Gallery

রেসিপিঃ গোলা (যে কোন কিছু ভাজার জন্য, ইফতারের আইটেমের জন্য জরুরী)


আজ আপনাদের একটা আর্দশ গোলা বানানো দেখাবো। আপনারা চাইলে এই গোলা ব্যবহার করে বিকালের নাস্তার জন্য ইচ্ছানুযায়ী অনেক কিছু বানাতে পারেন। বাসায় শিশুরা প্রতিদিন একই নাস্তা খেতে চায় না, কিন্তু আপনি চাইলে একই গোলা ব্যবহার করে এক একদিন একেক প্রকারের নাস্তা বানিয়ে ওদের চমক লাগিয়ে দিতে পারেন। আলু, ফুলকপি, যে কোন পাতা, মাছ, চিকেন, ডিম বা আপনার পছন্দনুয়ায়ী যে কোন কিছু (যা ভাজার যোগ্য) আপনি এই গোলায় চুবিয়ে খুব সহজেই তা ভেজে নিতে পারেন। স্বাদ মনে রাখতেই হবে!

আগেই বলে রাখি, এই ধরনের গোলা আমরা আমরা পূর্বে আমাদের অনেকে ভাজাভূজিতে দেখিয়েছি। কিন্তু এই গোলার আলাদা পোষ্ট এই জন্য যে, সামনে আরো কিছু নাস্তার রেসিপি আসছে যা এই গোলা ব্যবহার করে বানানো হয়েছে। গোলাটার স্বাদ চমৎকার এবং একবার বানিয়ে ফ্রীজে রেখে দেয়া যায় বেশ কয়েক দিন। চলুন রেসিপিটা দেখে নেই।

প্রয়োজনীয় পরিমান ও উপকরনঃ (মোটামুটি এক লিটার বা তার কিছুটা কম)
– ময়দা, এক কাপ
– চালের গুড়া, এক কাপ
– ডিম, একটা
– চিনি, আধা চা চামচ
– মরিচের গুড়া বা গোল মরিচ গুড়া, এক চা চামচ (এটা ঝাল বুঝে দেবেন)
– ইষ্ট, এক চা চামচ
– লবন, পরিমান মত
– পানি, কুসুম গরম পানি, পরিমান মত
(ফরমুলাঃ মানসুরা হোসেন)

প্রনালীঃ

উপরে উল্লেখিত সব কিছু একটা বাটিতে নিন এবং ভাল করে মিশিয়ে নিন। কসুম গরম পানি দিয়ে আস্তে আস্তে মিশাতে থাকুন। গোলাটা এমন হবে যে, হাত দিয়ে তুলে নিলে আগুলের ফাক দিয়ে পড়ে যাবে। না বেশী ঘন, না বেশি তরল! গোলা বানিয়ে সামান্য আগুলে নিয়ে জিবে লাগিয়ে ফাইন্যাল লবন দেখুন, লবন সঠিক হল কি না নিশ্চিত করুন। এবার খোলা স্থানে ঘন্টা খানেকের জন্য রেখে দিন। ইষ্ট পরিপূর্ন হয়ে উঠবে। যে কোন কিছু ভাজার সময় আবার ভাল করে মিশিয়ে নিন।

নিন্মে দুটো স্যাম্পল ছবি তুলে দিলাম, যাদের রেসিপি আগামীতে আসছে।

ফিস ফ্রাই। গোলায় চুবিয়ে ডুবো তেলে ভাজুন।


ফিস ফ্রাই ফাইন্যাল। স্বাদ, সেরাম!


আলু ফ্রাই! গোলায় চুবিয়ে ডুবো তেলে ভাজুন।


আলু ফ্রাই ফাইন্যাল। স্বাদ সেরাম!

(রেসিপি গুলো আসছে!)

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

রেসিপি প্রিয় ভাই, বোন, বন্ধুদের শুভেচ্ছা।

10 responses to “রেসিপিঃ গোলা (যে কোন কিছু ভাজার জন্য, ইফতারের আইটেমের জন্য জরুরী)

  1. pls post your recipe immediately.

    Like

  2. vaia aj basaye ai gula ta deye potato fry korese awesome hoyese.sobai kheye bolesen wow

    Like

    • ধন্যবাদ বোন, আমিও আলুর ভেজিস দেখিয়ে দেব। আলুকে সামান্য লবনে সিদ্ধ করে খোসা ছড়িয়ে টুকরা করে নিয়ে এই গোলায় ডুবিয়ে ভাঁজলে মজাই মজা।

      শুনে খুব ভাল লাগল। আশা করি রান্না করে পরিবারের সবার ভালবাসা পাবেন। সবাই আপনার প্রশংসা করবেই। আরো অনেক রান্না আছে, দেখে দেখে যেটা ভাল লাগে শুরু করুন।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  3. ভাইয়া, সামান্য কিছু বেশন কি ব্যবহার করা যাবে?

    Like

  4. ভাইয়া “ইষ্ট” টা কি একটু বলবেন দয়া করে ।

    Like

    • ধন্যবাদ ব্রাদার। ইষ্ট হচ্ছে এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া যা খাবারকে ফুলাতে বা ফাফাতে সাহায্য করে কিন্তু দেহের কোন ক্ষতি করে না। কেক পেষ্টি রুটি সহ এই ধরনের সকল খাবারে এই ইষ্ট ব্যবহার করা হয়। বাজারে যে কোন গ্রোসারী দোকানে ইষ্ট পাওয়া যায়।

      দাম বেশি না, এক কোটা (শিশি)র দাম ৩০ টাকা, তবে ফয়েল প্যাকে কেজি হিসাবেও কেনা যায়।

      ধন্যবাদ।

      Like

  5. can i use bason instead of maida? or bason instead of chaler gura

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s