Gallery

রেসিপিঃ মটর শাক ভাজি (সাধারণ)


আপনারা অনেকে জানেন যে, আমার বাসা থেকে বাজার খুব একটা দূরে নয়। তবে আজকাল বাজার মাথার উপরেও এসে যাচ্ছে! মানে অনেকেই এখন ভ্যানে করে নানান প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি বিক্রি করছে। আমাদের রামপুরা রাস্তা দিয়ে আমার বাসা পর্যন্ত আসতে এখন প্রায় দশ/বারট ভ্যান চোখে পড়ে, সাথে ফুটপাতে তো ফিক্স দোকান আছেই। শুধু পেঁয়াজ রসুন আলু বিক্রেতাও হয়েছে পাচ/ছয়টা দোকান। যাই হোক, আমাদের গলির মুখেই একটা ভ্যান সন্ধ্যার পর বসে, ছেলেটা বয়সে তরুণ। আমার সাথে প্রায় দেখা হয়, আমাকে দেখলেই বলে, স্যার আজ কিছু নিবেন না (একদিন বলেছিলাম ‘স্যার’ ডাকিস না! আমি ‘স্যার’ হতে এখনো পারি নাই! তার পর থেকে দেখি আরো উৎসাহ নিয়ে ডাকে)! আমি প্রায় প্রতিদিনই অফিস থেকে ফেরার পথে ওর থেকে কিছু না কিছু কিনে থাকি। আজকাল সে শাক বিক্রি করে (এক এক সময় এক এক মালামাল বিক্রি করে), আবার হয়ত কিছু দিন পর অন্য কিছু বিক্রি করবে। আজ দেখলাম, অনেক ধরনের শাক নিয়ে বসে আছে তবে মটর শাকের পরিমান একটু বেশি মনে হল। সে আমাকে নিজেই বলল, স্যার আজ মটর শাক নিয়ে যান। আমি ভাবলাম, এই মটর শাক অনেক দিন ধরে দেখে আসছি কিন্তু কেনা হয় নাই, আজ কিনেই ফেলি! দুই আটি পনর টাকা চাইলো, আমি বললাম, এক আটি দাও। আগে টেষ্ট করে দেখি, ভাল লাগলে আগামীতে কিনবো।

বাসায় ফিরে তোপের মুখে পড়ে পড়েও বেঁচে গেলাম! হা হা হা। মুখে হাসি দিয়ে বললাম, জীবনে মটর শাক খাই নাই, তাই খেয়ে দেখতে ইচ্ছা হল। তিনি আর কিছু বললেন না! আমি পোষাক বদল করে কাজে লেগে গেলাম!

মটর শাক, দেখে ভাল লাগে। আমি আমাদের সাধারণ সাক ভাজির মত ভাজবো বলে সিদান্ত নিলাম।

প্রয়োজনীয় পরিমান ও উপকরনঃ
– এক আটি মটর শাক (বাছার পর যা হয় হবে)
– একটা মাঝারি পেঁয়াজ কুঁচি
– কয়েক কোষ রসুন
– একটা কাঁচা মরিচ
– লবন (দুই চিমটি, লাগলে দেয়া যেতে পারে পরে)
– সয়াবিন তেল, চার/পাঁচ টেবিল চামচ

প্রনালীঃ

ভাল করে ধুয়ে নিলাম। (তবে শাক বাছার কাজটা করে দিয়েছেন আপনাদের ব্যাটারী আপা। সারা দিন ছেলে কোলে নেই নাই বলে, তিনি ছেলে কোলে দিয়ে বললেন, আমি শাক বেঁচে দিচ্ছি।) যাই হোক, শুধু কচি পাতাই নেয়া হল।


তেল গরম করে সামান্য লবন যোগে পেঁয়াজ কুঁচি, রসুন ছেঁচা এবং কাঁচা মরিচটা দিয়ে চুলায় ভাল করে ভেজে নিচ্ছি এবং ফাঁকে শাক ধুয়ে নিলাম।


