Gallery

রেসিপিঃ মুগ ডাল দিয়ে গরুর মাংস


বাংলাদেশে যে মাংস সহজে পাওয়া যায় তা হচ্ছে গরুর গোস্ত/মাংস। এক এক মানুষ জাতি গোষ্টীর কাছে এক এক খাবার বেশ প্রিয়, সে মতানুসারে গরুর গোসত বাঙ্গালী মুসলমানের কাছে বেশ প্রিয়। দেশি বিদেশী গরুর গোসত পেলেই হল! তবে এই দুনিয়াতে যে প্রানীটা আমাদের মানুষকুলের নানান সাহায্য এবং সর্বপরি মানুষের জন্য জীবন কোরবানী করে যায় সেই প্রানী হচ্ছে, গরু। গরুর কি না কাজে লাগে! গোবর, চামড়া থেকে শুরু করে মাংস, দুধ, হাড্ডি বলতে গেলে সব কিছুই কাজে লাগে। গরু দুধ না দিলে কত মানুষের সন্তান এই দুনিয়ার মুখ দেখতেই পারত না। গরু জমিতে নাগল না দিলে কত মানুষ না খেয়ে মরত! অথচ আমরা মানুষ্যকুল এই প্রানীকে কি কষ্টই না দিয়ে থাকি!

মানুষের মত এত নিষ্টুর প্রানী আর এই দুনিয়াতে নাই! তবে এটাও হচ্ছে মানুষের একটা গুন! হা হা হা…

যাক এত কথা বলে কি হবে! আমাদের মত চাপোষা (বস্তাবন্দী) মানুষ জন্মের পর থেকে যা দেখে এসেছে, যা খেয়ে এসেছি তাই আমাদের করতে হবে! না করে ভিন্ন পথে হাটলেই সমস্যা বাড়বে। তাই চলুন, আজ গরুর মাংসের একটা রেসিপি দেখি। মুগ ডাল হাইলাইটেড, মুগ ডাল দিয়ে গরুর গোসত। এই রান্না সাধারনত হোটেলে সকালের নাস্তার জন্য বানানো হয়। তবে মুগ ডালের সাথে খাসি বা ছাগলের গোসত বেশি চলে! একই প্রকারে সেই রান্নাও করে ফেলা যেতে পারে।

চলুন দেখে ফেলি।

পরিমান ও প্রনালীঃ

কেজি খানেক গরুর গোসত ভাল করে কেটে ধুয়ে নিন। যে হাড়িতে রান্না করবেন তাতে, এককাপ সয়াবিন তেল (বুঝে) নিয়ে তাতে গরুর গোসত ঢেলে দিন। এর পর এক টেবিল চামচ আদা বাটা, এক টেবিল চামচ রসুন বাটা, এক চিমটি জিরা গুড়া, ধনিয়া গুড়া (হাফ চামচ), হলুদ (এক চামচ), মরিচ (পরিমান মত, বেশী ঝাল খাবেন কিনা ভেবে দেখুন) দিন। সাথে পেঁয়াজ কুচি দিন। কয়েক টুকরা দারচিনি ও কয়েকটি এলাচ দিতে ভুলবেন না। লবণ আন্দাজ করে দিন। (পেঁয়াজ, দারুচিনি, এলাচি এবং লবন ছবিতে নেই)


ভাল করে মেখে নিন। পাতিলের উপর এক কাপ পানি দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন। হাতের মশলা অপচয় হবে না! পানিটাও কাজে লাগবে।


ব্যস মাধ্যম আঁচে চুলায় দিন। ঢাকনা দিতে হবে।


ঘন্টা খানেক পর এমন একটা অবস্থায় এসে যাবে। গোসত নরম না হলে আরো পানি দিতে পারেন। মাঝে মাঝে দেখে এবং উলটা পালটা করে দিতে ভুলবেন না। রান্না চুলায় ছড়িয়ে অন্য কাজে ব্যস্ত হয়ে যাওয়া চলে না।


এবার অন্য একটা কড়াইতে এক কাপ মুগ ডাল ভাঁজুন। লক্ষ রাখবেন  ডাল যেন পুড়ে না যায়। ভেঁজে পানিতে ধুয়ে রাখুন।


এবার সেই ডাল গোসতে দিয়ে দিন।


দেড় কাপ বা প্রয়োজনীয় পানি দিন এবং আবারো মাধ্যম আঁচে ঢাকনা দিয়ে মিনিট ২০ রাখুন।


এবার এমন অবস্থায় এলে ফাইন্যাল লবন দেখুন।


কয়েকটা কাঁচা মরিচ ছিটিয়ে নামিয়ে নিন।


ব্যস হয়ে গেল মুগ ডাল দিয়ে গোসত রান্না। পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।


পরোটা কিংবা আটা রুটির সাথে জমে বেশ।

সবাইকে শুভেচ্ছা।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

Advertisements

15 responses to “রেসিপিঃ মুগ ডাল দিয়ে গরুর মাংস

  1. চমৎকার হয়েছে । মনে হচ্ছে খেতে বসে পড়ি। লিখতে থাকুন। শুভ কামনা।

    Like

    • ধন্যবাদ আমিন ভাই। আমার রেসিপি ব্লগে আপনাকে স্বাগতম। আমিন ভাই, আসলে এই কয়েক বছরে নানান ব্লগে প্রায় হাজার খানেকের বেশি ব্লগ লিখেছি। রেসিপি বিষয়টা শেষে বেছে নিয়েছি, মনের তাগিদে। আমার নিজের রান্না শেখা দরকার ছিলো এবং উপকারী বিষয় হবে অনেকের জন্য এই ভেবে।

