গ্যালারি

রেসিপিঃ পেঁপে আলু (নিরামিষ)


আমাদের দেশের অনেক আছেন যারা মাছ মাংশ খেতে চান না কিংবা নানান কারনে মাছ মাংশের ধারে কাছেও যান না। তা হলে তারা কি ধরনের খাবার খেয়ে থাকেন। হা, তারা নিরামিষ জাতীয় রান্না পছন্দ করেন এবং এই ধরনের খাবার খেয়েই বেশ সুস্থ্য দিনকাল পার করেন। অনেক সময় এই নিরামিষ ভোজিরা বেশি দিন আয়ু পান, রোগ বালাই এদের কাছে থেকেও দূরে থাকে! তবে যাই হোক, আজকাল অবশ্য আর বুঝার উপায় নাই। এখন অনেকের ক্যান্সার হচ্ছে যারা জীবনে তেমন কোন নেশাপান কিংবা অন্যায় খাবার খান নাই। শাকসব্জি খেয়েও এখন আর পার পাওয়া যাচ্ছে না!

চলুন আর এমন একটা নিরামিষ রান্না দেখি এবং আমার কাছে মনে হয়েছে এর চেয়ে সহজ আর কি রান্না হতে পারে। যারা আমিষ ভোজি তারাও মাঝে মধ্যে এমন পেলে বেশ মজা করে খাবার খেতে পারেন। তবে এই রান্নাটা স্পেশালী যারা রাতে রুটি খান তাদের জন্য। রুটির সাথে এই ধরনের খাবার জম্বে বেশ। বয়স্করা এবং ডাইবেটিক্স এ আক্রান্ত ব্যক্তিগন রাতে রুটি খান, তাদের জন্য এমন ধরণের তরকারী বেশ উপযোগী।

পেঁপে আলু মিক্স (আপনি অন্য তরকারীও দিয়ে বানিয়ে দেখতে পারেন)। বেশ সুস্বাদু এবং সহজ রান্না।

প্রনালীঃ

পেঁপে বেশী, আলু কম।


প্রথমে কিছু বেরেস্তা ভেজে নিন। বেরেস্তা উঠিয়ে সেই তেলে সামান্য লবণ যোগে হাফ চামচ পাঁচ ফুড়ন দিয়ে ভেজে নিন। দুই একটা এলাচি দিলে আরো ঘ্রান বাড়বে।


এবার তেলে এক চামচ পেঁয়াজ বাটা, এক চামচ রসুন বাটা, এক চিমটি লাল গুড়া মরিচ, সামান্য গুড়া হলুদ, কয়েকটা কাঁচা মরিচ দিয়ে হাফ কাপ পানি দিয়ে ভাল করে ভেজে/কষিয়ে তেল উপরে উঠিয়ে ফেলুন।


এবার পেঁপে ও আলু দিয়ে দিন।


ভাল করে মিক্স করে নিন।


আরো এক কাপ পানি দিয়ে ঢাকনা দিয়ে মিনিট বিশেক টিভি দেখে আসতে পারেন। ভুলে যাবনে না। আগুন বেশি নয়।


ঠিক এমন একটা অবস্থায় এসে যাবে। ফাইন্যাল লবণ দেখুন। লাগলে দিন না হলে নাই। আগুনের আঁচ কমিয়ে দিন। খুন্তি দিয়ে নাড়ুন।


ঝোল কমে গেলে বেরেস্তা ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিয়ে দিন।


ভাল করে মিক্স করুন।


ব্যস পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত। রুটি নিয়ে বসে পড়ুন। কয়েকটা কাঁচা মরিচ ও মাঝে সামান্য বেরেস্তা দিয়ে সাজিয়ে দেয়া হল মাত্র।


আহ নিরামিষ। সারা দুনিয়ার মানুষ এমন সব খাবার খেলে দুনিয়াতে চাষাবাদ ভাল হত, কোন প্রানী মারা পড়ত না। পুকুরে, নদীতে, সাগরে শুধু থাকত মাছ আর মাছ! একটা দেখার ব্যাপার দাঁড়িয়ে যেত। আহ…

(রেসিপি দেখে রান্না করতে হলে রেসিপির একটা প্রিন্ট নিয়ে রান্নাঘরে প্রবেশ করবেন, আর যদি নেট কানেকশন সহ ল্যাবটপ থাকে তা হলে কথাই নেই। রান্নার উপকরন/পরিমান একটু এদিক সেদিক হলে কি আসে যায়! আজ যা পারেন নাই, কাল সেটা ঠিক হবেই। তবে মনে রাখা দরকার যে, রান্নায় মুল মানে কি রান্না করছেন এবং তা কতটুকু তার উপর নির্ভর করেই মশলাপাতি ব্যবহার করা ভাল।)

