Gallery

রেসিপিঃ চিকেন ফ্রাইড রাইস উইথ মিক্স ভেজিটেবলস এন্ড এগ


দেশের এই পরিস্থিতির জন্য রেসিপি দিতে মন চাইছে না। নিজের অনুভূতি ও মনের অবস্থার কথা ইতিমধ্যেই লিখে ফেলেছি। কিন্তু যতই কান্ড ঘটুক, পেট কিছুই মানবে না। পেটে দিতেই হবে! দুনিয়াতে খাওয়ার জন্যই মানুষ এত কিছু করে! দুই দিনের দুনিয়া!

আজকের এই রেসিপিটাও আমার নুতন ছোট বোনের জন্য, যার বিবাহ হয়েছে কিছুদিন আগে এবং এখন তিনি শশুরবাড়ীতে মাঝে মাঝে রান্না করছেন। তিনি ফোনে আমাদের কাছে দুটো রেসিপি চেয়েছিলেন, একটা হচ্ছে জর্দ্দা এবং অন্যটা হচ্ছে ফ্রাইড রাইস। জর্দ্দার রেসিপি দেয়া হয়েছে, আজ ফ্রাইড রাইস এর রেসিপি! তবে ফ্রাইড রাইস রান্না করতে গিয়ে আমরা একটু আইটেম বাড়িয়ে দিয়েছি, যাতে করে তিনি  নিজে রান্না করার সময় ইচ্ছানুযায়ী উপকরন বাড়িয়ে কমিয়ে রান্না করতে পারে। চলুন দেখে ফেলি, চিকেন ফ্রাইড রাইস উইথ মিক্স ভেজিটেবলস এন্ড এগ। মানে আমরা চাইনিজ হোটেলে যে ধরনের ফ্রাইড রাইস (দোকানীরা পরিমান এদিক সেদিক করেই নানান নাম দিয়ে দেন) খেয়ে থাকি, সেই রকমই!

আর দেরী কি? স্টেপস একটু বেশী হলেও একবার সব ঘুচিয়ে নিলে সময় বেশী লাগে না। হোটেল, রেস্টুরেন্ট এ সকালেই (প্রথমেই) এই কাজ গুলো সারিয়ে নেয়, যখন ওয়ার্ডার আসে, সেই মোতাবেক পরিমান নিয়ে রান্না করে দেন। কম মানুষের জন্য রান্না হলে ঘরেও খাবার সময়েই রান্না করা যেতে পারে।

উপকরণঃ
– পোলাউ চাল ৭৫০ গ্রাম (মোটামুটি ৬ জন খেতে পারবে এমন)
– মিক্স ভেজিটেবল, পরিমান মত (তিন পদের নিয়েছিলাম, বাঁধাকপি, ক্যাপ্সিকাম, গাঁজর)
– হাফ কাপ মুরগীর গোসত (হাড় ছাড়া)
– তিনটে ডিম
– পেয়াজ কুচি হাফ কাপ
– কাচা মরিচ কয়েকটা
– আদা বাটা বা চেঁচা, ১ টেবিল চামচ
– লবন
– তেল এক কাপের কম
– এক চামচ ঘি (থাকলে ভাল, না থাকলে নাই)
– সয়াসস, ৫ টেবিল চামচ
– ওয়েষ্টার সস, ৫ টেবিল চামচ
– টেমেটো সস, ৫ টেবিল চামচ
– চিনি, এক চা চামচ
– পানি

প্রনালীঃ
ধাপ ১ – হাতের কাছে সব যোগাড় করে ফেলা

– সয়াসস, ৫ টেবিল চামচ,
– ওয়েষ্টার সস, ৫ টেবিল চামচ
– টেমেটো সস, ৫ টেবিল চামচ
– চিনি, এক চা চামচ
মিশিয়ে এক বাটি মিক্স সস বানিয়ে ফেলুন। সয়া সসে লবন থাকে সেজন্য পরবর্তিতে লবন ব্যবহারে সর্তক হতে হবে।


মুরগীর গোসত জুলিয়ান কাট কাটুন। পরিস্কার করে বাটিতে কয়েক চামচ মিক্স সসে মাখিয়ে রাখুন। ডিম ভেঙ্গে ফাটিয়ে নিন। কাঁচা মরিচ লম্বালম্বি করে কাটুন।


সবজি গুলো এভাবে কাটতে পারেন। গাঁজরকে সিদ্ব করে নরম করে নিন। অন্য সবজি সিদ্ব করার দরকার নেই।

ধাপ ২ – চাউল রান্না করে ফেলা 

চাউল পানিতে সামান্য লবন যোগে সিদ্ব করে ফুটিয়ে নিন। বেশি নরমও নয়, আবার বেশী সিদ্বও নয়!


ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে চাউল গুলো ঝরঝরে করে ফেলুন এবং পানি ঝরিয়ে রেখে দিন।

ধাপ ৩ – ডিমের ঝুরি বানিয়ে ফেলা 

তেল গরম করে কয়েকটা কাঁচা মরিচ যোগে ডিম গুলোর ঝুরি বানিয়ে ফেলুন।


খুন্তি দিয়ে গুড়া গুড়া করে ফেলবেন। লক্ষ্য রাখবেন যেন ঝর ঝরে হয়ে যায়।

ধাপ ৪ – মুল রান্না

এবার মুল রান্নার জন্য কড়াইতে তেল গরম করুন, এক চামচ ঘি দিতে পারেন। প্রথমে তেল গরম হয়ে গেলে এক চিমটি লবন যোগে পেয়াজ কুচি ও আদা বাটা ভাজুন এবং চিকেন গুলো দিয়েও ভেজে নিন। কয়েকটা কাঁচা মরিচ দিয়ে দিতে পারেন। চিকেন সিদ্ব হয়ে চমৎকার রং ধরে যাবে।


এবার ধীরে ধীরে সবজি দিতে থাকুন এবং ভাজুন।


সব সবজি দিয়ে দিন।


সবজি গুলো সিদ্ব হয়ে এমন মোলায়েম রং ধরে যাবে। ঝাল চাইলে আরো কাঁচা মরিচ দিতে পারেন।


এবার পানি ঝরিয়ে রাখা চাউল ছিটিয়ে দিন। মিক্স করতে থাকুন।


বাটিতে থাকা কয়েক চামচ মিক্স সসেস দিন এবং নাড়ুন।


আবারো কিছু চাউল দিন।


বাকী মিক্স সসেস দিয়ে দিন। এভাবে চাউল এবং সসেস দেয়ার কারন হচ্ছে যাতে সব ভাল করে মিক্স হয়।


খুন্তি দিয়ে নাড়িয়ে এমন একটা অবস্থায় এসে যাবে।


চাউল দেখে নিন। এবার ডিমের ঝুরি (যা আগে করে রাখা হয়েছিল) দিয়ে দিন। এবং নাড়ান।


এই তো হয়ে গেল! ফাইন্যাল লবন দেখুন, লাগলে দিন না লাগলে ওকে বলুন।


পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।


ছোট সোনামনিদের জন্য এভাবে পরিবেশন করুন। ওরা আনন্দ পাবে।


সাথে চিকেন ফ্রাই কিংবা ঝোল জাতীয় কোন সসেস মুরগী রান্না করতে পারেন। আরো কিছু করলেও ক্ষতি নেই! আপনার কিংবা আপনার প্রিয়জনদের পেটেই যাবে সব কিছু!


ছবি দেখে ভয়ের কোন কারন নেই। সহজ রান্না। আমরা একটু বেশি রান্না করেছিলাম বলে কিছু স্টেপ বেড়েছে। দুই একবার দেখে নিন, হাতের কাছে সব ঘুছিয়ে নিলে কোন ব্যাপারই নয়!

ফ্রাইড রাইস, এগ রাইস, ভেজিটেবল রাইস, মিক্স ফ্রাইড রাইস, আপনি নামে যাই বলুন না কেন, একটু মালমসলা কমিয়ে/বাড়িয়ে আপনিও রান্না করতে পারেন।

সবাইকে শুভেচ্ছা। সবাই ভাল থাকুন, আনন্দে কাটুক আমাদের সবার জীবন। দেশটা আনন্দে ভরে উঠুক।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

রেসিপিঃ ভেজিটেবল রাইস (সাধারন)

(Updated from Photobucket to Google)

Advertisements

50 responses to “রেসিপিঃ চিকেন ফ্রাইড রাইস উইথ মিক্স ভেজিটেবলস এন্ড এগ

  1. ওয়াও দেখেই তো জিভে জল এসে গেল। এটা রান্না করতেই হবে। আমার নিজের ও কয়েকদিন ধরে ফ্রাইড রাইস খেতে ইচ্ছে করছিল। এখন আর বাহিরে গিয়ে না খেয়ে বাসায় রান্না করা যাবে। এটা আমার নেক্সট ফ্রাইডে টার্গেট। ধন্যবাদ তো আপনাদের পাওনা।

    Liked by 1 person

    • ধন্যবাদ বোন। আমাদের সবার ঘরের রান্নাই খাওয়া উচিত। এর চেয়ে আর মজার কি হতে পারে? পেট পুরে খেয়েই ঘুম! আহ…।। হা, তেমন কঠিন রান্না নয়। দুই তিনজনের জন্য রান্না করলে নিমিষেই করে ফেলা যাবে!