শক ভাল করে ধুয়ে কুঁচি করে নিলাম।


কড়াইতে পেঁয়াজ হলদে হয়ে এলে শাক দিয়ে দিলাম।


আগুনের আঁচ মাধ্যম। এবং বার বার খুন্তি দিয়ে নাড়াতে থাকলাম।


মিনিট ৫/৭ এর মধ্যেই এমন হয়ে এল। এবার আরো আগুন বাড়িয়ে দিলাম। অনেকটা স্টার ফ্রাই এর আগুনের মত করে। ফাইন্যাল লবন দেখা হয়ে গেল। ব্যস।


পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।

গরম ভাতের সাথে খেতে বসছিলাম। তবে বুলেট, ব্যাটারী এবং আমার মনে হল এই শাক খাবার তেমন প্রয়োজন নেই। তেমন উল্লেখ করার মত স্বাদ নেই এই শাকে। বুলেট জানাল, এই শাক যারা বিক্রি করে তাদেরই নিশ্চয় খাবার অভিজ্ঞতা নেই, অভিজ্ঞতা থাকলে নিশ্চয় বিক্রি করত না!

আমি আমার অভিজ্ঞতার আলোকে দেখেছি, প্রায় যে কোন শাক এভাবে সাধারণ ভাবে ভাজলেই খাওয়া যায়। এই মটর শাকের ক্ষেত্রে দেখলাম ভিন্ন। এই শাক না খেলেও এক জীবনে কিছু যাবে আসবে না! হা হা হা।।

আপনাদের যদি এই মটর শাকের রান্না নিয়ে ভাল কোন অভিজ্ঞতা থাকে তবে শেয়ার করতে পারেন। তবে আমার মনে হয় না, আমি আবার কোনদিন এই মটর শাক কিনবো!

সবাইকে শুভেচ্ছা।

4 responses to “রেসিপিঃ মটর শাক ভাজি (সাধারণ)

  1. খাইনি কখনো।
    আমার মনে হয় শাকের মধ্যে সেরা হল পাট শাক আর লাউ শাক, বাজারে পাট শাক উঠলে একদিন বোম্বাই মরিচ আর খেসারী ডাল দিয়ে রান্না করে দেখবেন। আর লাউ শাক তো সবারই প্রিয়।

    শুভেচ্ছা

    Like

    • ধন্যবাদ ভাতিজা।
      পাট শাক দিয়ে খেসারী ডাল রান্নার অভিজ্ঞতা আমার আছে। আমার আম্মা এই রান্নাটা করতেন। আপনার কমেন্ট পড়ে মন হল। হ্যাঁ, বাজারে এখনো পাট শাক দেখছি না, পেলেই এবার রান্না করবো। তবে চাচা, বোম্বাই মরিচ আমি খুব ভয় পাই! আপনার চাচী অবশ্য এই রেসিপি পেলে ঝাঁপিয়ে রান্নায় লেগে যাবেন। বোম্বাই মরিচ তিনি আবার খুব পছন্দ করেন।

      লাউ শাক মাঝে মধ্যেই চলছে। কয়েকদিন আগেও খেলাম।

      শুভেচ্ছা।

      Like

      • ওটা ঝাল হবে নাতো!!! আপ্নি রান্নার মধ্যে আস্ত বোম্বাই মরিচ দিবেন, ভুলে ও কেটে বা ফেড়ে দিবেন না, এতে আসলে কি হয় শুধু ফ্লেভার আসে, ঝাল হয় না। ঘ্রাণ অ চমতকার হয়

        শুভেচ্ছা

        Like

  2. ei sak asole temon kono saad nai…sokto-khorkhore.
    tobe boro kono mach diye makha makha jhol rekhe ranna korle otota kharap lagena jotona sukna vaji korle lage.

    aaj ilish mach diye ranna korechilam. motamuti 🙂

    Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s