Daily Archives: জুলাই 18, 2014

গ্যালারি

রেসিপিঃ পুঁইশাক এবং চিংড়ি মাছ (সাধারণ তথ্য সহ, নূতনদের জন্য)


পুঁইশাক কেন খাবেন? (লেখকঃ মুহাম্মদ রোকনুদ্দৌলাহ্) আমাদের দেশে সারা বছরই পুঁইশাক পাওয়া যায়। এটি খেতে বেশ সুস্বাদু, পুষ্টিগুণে অনন্য আর রোগ প্রতিরোধেও ভূমিকা রাখে। এতে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ভিটামিন। পুঁইশাক ভিটামিন-এ, ভিটামিন-সি ও ভিটামিন-বিতে সমৃদ্ধ। এ ছাড়া এতে রয়েছে প্রচুর … বিস্তারিত পড়ুন

গ্যালারি

রেসিপিঃ মাছ রান্নার ঝোল প্রিপারেশন (যে কোন মাছই চলতে পারে)


আমি ভাল মাছ রান্না করতে পারি এবং মাছ রান্না আমার কাছে সব চেয়ে সহজ বলে মনে হয়। মাছ রান্নায় সময় কম লাগে আর মোটামুটি সব মাছের একই উপকরন দিয়ে রান্না চলে। গরম ভাতের সাথে এমনি মাছের এক টুকরা এবং একটু ঝোল দিয়েই খাবার খেয়ে উঠা যায়। যে কোন ধরনের মাছ বা মাছের টুকরা দিয়ে এভাবে রান্না করতে পারেন। তাজা মাছের স্বাদ, ঘ্রান (প্রত্যেক মাছের একটা আলাদা স্বাদ ও ঘ্রান আছে) যে কোন বাংলাদেশীকেই আনন্দ দিবে। মাছ খান না এমন বাংলাদেশী এই দুনিয়াতে খুব কমই আছে! তবে ছোট বেলা থেকেই মাছ খাবার অভ্যাস করতে হয়। কম কাঁটার মাছ দিয়ে শিশুদের আগ্রহী করে তুলতে হয়। এই রেসিপি সাইটে আমার বাংলাদেশে পাওয়া প্রচুর মাছের রান্না ও ফ্রাই আছে এবং সেটার দুটো ক্যাটাগরী আছে। আপনি চাইলে ক্যাটাগরী অনুসারে সেই সব রান্না ও ভাঁজা দেখতে পারেন। নতুবা আপনার পছন্দের মাছের নাম লিখে (বাংলা বা ইংরেজীতে) সার্চ দিয়েও বের করে দেখে নিতে পারেন।

১। মাছ ভাজি ও বেক (হরেক রকমের মাছ)
২। মাছ সমূহ রান্না

যাই হোক, আমার রেসিপি সাইটের একজন প্রিয় ব্যাচেলর পাঠক চট্রগ্রাম থেকে লিখেছেন, “উদরাজী ভাই মাছ রান্না করতে ভয় পেতাম, এখন চমৎকার স্বাদের মাছ রান্না করতে পারি শুধু আপনার রেসিপির কারনেই”। আমিও বলি, মাছ রান্নায় ভয় নেই, শুধু প্রথমে ঝোলটা বানিয়ে নিলেই হল, ব্যস! তার পরে বাকী কাজ শুধু নাড়া ছাড়া!

চলুন মাছ রান্নার ঝোল আবারো দেখে নেই। খুব সহজ, তবে মাধ্যম আঁচে একটু সময় নিয়ে করবেন।

প্রয়োজনীয় উপকরনঃ
– যে কোন মাছ (রান্না শুরু করার আগেই মাছে কেটে বা পরিস্কার করে রেখে দিবেন)
– মাঝারি চারটে পেঁয়াজ কুঁচি (পেঁয়াজ একটু বেশী হলে স্বাদ বাড়বে)
– কয়েকটা কাঁচা মরিচ,
– এক টেবিল চামচ আদা বাটা,
– এক টেবিল চামচ দেশী রসুন বাটা,
– ঝাল বুঝে হাফ চামচ মরিচ গুড়া (ঝালের ব্যাপারটা খেয়াল রাখবেন সব সময়েই)
– হাফ চা  চামচ হলুদ গুড়া,
– তেল (কম তেলে রান্না করতে চাইলে পানি একটু বেশি দিয়ে দিবেন)
– পানি (মাছ রান্নায় দুই দফা পানি লাগে, ঝোলের সময় একবার, মাছ কষিয়ে নিয়ে আর একবার)
– লবন (যে কোন রান্নায় কম লবন দিয়েই রান্না শুরু করবেন কারন রান্না শেষের আগে আবারো লবন দেয়ার চান্স মিলে, রান্নায় লবন কম বেশি হলে রান্নার মুল স্বাদ মাটি হয়ে যায়)

