গ্যালারি

রেসিপিঃ ডেজার্ট (ব্যানানা আইসক্রিম – কলকাতার নীলাকাশ’দার জন্য)


ব্লগে লিখে লিখে এই জীবনে কত কি ঘটনা ঘটে গেল! মাঝে মাঝে চিন্তা করি, আগে কেন বাংলা টাইপ শিখি নাই! অভ্র আরো আগে পেলে আরো কত কি লিখে ফেলতে পারতাম! হা হা হা… আসলে ভাষা হচ্ছে এমন একটা ব্যাপার, যার ব্যাখ্যা চলেই না। যার যা মায়ের ভাষা, সেই মায়ের ভাষাতে একটা শব্দই যথেষ্ট। মায়ের ভাষায় কত কঠিন কিছুও কত সহজে প্রকাশ করা যায়। হা, এই মায়ের ভাষা নিয়ে কথা বলছিলাম।

মায়ের ভাষাতে বাংলা ব্লগে লিখতে লিখতে এমনি একই মায়ের ভাষা এমন এক প্রতিবেশী দেশের ভাইয়ের সাথে পরিচিত হয়ে পড়লাম। হা, তিনি ভারতের কলকাতার বাসিন্দা নীলাকাশ‘দা (আমি অবশ্য নীলাকাশ ভাই বলি)।  কলকাতা থেকে তিনি লিখে থাকেন বাংলাদেশের নানান ব্লগে। আমার সাথে প্রায় তিন বছরে বেশী সময় ধরে তার সখ্যতা। আমি অনেক ব্লগ পাড়ি দিয়ে এই রেসিপি ব্লগে যখন আসি তখন তাকে কিছু বলা হয় নাই। কিন্তু নীলাকাশ দা আমাকে অবাক করে দিয়ে আমার পোষ্ট গুলো পড়েন। শুধু পড়েন বললে ভুল হবে, তিনি আমার রেসিপি দেখে ভাবিকে নিয়ে অনেক রেসিপি ট্রাই করেছেন। ফোনে তিনি যখন আমাকে রেসিপি নিয়ে খুটিনাটি বিষয়ে জিজ্ঞেস করেন তখন আমি তার ভাষা বুঝি। তিনি আমার রেসিপি পোষ্ট গুলো পরিবারের সবাইকে দেখান, এটা আমার জন্য বেশ গর্বের ব্যাপার।

যাই হোক, বাস্তবতা হচ্ছে কলকাতায় গিয়ে নীলদার সাথে আড্ডাও দিয়ে এসেছি একবার। আবার আগামীবার গেলেও আড্ডা দিব বলে ভাবছি। তবে প্রথমে বলে নেই নীলদা বেশ চমৎকার ছবি তুলেন। ছবি তোলার হাত চমৎকার, আর লেখার হাত! সেটা আমি বলতে চাই না। গুগল লিঙ্ক দিয়েছি, লেখা ও ছবি গুলো আপনারা চাইলে দেখে আসতে পারেন।
সর্বপরি, নীলদাকে আমি মানুষ হিসাবে কাছ থেকে দেখেই বলছি, তিনি একজন চমৎকার মনের মানুষ এবং বিনয়ী। যাকে বন্ধু বলে আপনি সহজেই তার সাথে মিশে যেতে পারেন। একমাত্র মেয়ে ও স্ত্রী নিয়ে নীলদার সুখী সংসার। পরিবার নিয়ে ঘুরে বেড়াতে তিনি পছন্দ করেন বেশ।

আরো মজার ব্যাপার নীলদা একজন খাদ্যরসিক। ভাল খাবার খেতে চান সব সময়। নিজেও ভাল রান্না করেন বলে জানিয়েছেন (ভাবী ধারে কাছে না থাকলে ভাল! হা হা হা, ভাবীর কাছে ধরা কি না কে জানেন?) আজকের এই সহজ রেসিপিটা আমাদের প্রিয় ভাতিজীর জন্য, আশা করি নীলাকাশদা নিজে বানিয়ে নিবেন। হা হা হা, সব কিছুই হাতের কাছে, শুধু অফিস থেকে ফেরার পথে একটা গ্রোসারী ঘুরে গেলেই চলবে!

প্রিয় রেসিপি পাঠক/পাঠিকা বন্ধুগন আপনারাও চেষ্টা করতে পারেন। আইসক্রিমে কলা পড়লে স্বাদ কয়েক গুন বেড়ে যায়, যারা এখনো খেয়ে দেখেন নাই তাদের খেয়ে দেখার আমন্ত্রন থাকল। এটা কিছু রান্না নয়, প্রস্তুতি মাত্র!