আসা করি নিজেরা রান্না করতে আগ্রহী হবেন এবং নিজেরা রান্না শিখে অন্যকে চমকে দেবেন। পৃথিবীর সেরা কয়েকটা কাজের মধ্যে একটা হচ্ছে রান্না।আপনার প্রিয়জনের মুখে আপনিই খাবার রান্না করে তুলে দিন। এর চেয়ে আর কি খুশি হতে খবর কি হতে পারে।

সবাইকে শুভেচ্ছা।

Advertisements

11 responses to “রেসিপিঃ পেঁপে আলু (নিরামিষ)

  1. বাজারে পেপে আর আলুর দাম সব চাইতে কম। এই রেসিপি দেখে সবাই যদি এর প্রতি আকৃষ্ট হয়, তবে তো পেপে-আলুর দামও বেড়ে যাবে। আর সব তরি-তরকারির মত এ দুটোও হয়ে উঠবে দুর্মূল্য!
    এই খেয়ে টিকে আছি কোন মতে, তাও বুঝি আর জুটবে না!!

    Like

  2. কি বলব ভাই আপনার ব্লগ দেখে আমি ফিদা হয়ে গেছি। ভাই আপনি খুব সুন্দর করে আপনার ব্লগ সাজিয়েছেন আমি নতুন ব্লগ সাইডে তাই যদি আপনি এক্তু সাহায্য করতেন কিভাবে আপনার মত ব্লগ সাজাতে পারি ।তাহলে খুব কৃতজ্ঞ থাক্তাম। আপনাকে আসংখ ধন্নবাদ………. this is my E-mail ID…….
    neelkuasa@yahoo.com

    Like

    • ধন্যবাদ নীল ভাই, আসলে ওয়ার্ড প্রেস অত্যান্ত সহজ। পোষ্ট, পেইজ, লিঙ্ক বুঝতে পারলেই হল। আপনি একটু সময় নিয়ে বেশী করে দেখুন, আশা করি পারবেন।

      আমি আপনার ব্লগ সাইট দেখলাম। আমার কাছে আপনার কনসেপ্ট ভাল লেগেছে এবং সহজে পারছেন।

      তবে বন্ধুদের সব সময় আমন্ত্রন করতে হবে এবং প্রচুত কমেন্ট করতে হবে। আপনি যদি অন্যকে কমেন্ট না করেন তবে তারাও আপনার কাছে আসবে না।

      আগামীতে ওয়ার্ড প্রেস আরো অনেক অনেক এগিয়ে যাবে বলে আমি মনে করি। ফেইসবুকের ছেয়ে ভাল লাগে আমার কাছে ওয়ার্ড প্রেসকে।

      সাথে আছি। আমি আপনাকে মাঝে মাঝে দেখে কমেন্ট করব। আপনি আরো সাজাতে থাকুন। তবে যে কোন একটা থিম বেছে একবারের জন্য সেট করুন, সেই থিমের উপরই কাজ করে যান। বারবার থিম পাল্টালে তখন আর ভাল হবে না।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  3. ভাই সুন্দর মন্তব্যের জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। তার পর ও আমাকে একটু সাহায্য করতে হবে আপনাকে, আমার সবগুলো পোস্ট একটি পেজে দেখায় আমি পেজ নাম্বার দিতে পারিনা, আমি অনেকগুলি plagins dounload করে রাখছি কিন্তু ব্লগে কিভাবে ব্যাবহার করব বুঝতে পারতেছিনা। please please please please Help Me?

    Like

    • ধন্যবাদ ব্রাদার। আপনি আপনার সাইটের ড্যাশবোর্ডে ক্লিক করে এপিয়ারেন্স, ইউজার, সেটিং অপারেশন গুলো দেখতে পারেন। মানে একটা একটা করে দেখলেই এই সমস্যার সমাধান পাবেন।
      প্লাগিন গুলো ব্যবহারের জন্য ‘উইজোট’ খুলে দেখুন, সেখানে গেলেই বুঝতে পারবেন।

      (আপনি যদি গ্রীন রোড়ের ধারে কাছে আসতে পারেন, আমি হাতে কলমে দেখিয়ে দেব, খুব সহজ শুধু একটার পর একটা অফসন দেখুন ০১৯১১৩৮০৭২৮)

      Like

  4. স্বাস্থ্যকর পোস্ট!
    সকালে এই পেঁপে আলুর ভাজি দিয়ে নাস্তা করতে দারুন লাগে।
    আর একটি কালিজিরা মিশিয়ে দিলে তো কথাই নেই।

    Like

  5. আমার খুব পছন্দের খাবার এটা। পাঁচ ফোঁড়ন দেয়ার কথা আগে জানতাম না। কালিজিরা দিলেও ভাল হবে মনে হয়।

    Like

  6. পেঁপের আর কুনো রেসিপি কি আছে?

    Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s