মাছ রান্নার পরে নিম্মের যে কোন দুটোর একটা ব্যবহার করতে পারেন।
– হাফ চা চামচ জিরা গুড়া (শেষে ব্যবহার হবে)
আরো দিতে পারেন
– দেশী/বিদেশি ধনিয়া পাতার কুঁচি

বিশেষঃ রান্না তুলে নেয়ার আগে কয়েকটা আস্ত কাঁচা মরিচ দিতে পারেন। মাছ রান্না বাটিতে তুলে নিলে দেখতে ভাল দেখাবে বা যারা ঝাল বেশি পছন্দ করেন তারা তা খেতে পারেন।

প্রনালীঃ 

কড়াইতে তেল গরম করে তাতে সামান্য লবন যোগে পেঁয়াজ কুঁচি ভাঁজতে থাকুন।


পেঁয়াজ কুচি নরম এবং হাল্কা হলদে রঙ হয়ে এলে কাঁচা মরিচ, আদা, ও রসুন দিন এবং আরো কিছু সময় ভাঁজুন।


এবার প্রয়োজনীয় পানি দিয়ে দিন এবং নাড়ুন।


এবার হলুদ গুড়া ও মরিচ গুড়া দিন এবং ভাল করে মিশিয়ে কম আঁচে রাখুন।


দেখুন সব ভেজষ মিলে মিশে একটা আলাদা ঘ্রান বের হয়ে আসছে এবং তেল উপরে উঠে আসবে। ব্যস হয়ে গেল মাছ রান্নার ঝোল।

এবার শুধু আপনি আপনার পছন্দের মাছ ছেড়ে দিন। ভাল করে মিশিয়ে ঢাকনা দিয়ে রাখুন। প্রায় সব মাছ থেকেই পানি বের হয় এবং এই পানিতেই মাছ রান্না হয়ে যায়, যদি ঝোল বেশি রাখতে চান তবে আরো এক কাপ পানি দিতে পারেন। শেষে ফাইন্যাল লবন স্বাদ দেখে জিরা গুড়া বা ধনিয়া পাতার কুঁচি ছিটিয়ে নামিয়ে পরিবেশন করুন।

একবার মাছ রান্না শিখে গেলে আপনাকে আর কে ঠেকায়? তবে রান্না হচ্ছে প্যাক্ট্রিক্যাল বা অভিজ্ঞতার ব্যাপার। আপনি যত রান্না করবেন, রান্নায় আপনি ততই দক্ষ হয়ে উঠবেন। আমার কাছে রান্না হচ্ছে ভালবাসা, এই ভালবাসা থেকে কেন নিজকে বঞ্চিত করবেন! রান্না করে প্রিয় কাউকে খাই দেখুন না।

নমুনাঃ

আইড় মাছ রান্না


চিংড়ি মাছ রান্না


রুই মাছের পেটি রান্না


সামুদ্রিক কাইক্যা মাছ রান্না (এই মাছ গুলো আগে সামান্য ভেঁজে নেয়া হয়েছিল, কিছু মাছ ভেঁজে নিয়েও রান্না হয়, তবে তাজা মাছ কখনো ভাঁজার দরকার আঁচে বলে আমি মনে করি না)


গজার মাছ রান্না।

ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা বন্ধুরা। আশা করি রান্না করবেন। রান্না একটা গুণের না, নারী বা পুরুষ কোন ব্যাপার নয়। যিনি ভাল ও স্বাদের রান্না করবেন, সবাই তাকে ভালবাসবেই। আর একবার রান্না শিখে গেলে আজীবন আপনি ভালবাসা পেয়েই যাবেন।

সবাই ভাল থাকুন।

গ্যালারি

রেসিপিঃ ছোট মাছ ভাঁজা (জাপানি স্টাইল)


আমার একজন জাপানী বন্ধু আছে। কতকাতা এয়ারপোর্টে আমাদের প্রথম পরিচয় হয়েছিল এবং সেই থেকে সে আমার ফেবু বন্ধু এবং সে যেমন আমাকে লিখে আমিও তাকে লিখি/দেখি। সে ভারত দেখতে গিয়েছিল আমিও গিয়েছিলাম। পরিচয়ের পর বাংলাদেশের নাম বলাতে চিন্তে পেরেছিল বলে … বিস্তারিত পড়ুন