গ্যালারি

রেসিপিঃ সাধারন হাঁস রান্না (ঝাল)


বাংলাদেশে অনেকে হাঁসের মাংস খেতে চান না। অনেকে মনে করেন, হাঁস একটা পাখি এবং পাখীর মাংস খাওয়া চলে না। তবে পৃথিবীর  নানা দেশে হাঁসের মাংস বেশ আরামে খাওয়া হয় এবং গোটা হাঁসের কাবাব একটা জনপ্রিয় ও পরিচিত খাদ্য।

হাঁসের মাংসে হাড্ডির পরিমাণ বেশী এবং এবং হালকা একটা গন্ধ লাগার কারনে আমিও তেমন একটা পছন্দ করি যে তা নয়! সব সময়েই দূরে থাকার একটা চেষ্টা আছে। এদিকে সিলেটে জন্ম বলে ছোট বেলায় অনেক বড় রাজ হাঁসের মাংস খেয়েছি! আমার জানামতে  বাংলাদেশে সব চেয়ে বেশী হাঁসের মাংস (রাজ হাঁস সহ) খাওয়া হয়, সিলেটে! কথাটা সত্য না মিথ্যা তা প্রমানের ভার আপনাদের উপর ছেড়ে দিলাম।

যাই হোক, কাজের কথায় আসি। আমার স্ত্রী আখাউড়ায় ফোন দিলেই হাঁসের কথা বলেন। এই নিয়ে গত কয়েক বছরে বেশ কয়েক দফা হাঁসের মাংস খেলাম শ্বশুর বাড়ির কল্যাণে। গত সাপ্তাহেও দুটো হাঁস পাঠিয়েছেন তারা। একটা নরমাল ঝাল করে রান্না হয়েছে, অন্যটা কাবাব। আজ আপনাদের নরমাল রান্নাটা দেখিয়ে দেই। গোটা হাঁসের কাবাব আর একদিন দেখানো যাবে…।

রেসিপি পরিমাণঃ (পরিমাণ অনুমান করে দেয়া হয়েছে, সামান্য এদিক ওদিকে কি আসে যায়)
– একটা হাঁস (যদি ভাল করে না লোম বাচতে পারেন তবে চামড়া ফেলে দিতে পারেন)
– এক কাপ পেঁয়াজ বাটা
– দুই চামচ আদা বাটা
– দুই চামচ রসুন বাটা
– ঝাল বুঝে লাল গুড়া মরিচ (হাঁসের সাধারন রান্নায় ঝাল একটু না হলে কি চলে)
– এক চামচ হলুদ
– গরম মশলা; চার/পাঁচটে এলাচি, কয়েক টুকরা দারুচিনি
– এক চামচ জিরা
– এক চামচ সাদা সরিষা বাটা
– এক চামচ জয়ত্রী
– একটা জয়ফলের ১০ ভাগের একভাগ (একটা বড় জয়ফল প্রায় ১০ কেজিতে ব্যবহার করা হয়)
– তিন চামচ টমেটো সস
– ২ চামচ ভিনেগার
– এক চামচ চিনি
– পরিমাণ মত লবণ
– পরিমাণ মত তেল/ পানি

প্রস্তুত প্রণালীঃ

হাঁসের লোম পরিষ্কার করা একটা শক্ত কাজ।


কড়াইতে তেল গরম করে তাতে সব হলুদ ও মরিচ ছাড়া বাকী সব মশলা পাতি (উপরের সব ইনগ্রেডিয়্যান্স) দিয়ে ভাল করে কষিয়ে নিন।


মরিচ ও হলুদ দিন এবং আবারো সামান্য পানি দিয়ে ভাল করে কষিয়ে নিন। এই ঝোল যত উত্তম হবে রান্না ততই স্বাদের হবে।


হাঁসের মাংস দিয়ে দিন।


ভাল করে মিশিয়ে জ্বাল দিতে থাকুন।


কিছু পানি (গরম হলে ভাল) দিয়ে ঝোল বাড়িয়ে নিন এবং ঢাকনা দিয়ে মিনিট বিশেক জ্বাল দিতে থাকুন।


মাংস নরম হল কিনা দেখে নিন এবং ফাইন্যাল লবণ চেক করুন, লাগলে দিন। কয়েকটা কাঁচা মরিচ দিতে পারেন, যদি থাকে। আমাদের সে দিন হাতে ছিল না!


