Gallery

রেসিপিঃ গাঁজর পোলাউ (রেসিপি লাভার্সদের জন্য)


আমাদের রেসিপি ব্লগে অনেকেই বেশ সুন্দর সুন্দর মন্তব্য করছেন/করেন (ব্লগে, ফোনে, মেইলে বা ফেইসবুক ওয়ালে) এবং বিশেষ করে ফেইসবুকে যখন আমি আমার ওয়াল এ রেসিপির লিঙ্ক দেই তখন অনেকে মন্তব্য করেন। আপনাদের এই মন্তব্যের জন্য আমরা সব সময়েই কৃতজ্ঞ। মন্তব্য দিয়ে আপনারা আপনাদের বড় মনের পরিচয় দিচ্ছেন সব সময়ে এবং এতে আমরা আনন্দিত এবং আমাদের রেসিপি সাইটের সাফল্য ছড়িয়ে পড়ছে। দিনে গড়ে ৩০০ থেকে সাড়ে তিনশত আইপি থেকে প্রায় ১৪০০ বা তারও বেশী হিট (প্রায় ৬০০০ কমেন্টের কাছাকাছি আমরা পৌঁছে গেছি) এটা প্রমান করে, আপনারা আমাদের ভালবাসেন এবং আমাদের সাইট আপনাদের ভাল লাগে। আমাদের সামান্যতম প্রচেষ্টাও যদি আপনার কাজে লাগে তবে আমরা ধন্য।

; আমাদের প্রবাস জীবনে খাবার-দাবার এর ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি অবদান যার তিনি Shahadat Udraji। উনার ডেডিকেটেড রেসিপি দিয়েই আমাদের রান্নায় হাতে খড়ি। বলতে গেলে এই স্থূলকায় গোলগাল দেহ উনার রেসিপির অবদান। …………………… (উদ্রাজী ভাইকে অনেকদিন থেকেই ধন্যবাদ জানাব জানাব করেও জানানো হয়নি। এখানেই জানালাম। জয়তু উদ্রাজী ভাই। আমার বিশ্বাস আপনার রেসিপি পেয়ে আমাদের মত শত শত প্রবাসী উপকার পাচ্ছে।) – Md Nurunnabi

; আমিও আপনার রেসিপি দেখে অনেক রান্না শিখেছি। আপনাকে অনেক থ্যাংকু। – Ananna Farzana

; আমিও অনেক রান্না শিখেছি দাদা, আপনার ব্লগ থেকে… Parama Mitra

; apnar Muls sak r recipi dakha aj mula sakh kinlam…dakha jak kamon ranna hy….. Rahul Biswas

; গল্পের ছলে, যেভাবে রেসিপি লিখেন তা সত্যি ভূলবার নয়। আজকাল নতুন কিছু রান্না করতে ইচ্ছে করলেই আপনার ব্লগে ঢু মারি ………. নাম প্রকাশে অনিছুক

; জাযাকাল্লহু খাইরান, ভাই। বিদেশে পড়তে এসে, রান্না করে খেতে বাধ্য হচ্ছি। আল্লাহর অশেষ মেহেরবানী যে আল্লাহ আপানাকে এত সুন্দর এবং উপকারী একটা ব্লগ লেখার তাওফিক দিয়েছেন। আপনার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবেন। ধন্যবাদ। – রিজওয়ানুল ইসলাম (মেইল)

গত কয়েকদিনের কমেন্ট থেকে কয়েকটা কমেন্ট উঠিয়ে দিলাম। কমেন্ট করা আসলেই অনেক বড় মনের পরিচয়। ভার্চুয়াল জগতের সময়ে আমাদের যে সময় থাকে তাতে আমরা বলতে গেলে সারাক্ষণই নানান তথ্যে ব্যস্ত থাকি। যাই হোক, আমাদের রেসিপি প্রিয় পাঠক/পাঠিকা ভাই বোন বন্ধুদের আমরা সব সময়েই স্মরণ করি। আপনারা ভাল থাকুন এবং নিজের পছন্দের খাবার খান, এতে মনে আনন্দ লাগবে।

চলুন আজ একটা রেসিপি দেখিয়ে দেই। সাধারন পোলাউ নিয়ে বেশ কয়েকটা রেসিপি দেয়া আছে। পোলাউ আমাদের দেশের একটা প্রধান খাবার, মেহমান আসলে কিংবা ছুটির দিনে আমাদের বাসা বাড়িতে পোলাউ রান্না হয়েই থাকে। তবে আজকের পোলাউ আগের মতই, একটু গাঁজর যোগে এটাকে গাঁজর পোলাউ করা হয়েছে। মাঝে মাঝে এভাবে রান্নায় বৈচিত্র না আনলে আপনি রান্নায় নিজকে প্রকাশ করবেন কি করে? সব সময়ে এক খাবার এবং খাবারের একই রং দেখেতে দেখতে বিরক্ত এসে যেতে পারে (এই বিষয়ে গল্প আরো পরে বলি)। তাই কিছু ভিন্ন করতেই হবে।

প্রয়োজনীয় উপকরনঃ
– এক কেজি পোলাউ চাল
– এক কাপ গাঁজর কুঁচি (গ্রেড করে নিতে পারেন)
– পেঁয়াজ কুচি (হাফ কাপ বা কম)
– এক টেবিল চামচ আদা বাটা
– কয়েকটা এলাচি
– কয়েক পিস দারুচিনি
– কয়েকটা তেজপাতা
– কয়েকটা কিসমিস
– পরিমাণ মত লবণ
– কয়েকটা কাঁচা মরিচ
– হাফ কাপ তেল বা কিছু কম
– পরিমাণ মত পানি (যে কাপে চাল মাপা হয় সেই কাপের দ্বিগুন পানি মানে এক কাপের জন্য দুই কাপ পানি, লাগলে পরে দেয়া যেতে পারে)

