Gallery

রেসিপিঃ তরই (ঝিঙ্গা) ও ডিম


চলুন কথা পরে হবে আগে দেখে নিন, কিছুক্ষন আগেই এই রান্না করা হয়েছে। আপনি চাইলেও রান্না করতে পারেন। খুব একটা কঠিন কাজ নয়, যারা তরই বা ঝিঙ্গা দেখলে পালিয়ে যেতে চান তাদের জন্য এটা আমার ওপেন চ্যালেঞ্জ! একবার রান্না করে খেয়ে দেখতে পারেন, আশা করি তরই বা ঝিঙ্গার বিশেষ ভক্ত বনে যাবেন।

উপকরন ও প্রনালীঃ
ডিম ও তরই রান্নার জন্য প্রস্তুতকরণ-

ডিম সিদ্ব করে খোসা ছড়িয়ে নিয়ে কড়াইতে তেল গরম করে সামান্য লবন ও হলুদ মাখিয়ে একটু ভেঁজে উঠিয়ে নিন।


ডিম উঠিয়ে সেই তেলে তরই/ঝিংগা সামান্য লবন যোগে ভেঁজে উঠিয়ে নিন। (আমরা হাফ কেজি তরই নিয়েছিলাম)


ভেঁজে রাখার পর ডিম ও তরই।

মুল রান্না-

এবার উক্ত কড়াইয়ে কিছু পেঁয়াজ কুঁচি, এক চা চামচ রসুন বাটা এবং কয়েকটি কাঁচা মরিচ ভেঁজে নিন।


পেঁয়াজ গুলো নরম হলে হাফ কাপ পানি দিয়ে সামান্য হলুদ গুড়া এবং মরিচ গুড়া দিয়ে ঝোল বানিয়ে নিন।


ঝোল কষিয়ে তেল উপরে উঠে গেলে এবার হালকা ভেঁজে রাখা তরই দিয়ে দিন।


সামান্য পানি দিয়ে ভাল করে নেড়ে মাধ্যম আঁচে কিছুক্ষনের জন্য ডেকে রাখুন। এই পর্যায়ে হাফ চামচ চিনি ছিটিয়ে দিন।


মিনিট ১০শের মধ্য আশা করি এমন চেহারায় এসে যাবে। ঢাকনা উলটে কিছু ধনিয়া পাতার কুঁচি দিয়ে দিতে পারেন।


ধনিয়া কুঁচির পর এমন চেহারায় এসে যাবে। এবার ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন।


ব্যস হয়ে গেল তরই রান্না পর্ব।


এবার ডিমের সাথে পরিবেশনের পালা। সিদ্ব এবং ভেঁজে রাখা ডিম গুলোর প্রত্যেকটিকে কেটে দুইভাগে ভাগ করে পরিবেশন পাত্রে ফুলের আকারে বিছিয়ে দিন এবং সেই পাত্রে রান্না তরই ঢেলে দিন।


সাবধানে এই কাজটা করা দরকার!


ব্যস হয়ে গেল তরই ও ডিম রান্না। কি খেতে ইচ্ছা করছে কি!


রান্না করতে যত কৌশল প্রয়োগ করা হউক না কেন, খেতে কোন কৌশল লাগে না! মুখে পুরবেন আর সব সাবাড়! হা হা হা…

আজকের এই রান্না আমাদের এক প্রবাসী ফেইসবুক বন্ধু Shamsul Arefeen ভাইয়ের জন্য করা হল। তিনি এবং তার সহধর্মীনি প্রবাসে বসে আমাদের রেসিপি গুলো প্রায়ই দেখেন। গতকাল তিনি ফেইসবুকের মেসেজে লিখেছেন  “udraji vai motorshuti, alu, dim ache ghore, ekta receipe den na jhotpot plz”। এই প্রিয় বন্ধুদের জন্য কি রেসিপি লিখবো ভাবছিলাম! আমাদের ঘরে মটরশুঁটি, আলু নেই!