ঝোল কেমন রাখবেন তা আপনার উপর নির্ভর করছে।


ব্যস পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত। গরম ভাত কিংবা পোলাউ এর সাথে বেশ জমবে।

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন ও আখাউড়া বাসী

(আগামীতে পুরা হাঁসের কাবাব বানানো দেখাবো, আগেই আমন্ত্রণ জানিয়ে গেলাম। রেসিপিটা বেশ জমজমাট করে সংগ্রহ করা হয়েছে।)

Advertisements

56 responses to “রেসিপিঃ সাধারন হাঁস রান্না (ঝাল)

  1. ওহ জিভে পানি চলে আসলো! শীতকালে ঝাল হাঁসের মাংস দিয়ে গরম ধোঁয়া ওঠা ভাত, কোনো তুলনাই হয় না। এদেশে হাঁসের খুব দাম, ইচ্ছা থাকলেও কিনে খাওয়া হয় নি। এখানে শখ করে হাঁসের আস্ত রোস্ট করে অনেকে, আর সেটা থেকে যে তেল পাত্রে জমা হয়, সেটার খুব কদর। হাঁসের তেল দিয়ে আলু ভাজি করে খেতে নাকি অমৃত! আমি খাইনি অবশ্য।

    আপনার হাঁসের কাবাব রেসিপির অপেক্ষায় থাকলাম!

    Like

    • রনি ভাই, এবার আমার শ্বশুর আব্বা দুটো হাঁস পাঠিয়েছিলেন। হাঁস গুলো বেশ রিষ্ট পুষ্ট ছিল!

      আমি প্রবাসে প্রায় সাড়ে নয় বছর ছিলাম। হা, হাঁসের দাম খুব বেশি তা দেখেছি। হা হা হা… বোষ্টের তেলের কথা শুনে হাসছি…। এই তেলে আবার আলু ভাজি… হা হা হা… কত কি আছে এই দুনিয়ায়।

      হাঁসের কাবাবের রেসিপিটা আপনার জন্যই পরিবেশন করা হবে। সত্যি বলতে কি, এত মজাদার হয়েছিল যে, আমি আর আমার ছেলেই বলতে গেলে পুরা শেষ করে ফেলেছি… সামান্য ভাগে পড়েছিল আমার ব্যাটারীর! তিনি আমাদের হাঁস খাওয়া দেখে বলছেন আবারো আনাবেন!

      শুভেচ্ছা নিন।

      Like

    • রনি ভাই, এখানে হাঁসের কাবাবের রেসিপিটা দেয়া হয়েছে।
      http://wp.me/p1KRVz-nx
      আশা করি দেখে আসবেন।

      Like

  2. হাঁসের মাংস আর খিঁচুড়ী, এক কথায় অসাধারণ!
    আর রন্ধনপ্রণালী ঠিকমত জানলে হাঁসের রান্নাতে গন্ধ একেবারেই আসবেনা। চমৎকার একটি রেসিপি দিয়েছেন সাহাদাত ভাই। হাঁসের মাংসটা কখনও নিজে রান্না করিনি, এবার করা হবে আশাকরি। আর হাঁসের কাবাবের রেসিপির অপেক্ষায় রইলাম।

    “কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন ও আখাউড়া বাসী”

    হা হা হা, বেশ মজা পেলাম!
    পুরো আখাউড়াবাসীদের প্রতিই কৃতজ্ঞতা বোধ!

    Like

    • দাইফ ভাই, আমি অনেক অনেক বার হাঁসের মাংস খেয়েছি। আমার কাছে এখন ভালই লাগে। হালকা একটু ঘ্রাণ থাকে মশলা পাতি একটু বাড়িয়ে দিলে তা আর থাকে না…

      আমরা শ্রীমঙ্গলে থাকতে বেশ কিছু রাজ হাঁসের মাংস খেয়েছি যা এখনো ভুলতে পারি না। সিলেটের লোকেরা হাঁস বেশী খায় এটাতে আপনি একমত কি না তা জানালেন না!

      আখাউড়ায় বিবাহ না করলে অনেক কিছুই জানতাম না! হা হা হা…

      কয়েকদিনের মধ্যেই দিয়ে দিব। আশা করি সাথে থাকবেন।

      Like

      • হা একমত, সিলেটবাসীরা হাঁসের মাংস অনেক পছন্দ করে। আমার এক বন্ধু ছিলো সিলেটী, আমাদের সবার বাসায় যেমন প্রতিনিয়ত মোরগ-মুরগী রান্না হয়, তেমন ওদের বাসাতে প্রতিদিনই হাঁসের মাংস রান্না হতো। আর গরুর মাংস রাঁধলেই তাতে সাতকড়া দিতো।

        Like

        • হা হা হা…। আসলে এটা ছোট বেলা থেকেই শিখে আসা ঘটনা। আমি জানি এ কারনে যে, আমি আমার ছোট বেলা শ্রীমঙ্গলেই কাটিয়েছি। কত হাঁস খেয়েছি…

          আমি সাতকড়া অনেক পছন্দ করি। শুধু সাতকড়া (যত তিতা হউক না কেন) ভেজে সবজির মত খেতে পারব।

          রাজহাঁসের মাংস আরো চমৎকার।

          Like

  3. হাঁসের মাংস নাকি বেশ সুস্বাদু?