      প্রবাসী/ ব্যাচেলরদের কাছে এই রেসিপি ব্লগ বেশ জনপ্রিয়। দিনের পর দিন হিট বাড়ছেই। নেটে যে কোন বাংলা খাবারের নাম লিখে খুজলেই আমাকে পাওয়া যায়, এটাই বড় সাফল্য।

      যাই হোক, মাঝে মাঝে এসে দেখে যাবেন বলে আশা করি। ভাল থাকুন। আপনার একটা প্রিয় বাংলা খাবারের নাম বলে যান, আমরাও সেটা খেয়ে দেখি।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  2. ধন্যবাদ উদরাজী ভাই। আপনার ব্লগ সাইটটি আমার খুব ভালো লেগেছে। আমি আসলে একটু মাথা গরম প্রকৃতির ।তাই সমাজের অনাচার ও রানীতির মার-প্যাচকে সামনে পেলে আর কিছু না লিখে থাকতে পারিনা। এটা আমার নিজের কাছেও ভালো লাগেনা।

    জীবনে কোনদিন ছাত্র রাজনীতে জড়াইনি, রাজনীতি ভালো লাগেনা বলে। কিন্তু বিধিবাম, আজ রাজনীতির লেখা নিয়ে যে টুক সময় ব্যয় করি, তা সত্যিই বিরক্তকর।

    একটি সুন্দর উদ্যোগের জন্যে আপনাকে আবারোও ধন্যবাদ।
    বিভিন্ন জাতীয় দেশীয় ভর্তা (শুকনা ও পোড়া মরিচ ছাড়া, গ্যাস্ট্রিক তাই) ও গুড়া মাছের চর্চরি আমার খুব প্রিয় খাবার।

    Like

    • ধন্যবাদ আমিন ভাই। আমি সাড়ে নয় বছর প্রবাসী ছিলাম। আমি বুঝি আপনাদের মনের কথা। আসলে একটা সুন্দর দেশ আমরা চাই। আমরা চাই আমাদের দেশে কেহ না খেয়ে মরবে না, সবাই শিক্ষা পাবে, সবাই চিকিৎসা পাবে, সবাই ভাল থাকবে। না এটা এখনো স্বপ্নই থেকে গেল!

      তবুও আমরা আশায় আছি। ভাল থাকুন। মাঝে মাঝে দেখে যাবেন।

      Like

  3. yes, it is one of my favorite.

    Like

  4. খাসির গোস্ত মুগ ডাল বেশী খেয়েছি। হোটেলে এই আইটেম বেশী পাওয়া যেত।

    Like

  5. এই রেসিপিটা আপনার সাইটের নাম উল্লেখ না করে একটা জায়গায় ছাপানো হয়েছে দেখলাম ।
    http://dhakatimes.com.bd/2013/12/26/25871/recipes-meat-mung-bean/

    Like

    • ধন্যবাদ বোন। এই লোকদের কি বলবো বুঝে উঠি না। ওরা নিজেরাই অন্যকে কপি রাইট আইনের কথা বলে অথচ ওদের সাইটে দেখলেম সব চুরি করা জিনিষ। একবার একটা মেইল বা সামান্য একটা ফোন করার প্রয়োজনও বোধ করে না। আসলে এদের বিবেক বলে কিছু নেই। সামান্য নাম বা সাইটের কথাও বলতে ওদের লজ্জা লাগে অথচ চুরি করতে লজ্জা নেই।

      ধন্যবাদ ধরিয়ে দেবার জন্য। ওদেরকেও চুরির পেইজে নিয়ে আসছি। হা হা হা…

      Like

  6. পিংব্যাকঃ এক নজরে সব পোষ্ট (https://udrajirannaghor.wordpress.com) | BD GOOD FOOD

  7. আমি মশুরের ডালের চেয়ে মুগ ডাল বেশী প্রেফার করি, কারণ মুগ ডাল মশুরের ডালের মতো গ্যাস ট্রিকের সমস্যা তৈরী করে না। রেসিপিটা ভালো লেগেছে। 🙂

    Liked by 1 person

  8. আমি হিন্দু, কিন্তু গরু খাওয়া নিয়ে আমার কোনো ইস‍্যু নেই। গরু শুওর আমি দেদার খেয়েছি। আমার সমস্যা হল আপনার রেসিপিতে তেলের পরিমাণ : ১ কেজি মাঙসে ১কাপ (প্রায় ১৫০ মিলি) তেল !!! এই খেলে ফালতু চর্বি বাড়ানো আর হৃৎপিণ্ডর বারোটা বাজানো ছাড়া তো কোনো ফল নেই। তার চেয়ে দেখুন না, তেল না দিয়ে, দৈ-মশলা দিয়ে মেরিনেট করে কোনো রেসিপি তৈরী করতে পারেন কি না?

    Liked by 1 person

  9. শাহাদাত ভাই, মুগ ডাল দিয়ে মাছের মাথা রান্নার কোন পোষ্ট আছে?

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s