Gallery

রেসিপিঃ সিলভার কাপ ফিস ফ্রাই (সাধারন)


মাছ ভাজি নিয়ে আমার এক্সপেরিমেন্ট কম নয়! কোন মাছ ভাজা খেতে কেমন কিংবা কি কি ভাবে খেতে হয় তা আমি নানান রান্নার মাধ্যমে দেখাবার চেষ্টা করেছি। মাছ ভাজি রান্না করতে গিয়ে আমি দেখেছি, মাছ আসলে এমন এক প্রকারের খাবার যা শুধু সামান্য তেল দিয়ে ভেজেও খাওয়া যায়! ময় মশলার যত কথা বলি আমরা আসলে তার কিছুই দরকার নেই। বরঞ্চ মশলাপাতি দিয়ে মাছের আসল স্বাদ ও ঘ্রান নষ্ট করে ফেলা হয়। হা হা হা… যারা প্রকৃত খাদক* (নাজমুল হুদা ভাইয়ের কথায়) তারা আমার সাথে একমত হবেনই!

চলুন, আজ সিলভার কাপ মাছ ভাজা দেখি। অনেক সিলভার কাপ মাছ দেখে ভাবতে পারেন, কাঁটা বেশী। আসলে তা নয়, সিলভার কাপ মাছে তেমন কাঁটা নেই। আমাদের জাতীয় ইলিশ মাছের সাথে তুলনা করলে বলা যেতে পারে, সিলভার কাপ মাছ কাঁটাহীন মাছ! শুধু খালি তেলে ভাজলে সবাই খেতে চাইবে না বলে সামান্য মশলার ব্যবহার করা হয়েছে মাত্র।

প্রণালীঃ

মাছ যত বড় খেতে তা ততই মজা! বড় মাছের সাথে ছবি তোলার মজাই আলাদা! (ইদানিং আর ছবি তোলাতে পারছি না, প্রতি স্নেপসর্টে এক এক নূতন কন্ডিশন, নূতন কন্ট্রাক!)


বাজারে সিলভার কাপ নাকি বেশি চলে না। মাছ বিক্রেতা বিশু জানালো (প্রায় ১২ বছরের পরিচয়), আপনার মত কিছু কাষ্টমার আছে, যারা সব ধরনের মাছ কিনেন! হা হা হা… আগে মাছ কেটে দিত এখন কেটে দিতে হয় না বলে খুশি! রেসিপি লেখার ও ছবি তোলার জন্য গত এক/দেড় বছরে আর মাছ কেটে বাসায় আনি না! আগে প্রায় সব মাছই কেটে টুকরা করে নিয়ে আসতাম।


কেটে ধুয়ে সামান্য লবন, মরিচ গুড়া ও হলুদ গুড়া দিয়ে মেখে আধাঘন্টা রেখে দিন।


কড়াইতে তেল গরম করে ভেজে নিন।


যে কোন ভাজাভাজিতে অধিক সাবধান হতে হবে। গায়ে যেন তেলের ছিটা না পড়ে তার দিকে লক্ষ রাখতে হবে। সোনার অঙ্গে যেন দাগ না পড়ে (আমাদের শরীর সোনার ছেয়েও দামী)! মাছ উল্টাতে সাবধান, যাতে ভেঙ্গে না যায়।


কেমন ভাজি চান তা আপনি নিধারন করুন। পরিবেশনের আগে কিছু বেরেস্তা ভাজা মাছের উপর ছিটিয়ে দিতে পারেন। দেখতে ভাল এবং খেতেও ভাল লাগবে।


রিয়েলি ডিলিসিয়াস! আমি একাই দুই পিস সাবাড় করে দিয়েছি!