    Like

  4. শীতের হাঁসে স্বাদ বেশী! পরিস্কার করতে না পারলে চামড়া ফেলে দেবার পরামর্শ পছন্দ হলো না!! হাঁসের চামড়া ফেলে দিলে অর্ধেকটাই তো ফেলে দেওয়া হয়!!! একটু কষ্ট করে চামড়াটা পরিস্কার করে নেওয়াই ভালো।
    হাঁস পাখী? কেন মুরগী কি পাখী নয়? যারা বলে হাঁস পাখী, তাই খাওয়া যাবে না, তারা তো পাখীই চেনে না!! পরিযায়ী পাখী খেয়ে শেষ করে ফেলছ লোকজনে, আর হাঁস পাখী বলে খাওয়া যাবে না? অদ্ভুত যুক্তি!!
    রান্না ভালো হয়েছে। শীতকালে শীতের পিঠার সাথে (বিশেষ করে গরম চিতই পিঠা) হাঁসের ঝোল ঝাল মাংস কিন্তু বেশ জমে।
    আস্ত রোস্ট তিনজনে খেয়ে ফেললেন? রূপকথার রাক্ষস তো দেখি বাস্তবেও বিরাজ করছে!!
    নারকেল দুধ দিয়ে ডিম আমড়া রান্না হয়েছে আজ। শব্দনীড়ে ছবিসহ পোষ্ট দেখবেন। এখানে ছবি দেয় কেমন করে?

    Like

    • চিতই পিঠা আর হাঁসের মাংসের কথা বলে তো জিভে জল এনে দিলেন হুদা ভাই। ভাগ্য ভাল এখন রাত মানে রোযার সময় নয়,হা হা হা।

      আর নারকেল দুধ দিয়ে ডিম আমড়া রান্নার রেসিপির ছবি দেখলাম। জলদি রেসিপিটা চাই।

      Like

      • রেসিপিঃ নারকেল দুধে আমড়া দিয়ে ডিমের কারী http://www.shobdoneer.com/lubna-rahman/31517

        Like

        • (বোন লুবনা রান্না বান্নায় বেশ ওস্তাদ। আপনি রান্না করেই ফেলেছেন দেখে খুশি হলাম।)

          হা হা হা…।।
          এই না হচ্ছে আমাদের হুদা ভাই! ফাটাফাটি…।
          ১০ টা আমড়া আর ৬ টা ডিম। আমি কিন্তু গুনে ফেলছি…।
          ছবি দেখে মনে হচ্ছে বেশ মজাদার রান্না হয়েছে। সুরঞ্জনা আপা থাকলে আর একটু বিশদ বলতে পারতেন…।
          ১। ডিম ছিলে কি হালকা ভেজে নেয়া হয়েছে? দেখে মনে হয় তা করা হয় নাই।
          ২। তেল একটু বেশি লাগছে…। হাড়িতে আরো তেল রেখে দিয়ে আসছেন! হা হা হা।।
          ৩। এটা কি গরম ভাত না পোলাউ এর সাথে খাওয়া হবে তা বলেন নাই!

          ভাবীকে সালাম। আপনাকে রান্নাঘরে সহ্য করার জন্য! দুই দিনের দুনিয়া, আমাদের খেয়েই যেতে হবে!

          ইফতারে ভাজাভুজা ছাড়ুন।

          Like

          • ১. ডিম ছিলে কি হালকা ভেজে নেয়া হয়েছে? দেখে মনে হয় তা করা হয় নাই। > ভেজে নেওয়া হয়েছে, তবে পোড়া পোড়া হলে আমার তেমন ভালো লাগে না, তাই একেবারেই হালকা ভাজি!
            ২. তেল একটু বেশি লাগছে। হাড়িতে আরো তেল রেখে দিয়ে আসছেন! হা হা হা।। > নরকেল দিলে এমন তেল হবেই। না, হাড়িতে রেখে আসা হয় নি।
            ৩. এটা কি গরম ভাত না পোলাউ এর সাথে খাওয়া হবে তা বলেন নাই! > গরম ভাত বা পোলাউ, দুইয়ের সাথেই চলে এটা।