প্রনালী ও বর্ননাঃ

কড়াইতে তেল গরম করে তাতে লবন যোগে সব মশলা দিয়ে ভাঁজতে থাকুন। পেঁয়াজের রং হলদে হয়ে এলে পোলাউ এর চাল (আগেই ধুয়ে পানি ঝরিয়ে রাখতে হবে) দিয়ে দিন।


মিনিট পাচেক চাল ভেঁজে নিন। আগুনের আঁচ মাধ্যম থাকবে।


এবার পানি দিন। পানি চালের উপরে এক ইঞ্চি থাকবে (পুরাতন হলে দেড় ইঞ্চি হতে হবে)। এটা অবশ্য রান্না করতে করতে মনে আন্দাজ চলে আসে। সমস্যা হলে মানে পানি কম হলে পরে দেয়া যেতে পারে, আবার পানি কিছু বেশি হলে ঢাকনা খুলে রাখতে পারা যায়। তবে কম হলে, সহজে ঠিক করা যায়।


এবার ফাইন্যাল লবন চেক করুন। মানে পোলাউএর পানি ‘কটা’ (পোলাউতে সামান্য লবন বেশী লাগে) হলে ধরে নিবেন লবন হয়েছে! (তবে খুব বেশী নয়) এবার ঢাকনা দিয়ে মাধ্যম আঁচে মিনিট ১০ রাখুন এবং মাঝে ঢাকনা খুলে নাড়িয়ে দেবেন।


ফাঁকে গাঁজর গ্রেড করে নিন (ইচ্ছা হলে আপনি হাতেও কুঁচি করে নিতে পারেন)।


এই রকম অবস্থায় দেখাবে। কিছুক্ষন পর পানি শুকিয়ে যাবে এবং পোলাউএর চাল নরম ও পুষ্ট হতে থাকবে।


গায়ে গায়ে পানি চলে এলে গাঁজর দিয়ে দিন।


ভাল করে মিশিয়ে দিন এবং আবারো ঢাকনা দিন।


চুলায় তাওয়া দিয়ে তার উপর পোলাউ পাতিল দিয়ে দম (এটা শহুরে দম!) দিন।


মাঝে আবারো নাড়িয়ে দিতে পারেন।


যদি দেখেন চাল শক্ত বা নরম হয় নাই তা হলে আবারো এক কাপ গরম পানি ছিটিয়ে দিতে পারেন। আর পানি যদি বেশি হয়ে যায় তবে ঢাকনা খুলে রাখুন।


ব্যস পোলাউ প্রস্তুত। পরিবেশনে কিছু বেরেস্তা ছিটিয়ে দিতে পারেন।

* অনেকে পোলাউ রান্না ভয় পেয়ে থাকেন, তিনি ভাবেন তার রান্না করা পোলাউ কখনো নরম, কখনো শক্ত থাকে। আসলে এটা একটা বুদ্দির ব্যাপার, আপনি যখন যে পরিস্থিতি দেখবেন, সেই মোতাবেক ব্যবস্থা নেবেন। নুতন ও পুরাতন চালে অনেক সময় এমন হতেই পারে। নুতন চালে জ্বাল কম লাগে, পানি কম লাগে। পুরাতনে পানি বেশি লাগে, জ্বালও বেশি দিতে হয়। তবে পোলাউ রান্না একটা অভিজ্ঞতা, এটা আপনি কয়েকবার রান্না করলেই ভাল পারবেন।

সবাইকে শুভেচ্ছা।

পূর্বের পোলাউ এর কয়েকটা রেসিপি দেখে নিতে পারেন।
১। রেসিপিঃ ছোলার পোলাউ
২। রেসিপিঃ মটর পোলাউ স্পেশাল
৩। রেসিপিঃ সাধারন পোলাউ রান্না
৪। রেসিপিঃ পোলাউ (বাবুর্চী স্টাইল)
৫। পোলাউ (সাধারণ রান্না)

** রেসিপিঃ বেরেস্তা (সকল স্বাদের কাজী)

10 responses to “রেসিপিঃ গাঁজর পোলাউ (রেসিপি লাভার্সদের জন্য)

  1. You are great Brother…… We love you.

    Like

  2. Amar ammu e,vabe ranna kore siter dine gajor er sathe fulkopi o dey, test valo I lage.

    Like

    • ধন্যবাদ বোন।
      এটা নুতন শুনলাম। পোলাউ এর সাথে ফুল কপি। তবে জেনেই মনে হচ্ছে স্বাদের হবেই।

      এবার শীতে রান্না করে দেখবো। বিশেষ কোন সর্তকতা থাকলে জানাবেন।

      আপনার আম্মার জন্য আমাদের শুভেচ্ছা। সময় থাকতে সব শিখে নিন।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  3. পোলাওতে গাজর দিলে দেখতে খুবই সুন্দর লাগে। একেবারে শিউলি ফুলের মত!

    Like

  4. apnar ai web side e akta youtube downloader er link dewa chilo but akhon pachi na.kindly bolben kothai pabo.

    Like

  5. নতুন না পুরান চাল বুঝব কিভাবে?

    Like

    • ধন্যবাদ আপনাকে।
      চাল কিনতে গেলে দোকানী নুতন না পুরাতন চাল সেটা বলেই বিক্রি করে থাকে। নুতন চালের দাম কিছুটা কম থাকে। এদিকে চাল দেখলেও কিছুটা বুঝা যায়। আমিও আগে দেখে চিনতাম না, এখন বুঝি কিছুটা। আর চাল দাঁতে চিবিয়ে নিলেও কিছুটা অনুমান করা যায়।

      শুভেচ্ছা।

      Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s