গ্যালারি

রেসিপিঃ ধনিয়া পাতার ভর্তা (সহজ ও সাধারন)


ধনিয়া পাতার তুলনা হয় না। যে কোন খাবারে/তরকারীতে রান্নার পর ধনিয়া পাতার কুচি দিলে সেই রান্নার স্বাদ কয়েকগুন বেড়ে যায়। ধনিয়া পাতার কত কি ব্যবহার যা বলে শেষ করা যাবে না। আমি রান্না শিখে ফেলার পর সুযোগ পেলেই বাজার থেকে ধনিয়া পাতা কিনে নিয়ে আসি। আজকাল বাজারে ধনিয়া পাতা মোটামুটি সস্তাই।

আজ দুপুরের রান্নার সময় আমার ব্যাটারী জানালেন, চল আজ সামান্য ভর্তার আয়োজন করি। আমরা আজ দুপুরে তিন পদের রান্না করেছিলাম। খাবার টেবিলে বসার সামান্য আগেই সিদ্বান্ত, এবং জটপট এই ভর্তার আয়োজন। আপনাদের না দেখিয়ে পারছি না। এই সামান্য ভর্তার কারনে চারটে ভাত বেশী খেতে পারছিলাম! চলুন, দেখে ফেলি।

উপকরণ ও প্রনালীঃ

সামান্য কয়েক ফোঁটা তেল যোগে কিছু পেঁয়াজ কুচি, কয়েকটা কাঁচা মরিচ, তিন চার কোয়া রসুন এবং সামান্য লবন যোগে ভাঁজতে থাকুন।


ভাজুন, পোড়া পোড়া ভাব নিয়ে আসুন।


এবার ধনিয়া পাতার আটি থেকে কিছু ধনিয়া পাতা (ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন আগে) দিয়ে আবারো ভাজুন।


খুন্তি দিয়ে ভেজে এমন করে ফেলুন।


এবার পাটাপুতায় বেঁটে ফেলুন।


ব্যস হয়ে গেল ধনিয়া পাতার ভর্তা। দুইজনের জন্য এর চেয়ে আর বেশী কি!


বিশ্বাস করুন, এতই মজার ভর্তা যে, খাবার শুরুর আগেই এক প্লেট শেষ! হা হা হা…। আজ দুপুরে মুরগী রান্না এবং লাউ রান্না ছিল (দুটোর রেসিপি আসছে, লাউ রান্নাটা আমাদের পাশের বাসার এক ভাবির ফর্মুলায় রান্না হয়েছিল এবং তাও বেশ মজার হয়েছে), সরু চালের সাথে আজকের সব কিছুই ছিল অসাধারন।


আজ আরো মজার ব্যাপার ছিল খাবার শেষে বগুড়ার দই। আমাদের এক বন্ধু (জিতু ভাই, যিনি অবশ্য আমার চাচা শশুরও বটে!) গতকাল রাতে বগুড়া থেকে ফিরে আমাদের এই দই দিয়ে গিয়েছিলেন। অনেকদিন পর বগুড়ার দই খেলাম! বগুড়ার দই কেন বিখ্যাত, না খেলে বুঝানো যাবে না! ইস, যদি বগুড়ার দইয়ের রেসিপি পেতাম!

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

Advertisements

18 responses to “রেসিপিঃ ধনিয়া পাতার ভর্তা (সহজ ও সাধারন)

  1. ভর্তা দেখেই তো জিভে জল আসে। কিন্তু পাটা পোতা তো নেই। হামান দিস্তাও নাই। ব্লেন্ডার দিয়ে কি হবে?

    Like

    • বোন, আপনার মেইল পেয়েছি। ধন্যবাদ এবং শুভেচ্ছা।
      এই মাত্র এই ভর্তা নিয়ে আমার ব্যাটারীর সাথে কথা হল। তিনি জানালেন, আপনি ব্লেন্ডারে করে দেখতে পারেন। তবে হাতে মেখেও দেখতে পারেন। দুবাইতে হামান দিস্তা নিশ্চয় পাওয়া যাবেই, দুলাভাইকে নিয়ে আজই মার্কেটে চলুন। হা হা হা।।

      ভর্তা প্রায়ই চালাতে পারেন। মুখে রুচি আসবে।

      ভাল থাকুন।

      Like

  2. রেসিপিতো ভাই মজারই। জিভে পানিও আসলো। ওজনের মেশিনটাই যা সমস্যা। যাক একদিন চোখ বন্ধ করেই খেয়ে ফেলবো বানিয়ে, ইনশা আল্লাহ। আচ্ছা, মাঝেমাঝে আমার উনার লাঞ্চপ্যকেও দেয়া যেতে পারে মনে হয়, না?