            Like

        • অসংখ্য ধন্যবাদ হুদা ভাই।

          Like

      • দাইফ ভাই, হুদা ভাইয়ের ব্যাপার স্যাপারই আলাদা। মন যা চায় তাই করতে পারেন! হা হা হা…

        হুদা ভাই নিজেও ভাল রান্না করতে পারেন। যা আমি বেশ পছন্দ করি। ছেলেরা রান্না করতে পারে জানলে খুশিতে মন ভরে যায়।

        খুলনা চলেন একদিন হুদা ভাইয়ের হাতের রং চা খেয়ে আসি…

        Like

    • হা হা হা… সরি… আমিও হাঁসের চামড়া রাখার পক্ষে। কিন্তু এটাই সবচেয়ে কঠিন কাজ।

      আমাদের অফিসেই কয়েকজন এমন ধারনা পোষণ করে, যা ভুল।

      শব্দনীড়ে আপনার খাবারের ছবি দেখে আমি শুধু ডিম আর আমড়া গুনছিলাম! মুখে কিন্তু জল আসে নাই……। হা হা হা।।

      চমৎকার। আসলে এটাকেই বলে উদ্যোগ। দুনিয়ার কোন উদ্যোগ বৃথা যায় না।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  5. গন্ধের কারণে আরো অনেক কিছুর মতো হাঁস খেতে পারি না। বাসায় যেদিন হাঁস রান্না হয়, আমার জন্য মুরগী।
    তারপরও আপনার রান্নায় চোখ বুলাতে কষ্ট হয় নাই। বরাবরের মতো দারুন পোষ্ট। ভাবছি কোন একদিন আপনার ডাইনিং টেবিলে হামলা চালাবো। আশা করছি সেদিন হাঁস থাকবে না। শুভ কামনা।

    Like

  6. সিলেটের মানুষ হাস বেশী খায় নয়, এক কালে খেতো।
    শীতকালে হাঁস আর বাঁশ দিয়ে ঝাল করে মাখা মাখা তরকারী সিলেটের ঐতিহ্য ছিলো। কচি বাঁশের অঙ্কুরকে মাটির হাড়ি দিয়ে ঢেকে রাখতো। সেটা বাধাকপির মতো গোল হয়ে যখন হাড়িটা ফেটে যেতো, তখন সেটা কেটে কুচিকুচি করে হাসের মাংস দিয়ে, চিংড়ী শুটকি দিয়ে রান্না করা হতো।
    হাঁসের গোস্তে আমার আপত্তি নেই, কিন্তু কুম্ভকর্ন খান না। আর হুদা ভাইএর সঙ্গে একমত। হাঁসের চামড়া ফেলে দিলে তো সব মজাই শেষ।

    আমড়া দিয়ে ডিম? ডিমের টক? শুনিনি কখনো!

    Like

    • হাঁস আর বাঁশ! সাথে চিংড়ী শুঁটকী! ওয়াও…। একদম পাহাড়ি খাবার… হা হা হা।। সিলেট তো পাহাড়ে ভরপুর…

      কুম্ভকর্ন ভাই এক্সেপশন্যাল…। মানি না মানবো না…

      হুদা ভাই আমড়া দিয়ে ডিম রান্না করেই ছাড়লেন…

      (গত কয়েকদিন হুদা ভাই আমাদের এখানে আসছেন কিন্তু দুভাগ্য ক্রমে দেখা হচ্ছে না। আগামী কাল দেখা হবে বলে আশা করছি।)

      Like

  7. সুরঞ্জনা আপা, সিলেটের এই ঐতিহ্যটা জানা ছিলনা—-বাঁশকে হাঁড়িতে দিয়ে ফুল বানানো হয় জানতাম, তবে এটার সাথে শুটকি আর হাঁসের কম্বিনেশনটা হয় জানতামনা। ধন্যবাদ।

    Like

  8. ইংরেজীতে বেম্বু রুটস বল্লেও সিলেটে এটাকে বলে বাঁশের কোড়ল।
    সব্জীওয়ালারা নিয়ে আসে বর্ষার আগে। আমি একদিন ছোট চিংড়ী দিয়ে রান্না করেছিলাম। কেন যেন তেমন ভালো লাগেনি। অনেকটা কলাগাছের ভিতরের সাদা অংশ আনাজের মতই কচ কচ করেছিলো। হয়তো আমার অনভ্যাসের জিভ এটার স্বাদ নিতে পারেনি। :p