হা হা হা, তবে এই রেসিপি দেখে আমাদের এই বন্ধুরা নিশ্চয় তাদের ঘরে থাকা রান্নার সামগ্রী গুলো কাজে লাগাতে পারবেন।

ধন্যবাদ সবাইকে। ভাল থাকুন, আমাদের সাথেই থাকুন।

Advertisements

11 responses to “রেসিপিঃ তরই (ঝিঙ্গা) ও ডিম

  1. Eata amar kache experiment mony holo. Nice…. best wishes.

    Like

    • ধন্যবাদ কামাল ভাই, আপনি আমাদের এই রেসিপিটার মুল বক্তব্য ধরতে পারছেন বলে খুশি লাগছে। আসলে আপনার ঘরে যা আছে, তাই দিয়ে কিছু করার একটা চেষ্টাই দেখানো হয়েছে। প্রবাসী শামসুল ভাইয়ের বাসায় যা আছে তা দিয়ে কিছু করা যেতে পারে, এটা ভেবেই এই রান্না করা হয়েছে।

      রান্না যাই হোক, সুস্বাদু হলেই চলে এটাই এই রেসিপির পরীক্ষা। হা হা হা…

      শুভেচ্ছা।

      Like

  2. আইডিয়াটা ভালো লেগেছে… 🙂

    Like

    • ধন্যবাদ ব্রাদার (আপনার নামটা কোথায় দেখেছিলাম, মনে না রাখার জন্য দুঃখ প্রকাশ করছি, আশা করছি আর একবার মনে করিয়ে দেবেন)।

      আসলে ঘরে মাঝে মাঝে এমন অবস্থা দাঁড়ায় যে, কিছুতেই কম্বিনেশন হয় না। কিন্তু বসে থাকলে কি চলে? রান্নাতো করতেই হবে।

      শুভেচ্ছা। কেমন আছেন আপনারা? আপনাদের সংসারের জন্য শুভকামনা। ভাল ভাল খেয়ে কাটুক জীবন।

      Like

  3. ঝিঙ্গা দিয়ে ডিম আসলেই খুব ভালো লাগে। ঝিঙ্গা আমার প্রিয় সব্জী। গরমে ঠান্ডা তরকারী। ডিম ভেঙ্গে ফেটিয়ে ঝিঙ্গা নামানোর একটু আগে তরকারীতে ঢেকে দিয়ে একটু নেড়ে দিলেও খুব মজাদার তরকারী হয়।

    Like

  4. উদরাজী ভাই, আপনার এই রেসিপিটা ট্রাই করতে গিয়ে দেখি ডিম নাই 😦 তো, তাতে কী? একটু পরিবর্তন করে নিলাম। ডিমের বদলে ম্যকরেল মাছ দিয়ে দিলাম। আর একটা জিনিস করেছি – প্যনে তেল দিয়ে একটু কাঁচা জিরা দিয়ে ভেজে নিয়ে তারপর আর সব করেছি। যেসব মন্তব্য পেয়েছি, তার একটি হলো গিয়ে – ‘একেবারে মায়ের হাতের রান্না খেলাম!’ হাহাহা আমার হাতে মায়ের হাতের রান্না?! স্বপ্নেই সম্ভব! হা হা হা। আপনাদের বদৌলতে এই অনন্য প্রশংসা শুনতে পেয়েছি। ধন্যবাদ আপনাদের 🙂

    Like

    • হা হা হা…। এই তো উদাসীন ভাই। এটাই তো আমি চাই। একটা কাজের কাজ হয়েছে। এই রান্নার কথা শুনে অনেকে প্রথমে নাক শিটকাবে কিন্তু খেয়ে দেখলে তিনিই বেশী মজা পাবে।

      আপনার রান্না স্বাদ হবেই। ম্যকরেল মাছ চিন্তে পারছি না। এটা কি সামুদ্রিক মাছ। কিছটা অনুমান করতে পারছি মাত্র।

      রান্না হচ্ছে একটা ভালবাসা আর সেই ভালবাসায় আপনি জয়ী হয়েছেন।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  5. পিংব্যাকঃ এক নজরে সব পোষ্ট (https://udrajirannaghor.wordpress.com) | BD GOOD FOOD

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s