      আশা করি আপনাদের সময় আনন্দে কাটবে, কাটুক। ফ্রাই ডে তে ফ্রাইড রাইস উইথ ফ্রাইড চিকেন। চলুক।

      আপনারা ভাল থাকুন। সময় পেলে অভিজ্ঞতার কথাটা জানাবেন এই ভাইকে, নুতন কোন গল্প বুনতে পারব হয়ত।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  2. আমি পোলাও খাইনা, কিন্তু ফ্রাইড রাইস পছন্দ করি। তাই অনেক সময় রাতের ভাত সকালে এভাবে ফ্রাই করে খেয়ে ফেলি। আর অতিরিক্ত টাকা খরচ করে চাইনিজ হোটেলে না গিয়ে ঘরেই ফ্রাইড রাইস, ভেজিটেবল, চিকেন ফ্রাই বানিয়ে নিলে খরচ অনেক কম হয় আর পুরো পরিবারের সবাই তৃপ্তি করে খেতে পারে।

    রান্নাতো ভাই আমি ফ্রাইড রাইসে রসুন কুচি দেই।

    Like

    • ধন্যবাদ রান্নাতো বোন। আপনার কমেন্ট না পেলে ভাল লাগে না। ভাগিনাকে এবার বলুন একদিন ফ্রাইড রাইস রান্না করতে। সবাই মিলে খেয়ে দেখি, ভাগিনা আমার মামার মত রান্না শিখতে পারল কি না! হা হা হা…

      ধন্যবাদ আপা, আমি আসলে এই ধরনের রান্নার চেয়ে ডাল ভাত বেশি পছন্দ করি! হা হা হা, আসলে যুদ্বে যাবার সময় আর আমার নেই! হা, আপা আপনি ঠিক বলেছেন। আমি আর একটু যোগ করতে চাই মাত্র।

      ঘরে এই ধরনের রান্না মাঝে মাঝে করলে, শিশুরা খুশি হয় এবং এই ধরনের রান্না যে শুধু হোটেলেই পাওয়া যায় তার ভুল ধারনা ভেঙ্গে যায়। শিশুদের মনেও মায়ের বা বাবার (হা হা হা, সব বাবারা আবার পারে না!) জন্য মায়া জন্মে। যে বাবা মা শিশুদের শুধু হোটেলে নিয়েই খাবার খাওয়ায় শেষ যখন কোন সমস্যায় পড়ে তখন শিশুরা আর বুঝতে চায় না। ঘরের খাবার শরীরের জন্য ভাল এটা ওদের বুঝতে দিতে হবে। আর দামের কথা! ছোট এক প্লেট ফ্রাইড রাইসের দাম কমের পক্ষে ৩৭৫ টাকা, যা তিন জনের কোন মতে হয়! হা হা হা।।

      আপা, আপন ভাল থাকুন। আবার রান্না করতে রসুন দিয়ে দেখব। শুভেচ্ছা।

      Like

  3. দেখেইতো জল গড়িয়ে পড়ার দশা!!
    আজ একটা কথা বলে যেতে চাই— “বেঁচে থাক উদরাজী ভাই, বেঁচে থাক তার রান্না চিরকাল”
    এছাড়া আর কিছুই বলার আছে বলে মনে হয়না।

    Like

  4. দেখতে চমৎকার হয়েছে! আমিও ফ্রাইড রাইস খুব পছন্দ করি, অনেক বার বানিয়েছি এটা। আপনি এই রেসিপিটা যদি ১ বেলা বা ১ দিনের পুরোনো ভাত দিয়ে করেন, তাহলে খেতে আরো সুস্বাদু হবে, আর ভাতের দানাগুলিও খুব ঝরঝরে হবে।
    শুভেচ্ছা।

    Like

    • ধন্যবাদ রনি ভাই।
      হা, আমি ইংল্যান্ডে থাকার সময় বেশ কিছু হোটেলের পিছনে দেখেছিলাম (তখন রান্না জানতাম না, এখন হলে বিরাট কিছু হয়ে যেত!) তারা সরু চাল রান্না করে ফ্রীজে রেখে দিত। কাষ্টমার চাইলেই সেখান থেকে বের করে, কড়াইতে চড়াত। এখন বুঝি, ফ্রাইড রাইস কাকে বলে?