    Like

  9. হাঁসের মাংসটা রান্না করা হয়নি কোনদিন। এবার সাহস করে রেঁধেই ফেলব ভাবছি।

    আপনার ব্লগে বেশ আসা হত সাহাদাত ভাই। নিজস্ব ব্লগ না থাকায় কমেন্ট করা হত না।

    Like

  10. হাহাহাহা…
    আমি আপনার রান্নার মহা ফ্যান। নিজে তো তেমন কিছু পারি না। তাই কাউকে ভাল রাঁধতে দেখলে খুব ভাল লাগে।
    ইনশাআল্লাহ আপনাদের কাছে থেকে কিছু শেখা হয়ে উঠবে।

    Like

  11. পিংব্যাকঃ রেসিপিঃ হাঁসের গ্রিল কাবাব (প্রিয় বন্ধু আদনান রনি ভাইকে) | রান্নাঘর (গল্প ও রান্না)

  12. পিংব্যাকঃ রেসিপিঃ হাঁসের গ্রিল কাবাব (প্রিয় বন্ধু আদনান রনি ভাইকে) | রান্নাঘর (গল্প ও রান্না)

  13. পিংব্যাকঃ রেসিপিঃ হাঁসের গ্রিল কাবাব (প্রিয় বন্ধু আদনান রনি ভাইকে) | OntoreBangladesh

  14. হাঁসের মাংস খুবই কম খাওয়া হয়েছে। সংসার শুরু করার পর একবার রান্না করলাম। হাঁসের চামড়া হলো আসল জিনিস। আমাদের ফেনীতে শীতকালে হাঁসের ঝোল দিয়ে চালের গুড়ার খোলা পিঠা খাওয়া হতো। যা দারুণ!
    শ্বশুরবাড়ির এক আত্মীয়ের বাসায় হাঁসের মাংস ভাজা খেয়েছিলাম। আমার মনে হয়েছে হাঁসের মাংসের ঘন ঝোলটাই বেস্ট।
    যারা তরকারিতে নারকেল খান, তারা হাঁস নারকেল আর কাঁচামরিচ দিয়ে রান্না করেন বলে শুনেছি।
    এবার শীতেও হাঁস খাওয়ার পরিকল্পনা ছিল কিন্তু বাজারে তো বেছে দেয় না। পালক পরিস্কার করার ভয়ে খাওয়া হচ্ছে না।

    Like

    • ধন্যবাদ বোন।
      আসলে হাঁস এর মাংস জীবনে কমই খাওয়া হয়, সাবার। আমিও কতবার খেয়েছি গুনতে পারব! আপনার অভিজ্ঞতার সাথে আমাদের অভিজ্ঞতা মিলে যায়।

      হাঁসের একটা কাবার করেছিলাম, আশা করি তা দেখে নেবেন। আমার কাছে এই কাবাই বেশী ভাল লেগেছিল। এশিয়ার অনেক দেশেই হাঁস প্রিয় খাবার।

      স্বপ্ন বা আগোরা টাইপের দোকানে বেশ ভাল করে পালক পরিস্কার করা অবস্থায় কিনতে পাওয়া যায়। মন চাইলে একবার চেষ্টা করে দেখতে পারেন।
      http://wp.me/p1KRVz-nx

      তবে ছোট বেলায় শ্রীমঙ্গলের রাজ হাঁস খাওয়ার কথা এখনো ভুলতে পারি না। আমার সিলেটি খাল্লাম্মা বেশ মজা করে রাজ হাঁস রান্না করতেন।

      আর একটা কথা হচ্ছে, আজ বিরিয়ানির সহজ একটা রেসিপি দিয়েছি। কেমন হল, না কিছু ভুল হল তা আশা করি জানাবেন।
      http://wp.me/p1KRVz-y7

      শুভেচ্ছা থাকল।

      Like

  15. আপনার হাঁস রান্নার রেসিপি পড়ার পর মাথার ভেতর হাঁস ঢুকে গেল। ‌’অগোরা’ থেকে কাল একটা হাঁস কিনলাম। ভালোমতো পরিষ্কার করা হলেও চামড়ার ভেতর কয়েক জায়গায় পালক দেখলাম। এসব সাফ করার নিশ্চয় কোনো পদ্ধতি আছে। কিন্তু তা জানা নেই বলে কেটে ফেলে দিয়েছি।
    ঝাল ঝাল করে রান্না হাঁসের মাংস খেতে বেশ লাগলো।

    Like

  16. জ্বি উদরাজি ভাই, দুলাভাই পছন্দ করেছেন। উনি অবশ্য মুখে কিছু বলেন না, খাওয়া দেখে বুঝে নিতে হয়।

    Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s