গ্যালারি

রেসিপিঃ মশলাদার আলু সিম ভাজি (ব্যাটারী স্টাইল)


কথা বললে অনেক কিছু বলতে হয়, আবার না বললে নাই! আর কথা না বলে অনেক সময় পার পাওয়াও বেশ মুস্কিল। কথা আপনাকে মুক্তি দেবে, কথা আপনাকে বিচারকের সামনে কাঠঘরে দাঁড়াও করিয়ে দেবে। ভুল কথার জন্য কত মানুষ কত সমস্যায় পড়েছে তার হিসাব কে রাখে!  আর কথা না বলেও কত মানুষ কত অত্যাচার সহ্য করেছে! সবই দুনিয়ার খেলা!

তবে যে যাই বলুন, কথা সব সময়েই পরিমিত হলে ভাল এবং যা বলবেন তাতে যুক্তি থাকতে হবে। বেশি কথা বলে ‘বাছাল’ উপাদি পাওয়া অপেক্ষা শান্ত থাকাই মঙ্গল। আমি অবশ্য কথার চেয়ে কাজ বেশি পছন্দ করি। কাজের ফাঁকে কথা চলতে থাকে!

হা, যা বলছিলাম। ভাজি নিয়ে কথা বলছিলাম আমরা দুজন। নানান পদের ভাজি নিয়ে বেশ কথা চলছিলো। একই জিনিষ কতভাবে ভাজা যায়। (অবশ্য প্রতিটা রান্নাই ইউনিক!) একই ভাজি সকালের নাস্তা হলে এক রকম আর দুপুরের খাবারের সাথে হলে অন্য রকম! সকালে নাস্তার সাথে যে ভাজি রান্না হয় তাতে মশলা বেশি হলে যিনি খাবেন তার সমস্যা হতে পারে। অন্যদিকে দুপুর কিংবা রাতে খাবারের সময় মশলাপাতি না হলে খেতে ভাল লাগবে না! আলু সিম ভাজি এর আগেও আপনাদের দেখিয়েছি।

চলুন আর একবার দেখে নেই, ব্যাটারী স্টাইলে! (যারা আমার ব্যাটারীকে চিনেন না, তাদের আমার কিছু বলার নেই! হা হা হা)

উপকরনঃ
– সিমঃ ২৫০ গ্রাম (চার জনের জন্য রান্না)
– নুতন আলুঃ ২০০ গ্রাম (পাল্লা পাথর নিয়ে না বসলেও চলবে!)
– পেঁয়াজ কুচিঃ ১/২ কাপ
– আদা বাটাঃ ১ চা চামচ
– জিরা আস্তঃ ১ চিমটি
– হলুদ গুড়াঃ ১/২ চা চামচ
– মরিচ গুড়াঃ ১/২ চা চামচ (ঝাল বুঝে)
– কাঁচা মরিচঃ ৪/৫ টা
– লবনঃ পরিমান মত
– তেলঃ ১/৪ কাপ

(প্রবাসীরা গ্রোসারীতে পাওয়া মশলার পেষ্ট ব্যবহার করতে পারেন)

প্রনালীঃ

আলু সিম কুঁচিয়ে নিন।


তেল গরম করে সামান্য লবন যোগে পেঁয়াজ কুঁচি ও কয়েকটা কাঁচা মরিচ ভেজে হলদে করে ফেলুন। আস্ত জিরা দিতে ভুলবেন না।


এবার সব মশলা দিয়ে দিন এবং ভাজুন। হাফ কাপ পানি দিতে ভুলবেন না।


এবার সীম আলু দিয়ে দিন।


ভাল করে মিশিয়ে নিন।


মিনিট বিশেক ঢাকনা দিয়ে হাল্কা আঁচে জ্বাল দিতে থাকুন। মাঝে মাঝে ঢাকনা উল্টে নাড়িয়ে দিন। নুতন করে পানি দেবার দরকার নেই। সিম আলু থেকে বের হয়ে আসা পানিই হয়ে যাবে। এবার ফাইন্যাল লবন দেখুন। লাগলে দিন। চুলা বন্ধ করার আগে কয়েকটা কাঁচা মরিচ দিন।


ব্যস পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত। মশলাদার আলু সিম ভাজি।


সত্যি অপূর্ব।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

Advertisements

4 responses to “রেসিপিঃ মশলাদার আলু সিম ভাজি (ব্যাটারী স্টাইল)

  1. সিম এর তরকারীর চাইতে এভাবে আলু দিয়ে ভাজিই আমার বেশী ভালো লাগে। কুম্ভকর্ণের আবার সিমের তরকারী। ফুলকপি আমি আলু দিয়ে ভাজি পছন্দ করি, আর উনি তরকারী। বুঝুন অবস্থা! সিম, আলু দিয়ে মাখা মাখা করে শুটকি রান্না করে খেয়ে দেখবেন।

    Like

    • যাই হোক, হাসি কান্নাকে আপনারা স্বামী স্ত্রীর সাথে তুলনা করতে পারেন। স্বামীর যখন শীত লাগে স্ত্রীর তখন গরম লাগে! স্ত্রীর শীত লাগলে স্বামীর গরম! এই তো, এইতো আমাদের বিবাহিত জীবন! দুটো বিপরীত চরিত্র না হলে বিবাহ কি করে হয়! ফ্যান চললে বা বন্ধ থাকলে যে কোন একজনকে আত্মত্যাগ করতেই হয়!

      উন্মোচনের এই লিখাটা পড়ে দেখার অনুরোধ জানিয়ে গেলাম।
      http://www.unmochon.net/node/2011

      ধন্যবাদ রান্নাতো আপা।

      Like

  2. আজ বাসায় গিয়ে এই রেসিপি রান্না করব। কাল সীম আর আলু কিনে নিয়েছি।পাতলা মশুরীর ডাল আর আই আলু সীম ভাজি দারুন জমবে।

    Like

  3. পিংব্যাকঃ এক নজরে সব পোষ্ট (https://udrajirannaghor.wordpress.com) | BD GOOD FOOD

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s