচেলর বা মশলা মিক্স প্রদ্ধতিতে। মানে চিকেনে সব মশলা, ভেজষ এবং তেল লবন দিয়ে একবারেরই চুলায় বসিয়ে রান্না করা হয়েছিল।

উপকরণ ও প্রনালীঃ

(আগের একটা রান্না থেকে পরিমান তুলে দিলাম) মুরগী গোসত যে পাতিলে রান্না করবেন তাতে নিন। এবার একে একে মশলা দিতে থাকুন। এক কেজি মুরগী মাংসের জন্য হিসাবটা এমন হতে পারেঃ
– পেঁয়াজ কুঁচি (হাফ কাপ)
– রসুন দেশী (দুই চা চামচ)
– আদা দেশি (দেড় চা চামচ)
– মরিচ গুড়া (এক চা চামচ)
– হলুদ গুড়া (হাফ চা চামচ)
– জিরা গুড়া (হাফ চা চামচ)
– ধনিয়া গুড়া (হাফ চা চামচ)
– তেল (১/৪ কাপ বা বুঝে), আমি তেল কমে রান্না করেছিলাম
– কয়েক টুকরা দারুচিনি
– ২/৩ টা এলাচি
– কয়েকটা কাঁচা মরিচ (না থাকলে নাই)
– লবন (লবন প্রথম চোটে কম দিবেন, পরে লাগলে দিবেন)


এভাবে মেখে কিছুক্ষন রেখে দিন।


তার পর আগুনের আঁচ কমিয়ে চুলায় চড়িয়ে দিন। এক কাপ পানি দিতে হবে।


ঢাকনা দিতেই হবে। মিনিট ৩০ লাগতে পারে, আগুন নিম্ম আঁচে থাকলে!


মাঝে মাঝে নাড়িয়ে দিতে ভুলবেন না। যদি গোশত নরম না হয়, তবে আরো পানি দিতে পারেন। তবে আগুনের আঁচ কেমন তার উপর নির্ভর করবে। নামিয়ে নেবার আগে ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন, না লাগলে সামনে বাড়ুন।


সময় না থাকলে হাড়ি সহ খাবার টেবিলে তুলে নিন।


পুরোটাই আপনার! ঘরে একা থাকলে কে আর ভাগ চাইবে!

স্বাদ কেমন হয়েছিল তা আজ মনে নেই তবে রান্না শিখে এখন মনে হয়, চিকেন (মোরগ/মুরগী) মানুষের জন্য এমন এক প্রকারের খাদ্য যে, আপনি যেভাবেই রান্না করুন না কেন, স্বাদ না হলেও খেতে পারবেন! হা হা হা। তবে মশলা পাতি দিয়ে রান্না করলে ভাল স্বাদ হতে বাধ্য!

সবাইকে শুভেচ্ছা। ভাল থাকুন এবং আনন্দে দিন কাটুক আমাদের সকলের।

আরো রান্না দেখুনঃ মোরগ/ মুরগী (চিকেন) (38)

Advertisements

5 responses to “রেসিপিঃ মুরগী রান্না (পুরাতন রান্না, নুতন গল্পে)

  1. Chicken ranna shobai pare amio pari.

    Like

  2. এটাই বোধহয় সবচেয়ে সহজ রান্না। একটা কাজ করলে কেমন হয়, বাজারে যে মুরগি মশলা মিক্সড পাওয়া যায় সেটা ব্যবহার করে এমন রান্না করা যাবে। অবশ্য বাজারের ঐ রেডিমেড মশলাতে ঠিক আসল স্বাদটা পাওয়া যায় না। কেমন যেন একটা অন্যরকম গন্ধ আসে।

    Liked by 1 person

    • ধন্যবাদ মাহবুব ভাই।
      আপনার সাথে একমত। আমি রেডিমেড মশলায় অনেক কিছু রান্না করেছিলাম, আমার ধারনা যে আলাদা ঘ্রান পাওয়া যায় তা হচ্ছে মেথি সহ অন্য মশলার একটু বেশী ব্যবহার।

      রেডিমেড মশলায় আমার মনে হয় ওরা আরো কিছু কেমিক্যাল দিয়ে থাকে। ইনগ্রেডিয়েন্সে তা উল্লেখ থাকে।

      যাই হোক, চলুক আমাদের রান্না।
      শুভেচ্ছা।

      Like

  3. মুরগি রান্নায় ভিনেগার কিভাবে ব্যাবহার করব যদি বলতেন তাহলে উপক্রিত হতাম

    Liked by 1 person

    • শক্ত মাংস রান্নায় আপনি এক কেজিতে এক কর্কের কম ভিনেগার দিতে পারেন বলে আমি মনে করি। ভিনেগার স্বাদ কিছুটা বাড়ায়, সাথে তরকারীর মুল উপাদান নরমে সাহায্য করে বলে আমার মনে হয়! (আমি ভুল হতে পারি কারন পড়াশুনা না করে এই কথা বলছি!) সময় হাতে থাকলে ভিনেগার না দিয়েই রান্না করুন। শুভেচ্ছা নিন।

      Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s