    Like

    • ধন্যবাদ আপা, কেমন আছেন? খেয়ে দেয়ে মোটা হয়ে যাচ্ছেন বুঝা যাচ্ছে। হাল্কা পাতলা ব্যায়াম কিংবা হাঁটার অভ্যাস করুন। হা হা হা…।।

      অফকোর্স আপনি দুলাভাইয়ের জন্য মাঝে মাঝে দিতে পারেন। নিঃসন্দেহে দুলাভাই খুশি হবেন। সাথে দুলাভাইয়ের কলিগগনও খুশি হবেন। অফিসের খাবার অনেকেই ভাগ করে কাড়াকাড়ি করে খান, এটা নিশ্চয় জানেন! হা হা হা।।

      শুভেচ্ছা নিন। আপা, মাঝে মাঝে এসে আমাদের দেখে যাবেন। খুশি হব।

      Like

  3. এটা আমার কুম্ভকর্ণের খুব প্রিয়। পুদিনা পাতা ভর্তাও তাকে করে দিতে হয়।

    Like

  4. O my god! One of the best ‘bhorta’ I have ever ate! Cilantro (dhone pata) was on sale – “buy one, get one free” at my local grocery store. I brought home two bunches. Used a little to cook dal. With the rest I made this ‘bhorta’. I was expecting a ‘chatni’ type of taste but what I actually tasted was absolutely different and delicious! Wow. I even told my amma about this bhorta and she said she will try it. I never thought I, who don’t know how to cook at all, shall ever teach my mother a recipe. Thank you very much from a ‘probashi’ in need of lot of help in cooking.

    Like

    • This is the 2nd time I made this recipe and it was absolutely amazing again. I am getting hooked to this ‘bhorta’. So fast and easy and tasty. Thanks again for the recipe.

      Shadman.

      Like

      • ধন্যবাদ বোন। কেমন আছেন? প্রবাসে দিনকাল কেমন কাটাচ্ছেন।
        ভর্তা মনে ধরার জন্য খুশি লাগছে। ভর্তা না হলে অনেকেই খেতে পারেন না। মাঝে মাঝেই আমরাও ভর্তা করি।

        আপনার আম্মাকে এই ভর্তার রেসিপি বলার জন্য আরো ভাল লাগছে।

        শুভেচ্ছা। কবে দেশে ফিরছেন?

        Like

  5. আহ… জ্বিবে জল এসে গেল !

    Like

  6. Bogurer doi amader balo lage!

    Like

  7. please remove all photo , because ” Jibe pani ase jai ”

    Like

  8. এইমাত্র পেটপুরে খিচুড়ি দিয়ে আপনার ভর্তা খেয়ে উঠলাম। খাবার টেবিলেই মিসেস মাহ্‌মুদকে বললাম, “ওই ব্লগার ভাইটাকে ধন্যবাদ দেয়া দরকার!” অনেক তুষ্ট হলাম ভাই, অনেক ধন্যবাদ এবং শুভকামনা রইল।

    Like

    • ধন্যবাদ মাহমুদ ভাই।
      আপনার কমেন্ট পড়ে আমরা খুব খুশি হলাম। আমাদের রেসিপি দেখে কেহ কিছু ভাবছেন এটাই আমাদের জন্য ভাল্লাগা। আপনারা আমাদের রান্না টেষ্ট করছেন এটা আমাদের জন্য গর্বের। মিসেস মাহমুদ ভাবীকে আমাদের তরফ থেকে প্রানঢালা শুভেচ্ছা।
      আপনারা ভাল থাকুন।

      Like

  9. পিংব্যাকঃ এক নজরে সব পোষ্ট (https://udrajirannaghor.wordpress.com) | BD GOOD FOOD

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s