উপকরনঃ
– ভ্যানিলা আইসক্রিম বা অন্য যে কোন আইসক্রিম
– পরিমান মত কলা (সাইজ করে কেটে নিন)
– কিছু চকোলেট (টুকরা এবং গুড়া)
– কুকি/ওয়েফার

প্রনালীঃ

হালকা/মজা কলা হলে ভাল।


প্রথমে আইসক্রিম দিন, তার পর কলা!


চকোলেটের টুকরা দিন।


আবার আইসক্রিম তার উপর চকলেটের গুড়া  এবং ওয়েফার কুকি দিয়ে সাজিয়ে নিন।


পরিবার মানে এখন তিন!


আইসক্রিম লাভার্স, কি বলেন?


আসুন, শুরু করুন।

নীলাকাশ’দা, ভাল থাকুন। খেয়ে বলবেন, কেমন হয়েছে? ভাতিজী কি পছন্দ করবে!

Advertisements

13 responses to “রেসিপিঃ ডেজার্ট (ব্যানানা আইসক্রিম – কলকাতার নীলাকাশ’দার জন্য)

  1. সাহাদাত ভাই, অসাধারণ। আমি শুধু কলা আর আইসক্রিম দিয়ে খেয়ে দেখলাম। আমার ভাল লেগেছে। নীলদা ও আপনাকে ধন্যবাদ।

    Like

  2. দাদা ভাই আপনাকে চমৎকার মিস করি। আমার লেখালেখির সীমাবদ্ধতার কারনেই আপনি এখন যে ব্লগে আছেন সেখানে নিয়মিত হতে পারিনা।
    বরাবরের মতই আপনার রেসেপির চমৎকার ভক্ত।
    দাদা আগের নাম্বারটা কি আছে। যদি না থাকে নতুন নাম্বারটা কষ্ট করে ফেবুতে দিয়ে যাবেন।
    অনেক অনেক শুভেচ্ছা।
    আপনার বুলেট কেমন আছে??

    Like

  3. সপরিবারে আপনার লেখা পড়লাম।
    আমাদের কথা চিন্তা করে আপনি লিখেছেন এবং সেই পোস্ট আমাদের উৎসর্গ করেছেন দেখে আমরা অভিভূত। এই অভিভূত অবস্থা কেটে গেলেই আপনার রেসিপি ট্রাই করব। 🙂
    তারপরে জানাব আমরা কতটা দক্ষতার সাথে আপনার লেখা অনুসরন করতে সক্ষম হয়েছি।

    Like

    • ধন্যবাদ নীলাকাশ ভাই। হা হা হা…।।
      আমি আপনাকে ফিল করি। আপনি ভাল মনের মানুষ এটাই আমার কাছে ভাল লাগে।

      আপনার দিন কাটুক আনন্দে। প্রতিটা দিন হউক আনন্দের। পরিবারের সবাইকে নিয়ে ভাল থাকুন।

      শুভেচ্ছা। ভাতিজী এবার কোন ক্লাসে উঠবে।

      Like

  4. অনেক মজার খাবার।

    মাঝে মাঝে একটু সবুজ আঙ্গুর( মিষ্টি কিনা দেখে নেবেন), লাল আঙ্গুর, সামান্য পেস্তা বাদাম, গরমের সময় পাকা মিষ্টি আমও সাথে যোগ করতে পারেন। এই ডেজার্টটা আমার অনেক প্রিয়।

    Like

    • ধন্যবাদ বোন। বেশ ভাল লিখেছেন। হা, এই সকল আইটেম দিয়ে এবার চেষ্টা করতে হবে, বুদ্দি থাকলে ঘরজামাই হয়ে থাকতে হয় না।

      আমের দিনে পাকা আম দিয়ে আইসক্রিম খেয়ে দেখবোই। আঙ্গুর ভয়ে কিনিই না!

      শুভেচ্ছা।

      Like

  5. নীলাকাশ দা’ যে একজন চমৎকার মানুষ, তা পোস্টের শুরুতে জানলাম।
    ডেজার্ট তো আরও চমৎকার!! স্বাদে কেমন হবে জানি না, দেখে শান্তি পেলাম অনেক।

    Like

  6. গরম এসে গেসে
    কাজে লাগাতে হইবে ….

    Like

  7. পিংব্যাকঃ এক নজরে সব পোষ্ট (https://udrajirannaghor.wordpress.com) | BD GOOD FOOD

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s