* প্রকৃত খাদক = যারা সব কিছু খেতে পারে এবং খাবারে বাছ বিচার করে না।

Advertisements

8 responses to “রেসিপিঃ সিলভার কাপ ফিস ফ্রাই (সাধারন)

  1. একটা সতর্কীকরণ নোটিশ দিলে ভালো হতোঃ সেটা হচ্ছে, “ছোট আকারের সিলভার কার্প (Silver Carp) কিনলে দায়-দায়িত্ব ক্রেতার! মাছে স্বাদ না হলে বা বোটকা গন্ধ লাগলে পোস্টদাতা দায়ী থাকবেন না!”
    বড় আকারের (কমপক্ষে দুই কেজি) সিলভার কার্প পেলেই আমি কিনে ফেলি। শুধু কী ভাজি? অল্প ঝোল রেখে রান্না করলেও অতি চমৎকার!
    তবে এই মাছ যে খেতে ভালো তা আমি সহজে কাউকে বলি না। ক্রেতা বেড়ে গেলে এই মাছের চাহিদা বাড়বে। সাথে সাথে বাড়বে এর দাম! এখনও এই সুস্বাদু মাছের চাহিদা কম আছে বলেই তো দাম তেমন বাড়েনি, আমার সাধ্যের মধ্যেই আছে। আপনার এই পোস্ট পড়ে যদি পাঠকের দল এই মাছের প্রতি আকৃষ্ট হয় এবং এ মাছের মূল্যবৃদ্ধি ঘটে, তা’হলে কিন্তু … হু হু বুঝতেই পারছেন!!
    ও হ্যা, এ মাছে (শুধু এ মাছেই বা কেন, সকল মাছেই) ডিম হয়ে গেলে কিন্তু কোনই স্বাদ পাবেন না। অতএব, কেনার সময় সাবধান!!

    Like

  2. আহ! মাছ ভাজা!
    এর চেয়ে স্বাদের আর কি লাগে।

    এমন এমন পোস্ট দিন না সাহাদাত ভাই , যে ভরা পেটে পড়লেও আবার খিদে লেগে যায় হা হা হা।

    ধন্যবাদ এমন পোস্টের জন্য।

    Like

  3. মাছ ভাজি অত্যন্ত সুস্বাদু একটা খাবার, আবার কম কষ্টে কম সময়ে তৈরী হয়ে যায়, এজন্য আরো ভালো লাগে! একটা গোপন কথা বলি, সুস্বাদু কোনো মাছ ভাজি হলে, যেমন ইলিশ, সেটা ভাজার পর কড়াইয়ে যেটুকু তেল লেগে থাকতো, সেটায় ভাত মাখিয়ে খাওয়ার জন্য আমি আর আমার ছোট ভাই ফাইট দিতাম! 🙂

    মাছ ভাজির তেলে যে পেঁয়াজ দেওয়া হয়, সেটা ভেজে বেরেস্তা না করে, মোটামুটি নরম করলেও বেশ ভালৈ লাগে। এখানে তো ধনেপাতা, পেঁয়াজপাতা সারাবছর পাওয়া যায় (দেশেও কী এখন তাই?) তাই মাছ ভাজির শেষের দিকে, অনেকখানি পেঁয়াজের পাতলা স্লাইস, খানিকটা পেঁয়াজপাতা আর ধনেপাতা, আর গোটাকয়েক কাঁচামরিচ চিরে দিয়ে দেই, পেঁয়াজের কচকচা ভাবটা মরে গিয়ে নরম হলে নামিয়ে ফেলি। আমার স্ত্রী টমেটো ভালোবাসেন, তাই উনি এটার সাথে কুচি টমেটো আর লেবুর রস চিপে দেন, সেটাও খেতে দুর্দান্ত। ট্রাই করে দেখতে পারেন, খারাপ লাগবেনা মনে হয় 🙂

    Like

  4. ভাজি করলে সব মাছই ভালো লাগে। তবে আমি এই সিলভার কার্প, কারফু এসব মাছ কিনিনা।

    Like

  5. পিংব্যাকঃ এক নজরে সব পোষ্ট (https://udrajirannaghor.wordpress.com) | BD GOOD FOOD

  6. Pangash aar Silver cup duitai amar favt.kata nei aar hoito ami gorib tai!!!kabab banate eai machgula sera.

    Liked by 1 person

    • ধন্যবাদ আপনাকেও।
      খাবার দাবারে ধনী গরীব নেই! উপওয়ালা যার কোপালে যা লিখে রাখেন তাই খেতে হয়! শত কোটি টাকার মালিকেরা যদি বেশী খেতে পারতো তবে দুনিয়ার অবস্থা ভাবুন কি হত!
      খেতে পারছি আমরা এটাই শুকরিয়া, বেঁচে আছি।
      শুভেচ্চা আপনাকে।

      Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s