Gallery

রেসিপিঃ পাতলা ডাল ও বিলম্ভ লেবু


প্রতি বেলায় ডাল না থাকলে আমাদের অনেক বাংলাদেশী বাঙ্গালী, ভারতীয় বাঙ্গালী খাবার খেতে পারেন না। আমিও তেমন বাংলাদেশী! তবে বয়স বাড়ায় যেমন অনেক খাবার আর খেতে পারি না, ডাল ও আমার জন্য তেমন একটা আইটেম হয়ে পড়ছে! বয়স মানুষের জীবনে এমন একটা ব্যাপার যে, চাইলেই কেহ এটা এড়িয়ে যেতে পারে না! এই জীবনে দেশে বিদেশে খাবার নিয়ে কত চাপাবাজ(ভাল অর্থে) দেখলাম! সব খেয়ে ফেলবে ভাব ছিল তাদের, এখন অনেকের সাথে যোগাযোগ আছে, আর আগের মত খেতে পারে না! খাবার দেখলে পালিয়ে বাঁচে! হা হা হা… আসল কথা, একজন মানুষ যদি সারা জীবন একইভাবে খেয়ে যেতে পারত তবে এই দুনিয়া আর এই দুনিয়া থাকত না! খাবারের অভাবে অনেক মানুষ মারা যেত, শুধু টাকাওয়ালারাই খেতে পারত। উপরওয়ালার এটাও একটা খাদ্য বন্টন ব্যবস্থা!

যাই হোক, আমি এখনো পাতলা ডাল রান্না করি তবে আজকাল ডালের সাথে কিছু না কিছু দেই! মানে টক জাতীয় কিছু দিলে ডাল এখন আরো ভাল লাগে। কিছুদিন আগে জলপাই যোগে ডাল রান্না করে আপনাদের দেখিয়ে ছিলাম। আজ বিলম্ভ লেবু দিয়ে ডাল রান্না দেখুন, পুরানো রান্না, নুতন করে দেখা! বিলম্ভ লেবুর দিন আসছে সামনে!

ছবিঃ নেট থেকে নেয়া। আখাউড়া, ব্রামনবাড়ীয়া অঞ্চলে অনেক বাড়ীতেই এই বিলম্ভ লেবুর গাছ দেখা যায়। দেখতে বেশ আকর্ষনীয়। তবে শুনেছি এটা দিয়ে আঁচার ও তৈরী করা যায়।

উপকরনঃ
– হাফ কাপ মুশরী ঢাল
– কয়েকটা কাঁচা মরিচ
– এক চিমটি গুড়া হলুদ
– দুইটা পেঁয়াজ কুচি
– লবণ (পরিমাণ মত, শুরুতে সামান্য দিয়ে শুরু করুন)
– পানি (পনে এক লিটার)
– কিছু রসুন কুচি (বাগার দেয়ার জন্য)
– সামান্য তেল
– কয়েকটা বিলম্ভ লেবু (আপনি কেমন টক পছন্দ করেন, তা ভেবে দেবেন)

প্রনালীঃ

দেশি ডাল হলে ভাল, দেশি ডালের দাম শুনলে পালাতে ইচ্ছা হয়! ডাল ভাল করে ধুয়ে কিছুক্ষন পানিতে ভিজিয়ে তার পর চুলায় চড়ান, সামান্য লবন যোগে। মাঝারি আঁচে।*


ডাল সিদ্ব হয়ে গেলে এবার হলুদ, কাঁচা মরিচ এবং পেঁয়াজ কুঁচি দিন। *


আরো সিদ্ব হয়ে গেলে ঘুটনি নিন। *
(*উপরের তিনটে ছবি ও বর্ননা আগের এক পাতলা ডাল পোষ্ট/রেসিপি থেকে নেয়া হয়েছে)


এবার এমন একটা অবস্থায় এসে যাবে।


এবার বিলম্ভ লেবু দিন।


বিলম্ভ লেবুর পরিমান আপনি নিজেই নির্ধারন করুন। তবে বিলম্ভ লেবু দিয়ে বেশিক্ষন জ্বাল দেয়া চলে না।


এবার অন্য কড়াইতে সামান্য তেল দিয়ে রসুন কুঁচি ভাঁজুন। হলদে হয়ে গেলে তাতে ডাল ঢালুন।


সাবধানে এই কাজ করুন। সামান্য ভুলে ছিটা বা পড়ে গিয়ে আপনার শরীর জ্বলে যেতে পারে। রান্নায় সাবধানতা একটা বিরাট বিষয়।


দেখেই প্রান জুড়ায়!


ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন না লাগলে ওকে বলুন।


পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।


ভাতের সাথে বিলম্ভ লেবু মেখে খেতে অসাধারণ।

বিবাহের পর আমি এই বিলম্ভ লেবু দেখি এবং এটা যে এভাবে ডালের সাথে রান্না করে খাওয়া যায় তা জানতে পারি। আখাউড়ায় বিবাহ না করলে এটা হয়ত আমার জানা হত না!

বিবাহ মানব জীবনের শেষ অভিজ্ঞতা! সবাইকে শুভেচ্ছা।

5 responses to “রেসিপিঃ পাতলা ডাল ও বিলম্ভ লেবু

  1. চট্টগ্রামে একে বেলুম্বু বলে। আমার বাড়িতেও বেলুম্বু’র গাছ আছে। ছোটবেলায় ভাবতাম আহা আমাদের বেলুম্বু গাছটা যদি আঙ্গুর গাছ হত, এর কারন হল আমাদের গাছটায় একদম গোড়া/নীচে থেকে বেলুম্বু ধরতো থোকায় থোকায়, কিন্তু বেশি ক্ষার স্বাদ হওয়ায় আচার আর রান্না ছাড়া তেমন একটা খাওয়া হত না। আমার বাড়িতে বেলুম্বু তরকারিতে, গরু’র নলা (পায়া) ও আচার বানানোতে ব্যাবহৃত হয়। উদরাজী ভাইয়ের ভাইয়ে এই বেলুম্বু ডাল যে খেতে অতুলনীয় হবে সেটা তার ছবি দেখেই বলে দেয়া যায়।

    Like

  2. amader sylhet a bilumboo mach dia radha hoi…ota o khub mojar.

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s