      আমি আবার সাধারন ভাতেই বিশ্বাসী! হা হা হা…

      কেমন আছেন? কেমন কাটাচ্ছেন দিন কাল? নুতন কি কি রান্না করলেন!

      ভাল থাকুন।

      Like

  5. জুলিয়ান কাটটা কেমন তা তো দেখলাম না।আর ডিমের এত ঝুরি-মুরি করা দরকার কি?প্রথমেই তেলে দিয়ে নেড়ে নিলেই ত হবে।
    অত আইটেম!বেশি আইটেম,বেশি মজা আর কম আইটেম(সহজ করে ফেলতে পারব)!
    আপনি যে ছবি দিয়ে দেন,তাতে ভিনদেশীদের ও সুবিধা,তাই না?তারা ভাষা না বুঝলেও ছবি দেখে সবি বুঝে নিবে।
    মনে হয় জয়নুল বলেছ

    Like

    • ধন্যবাদ বোন। জুলিয়ান কাট হচ্ছে লম্বাটে করে কাটা। রান্নায় লিছু শব্দ ব্যবহার হয় এটাও তেমন। ভাবছি শব্দ নিয়ে একটা সেকশন গড়ে তুলবো। হা, এখানে বেশী আইটেম দেয়া হয়েছে ইচ্ছা করেই। লেখা পড়লে বুঝতে পারবেন, আমাদের উদ্দেশ্য হচ্ছে দেখিয়ে দেয়া।

      মানসুরা হোসেন হচ্ছেন আমার স্ত্রী, উনাকে নেটে আমি ব্যাটারী বলে থাকি। যে সকল রান্না তিনি করেন এবং আমি হেল্পার হিসাবে থাকি, সেই সব রান্নাতে উনাকে স্মরন করা হয়। আর সে সকল রান্না আমি নিজে করি, তাতে উনার নাম থাকে না। তবে আমি রান্না শিখেছে উনার কাছ থেকেই। আমাদের আগের রান্না গুলোতে সে কথা লিখা আছে। এখন প্রায় সব কিছু আমি নিজে রান্না করতে পারি।

      শুভেচ্ছা। আশা করি মাঝে মাঝে দেখে যাবেন।

      Like

    • Vaiya apnar page er shob update pete ki korte hobe

      Liked by 1 person

  6. মনে হয় জয়নুল বলেছিলেন,ছবি হল সর্বজনীন ভাষা।
    ইয়ে,মানসুরা হোসেনের কাছে আপনি কৃতজ্ঞ কেন,বুঝলাম না।
    একটা ছবি রেখে দিলাম সেভ করে,পরে ব্যবহার করার জন্য।

    Like

  7. ধন্যবাদ প্রলয় হাসান ভাই। (তিনি এই রেসিপিটা ফেইসবুকে রেখেছেন)
    https://www.facebook.com/groups/Foodography1/permalink/251887811619853/

    Like

  8. viea, onak thanks ato easy koray ai recipe ta dayer jonno. many many thanks to u and mansura apa.

    Like

    • ধন্যবাদ বোন,
      আপনারা পছন্দ করেন বলেই আমরা নুতন নুতন রেসিপি দেয়ার সাহস পাচ্ছি। আমাদের চেষ্টা থাকে সহজ করে রেসিপি দেয়ার এবং যাতে করে সবাই সহজে বুঝতে পারেন। বিশেষ করে নূতনরা যাতে ছবি দেখেই বুঝতে পারেন, সেই দিকে আমরা বিশেষ নজর দিয়ে থাকি।

      আপনাদের বিশেষ ধন্যবাদ এইজন্য যে, আপনারা কষ্ট করে আমাদের রেসিপি গুলো দেখে যাচ্ছেন এবং কমেন্ট করছেন।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  9. ফাতেমা আক্তার মাইমুনা

    আমি এই পোস্টের ছবিগুলা দেখতে পারছিনা কিভাবে দেখতে পারব দয়া করে জানাবেন

    Like

  10. অসংখ্য ধন্যবাদ এরকম উপকারী একটা লেখা দেয়ার জন্য। আমি এখনই কপি করে প্রিন্ট করে আম্মুকে দিচ্ছি রান্না করে খাওয়ানোর জন্য।

    Like

    • ধন্যবাদ নাহিদ ভাই।
      রান্না আসলে একটা ভালবাসা। কিছু রান্না একটু জটিল তবে সবই চলছে। আশা করি আপনার আম্মা দেখেই বুঝে যাবেন আর ঘরে তো প্রায় সব কিছুই আছে। আপনাদের সময় সুন্দর কাটুক। আপনার আম্মাকে আমাদের সালাম দিবেন।

      আপনিও মাঝে মাঝেও রান্নাঘরে যাবেন বলে আশা করছি। রান্না জানাটা একটা ভাল গুন, এই গুন থাকলে অন্যের ভালবাসা পাওয়া যায়। হা হা হা।।

      শুভেচ্ছা।

      Like

    • ধন্যবাদ বোন।
      আশা ও দোয়া থাকল। অবশ্যই আমাদের চেয়েও ভাল হবে। রান্না শেষে পরিবেশন আপনার ইচ্ছানুযায়ী সাজিয়ে করবেন। আর যারা খাবে তাদের পাতের দিকে লক্ষ রাখবেন। হা হা হা… খাওয়া দেখেই বুঝা যায় কেমন রান্না হল।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  11. Vaia ami kono rannai partam na. Apnar ranna dekhe shikhar por amar naam khub famous hoye hese shoshur barite. Thanks.

    Like

    • ধন্যবাদ বোন।
      আপনার কমেন্ট দেখে মনে হল, আমার প্রচেষ্টা সার্থক। আমি যাদের জন্য লিখি তারাই হচ্ছে আপনারা। আমি প্রতিটা রেসিপিতে সময় দেই শুধু আপনাদের জন্য। আপনারা যখন রান্না করে প্রিয়জনদের মুখে হাসি ফুটাবেন তখনই আমি ভাবব, আমি জয় যুক্ত হয়েছি। হা হা হা।

      রান্না একাটা ভালবাসা এটা আপনি আবার প্রমান করলেন।

      শুভেচ্ছা নিন। মাঝে মাঝে কোন পোষ্টে নিজের কিছু অভিজ্ঞতা লিখে যাবেন। এতে হয়ত অন্যরাও জানতে পারবে।

      Like

  12. Ei prothom apnar rannar রেসিপি porlam . Fried rice khete icche korlo….google e search marlam…vaggo amar khub valo bolte hobe…peye gelam apnar ei page ta….eibar amake ar ke atkay….ajkei office theke basay jeye mere dibo…..Cant waitttt…

    Liked by 1 person

  13. পিংব্যাকঃ এক নজরে সব পোষ্ট (https://udrajirannaghor.wordpress.com) | BD GOOD FOOD

  14. অনেক ভালো লাগলো।

    Like

  15. ভাইয়া, শেষের দিকে লেমন গ্রাস আর লেটুস পাতা দিলে অনেক মজা হয়। 🙂 রেবেকা।

    Liked by 1 person

  16. bangla likhte parchina bole sorry. ekta chotto tips. bhat gulu age ranna kore freez e rekhe dile khub jhor jhora hobe.

    Liked by 1 person

  17. আমাদের নবী ভাই আজ এই রান্না করেছেন। লিঙ্ক দেখুনঃ https://www.facebook.com/nur.dulal/posts/10203726324346626

    Like

  18. আপনার রান্না সহজ কিন্তু দেখতে পচা…।

    Liked by 1 person

    • ধন্যবাদ বোন। আপনার কমেন্ট আমাদের অনুপ্রাণিত করলো। হ্যাঁ, আমি রান্না পরিবেশনে গুরুত্ব দেই না। তাছাড়া সীমিত পরিসরে কাজ করি বলে সাজিয়ে ঘুচিয়ে খাদ্য পরিবেশন করি না, সময়ের কথাও মাথায় রাখতে হয়। এত ফ্যাশনেবল পরিবেশনায় গেলে এত গুলো রেসিপি লিখে ফেলা সহজ ব্যাপার হত না! অন্য দিকে, আমার কাছে তেমন ভাল কোন ক্যামেরা নেই, যাতে খাদ্যের ছবি দৃষ্টি নন্দন করে তোলা যায়। সাধারনত আমি মোবাইলেই ছবি তুলি, কোন এডিট ছাড়াই সেটা পোস্টে দিয়ে দেই। কাজেই দেখতে পচা হতেই পারে। শুভেচ্ছা আপনাকে।

      Like

  19. So simple …but magic work
    I appreciate ….. ❤

    Liked by 1 person

  20. ভালো লাগসে অনেক। আম্মু এই রেসিপি দিয়ে রান্না করে খাওয়াইছিলো। থ্যাংক্স অনেকগুলা

    Liked by 1 person

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s