গ্যালারি

রেসিপিঃ প্রায় মশলা বিহীন মিক্স সবজী


বোন পরমা মিত্র, আকাশী খাতার রোদ রঙা পাতা। বেশ ভাল কবিতা লেখেন। আর কবি মাত্রই বেশ রোমান্টিক! তার ছবি দেখে এটাও বুঝা যায়। আমি যতদূর ধারনা করি তিনি কলকাতার মেয়ে থাকেন দিল্লীতে। তবে তিনি আমার কাছে একজন বেশ প্রিয় মানুষ কারন তিনি আমার রেসিপির একজন ভাল পাঠক। আর আমি এটা বুঝি তার কমেন্ট দেখে।

আজকের আমার এই রান্নাটা আমি এই কবিকেই দিতে চাই। কবি রুটি দিয়ে এই সবজী খেয়ে কি বলেন তা জানতে পারলে মনে শান্তি পেতাম! প্রথমেই বলে নেই, এটা প্রায় মশলা বিহীন একটা রান্না। প্রায় কথাটা এই জন্য যে, শুধু সামান্য হলুদ ব্যবহার করা হয়েছে রং ভাল দেখাবার জন্য। চলুন দেখে ফেলি…।

প্রয়োজনীয় উপকরনঃ (উপকরণের অনুমান আপনি নিজেও করে নিতে পারেন)
– নানা পদের সব্জি এক কেজি (আপনার যা যা ইচ্ছা)
* আমরা কুমড়া (এটা হলে ভাল জমে), বেগুন, আলু, চিচিংগা ও পুঁইশাক নিয়েছিলাম।
– হাফ চা-চামচ হলুদ
– এক চা চামচ পাঁচ ফুরন
– লবণ (স্বাদ মত)
– পরিমাণ মত তেল/পানি

প্রণালীঃ (ছবির ধারাবাহিকতা দেখেই আশা করি আপনারা বুঝে যাবেন)

নানা পদের সবজি কেটে ধুয়ে রাখুন। শাক জাতীয়টা একটু আলাদা করে রাখতে হবে।


কড়াইতে তেল নিয়ে তাতে পাঁচ ফুড়ন দিয়ে ভাঁজতে থাকুন।


শাক ছাড়া বাকী সবজী গুলো গরম তেলে দিয়ে দিন।


ভাল করে মিশিয়ে এবার হলুদ গুড়া ছিটিয়ে দিন।


ভাল করে মিশিয়ে নিন এবং প্রয়োজনীয় লবণ পরিমাণ মত দিন।


এক কাপ পানি (দেখে বুঝে) দিয়ে ঢাকনা দিয়ে রাখুন মিনিট ২০শেক।


শক্ত সবজী গুলো নরম বা মজে গেল কিনা দেখে নিন।


নানা পদের সবজি ভেঙ্গে যায় নাই কিন্তু গলে গেছে এমন অবস্থায় তুলে রাখা পুঁইশাক দিয়ে দিন।


ভাল করে মিশিয়ে নিন। এবং কিছুক্ষণ আবারো ঢেকে রাখতে পারেন। শেষের দিকে আবারো লবণ দেখুন, লাগলে দিন না লাগলে ওকে বলুন।


ব্যস পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।


একবার বানিয়ে দেখুন। এত সোজা আর কোন রান্না হতে পারে না! কিন্তু স্বাদে…। আমি কি বলব, আপনিই বলুন।

তবে দেখা যাক, কবি পরমা মিত্র নিজে রান্না করে খেয়ে বলুন কেমন হয়েছিল? আমি মনে করি কবিরা কখনো মিথ্যা বলেন না বা বলতে পারেন না।

(রেসিপি প্রিয় পাঠক/পাঠিকা, সবাইকে শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। ইচ্ছা ছিল দিনে একটা করে রেসিপি পোষ্ট করব কিন্তু হাতে এত রেসিপি জমে আছে যে, শেষ করা দুরহ হয়ে পড়ছে। তাই কোন কোনদিন বেশী রেসিপি পোষ্ট হতে পারে, আশা করি মনে কিছু নেবেন না। মাঝে মাঝে আবার এটা চিন্তা করি, যত তাড়াতাড়ি যত বেশী রেসিপি নেটে তুলে দিতে পারব ততই ভাল হবে। সেই চিন্তাতেই এখন একটু বেশী রেসিপি। আবার এও জানি একদিন আর কোন রেসিপি দিতেই পারব না! ওপার থেকে কি নেটে প্রবেশ করা যাবে? কিংবা বেঁচে থাকলেও কি নেটে লিখতে পারব!)

Advertisements

17 responses to “রেসিপিঃ প্রায় মশলা বিহীন মিক্স সবজী

  1. আমাদের মত বয়সের জন্য এই খাদ্যই উপযুক্ত!

    Like

    • হা হা হা… হুদা ভাই যর্থাত বলেছেন! বয়স মানুষের জীবনে বিরাট একটা ব্যাপার। আমি আগে এটা বুঝতে পারতাম না… এখন বুঝি। নানা রোগ শোক দেহে বাসা বেঁধে নিচ্ছে। উপায় খুঁজে পাচ্ছি না…।

      তা একদিন আসুন না, একসাথে রাস্তার ধারে চা পান করি…।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  2. ও দাদা, করেছেন কি? আমার জন্য এত্ত ভালো একটা রান্না?? আমাকে একটা গোটা রান্না দিলেন? এ আমি ভুলি কি করে? আমি আপ্লুত দাদা। তবে আমি বাড়ি গেলে মাকে বলব করে দিতেই এইটে। আমি কলকাতা থেকে অনেক দূরের একশহরে এখন হস্টেলে থাকি তাই বানাতে পারি না। তবে কালেভদ্রে এখানের রান্নাঘরেও এক্সপেরিমেন্ট করে থাকি, সেরম সু্যোগ এলেই করবই করব এটা। ( আর একটা কথা চুপিচুপি বলি, আমি আমার বাড়ির এবং গোটা বাঙ্গালি সমাজের মনে হয় কলঙ্ক কারন আমি ভেজিটেরিয়ান), তো আপনার এই রান্নাটা যে আমার কতটা ভালো লাগবে সে খাবার আগেই বুঝে নিন । আর এরম কম মশলার মিক্সট ভেজিটেবিলের রান্না পেলে তো ইল্ললুসসসস। অসংখ্য ধন্যবাদ আপনাকে ও বৌদিকে। খুব ভালো থাকুন ।

    Like

    • ধন্যবাদ কবি।

      আমি আগেই অনুমান করেছিলাম আপনি ভেজিটেরিয়ান হবেন! আর সেজন্যই এমন একটা রান্নার কথা আমি এবং আমার ব্যাটারী ভেবেছিলাম। সমপূর্ন আপনাকে মাথায় রেখেই এই রান্না করা হয়েছিল। খাবার সময় আপনার বৌদি বলছিলেন, যাকে মনে করে এই খাবার তিনি এখন কি খাচ্ছেন? খাবারের সময় বিরাট হাসাহাসি! বেশ মজাদার রান্না হয়েছিল, আমি শুধু এটা দিয়েই খাবার শেষ করে ছিলাম।

      আশা করি বানিয়ে একদিন বন্ধুদের খাইয়ে দেবেন। দেখবেন ওরা আপনাকে কি সন্মান করে! রান্না আসলে একটা বিরাট শিল্প। জানলে ভাল শিল্পী হওয়া যায়!

      আশা করি, আগামীতেও সাথে থাকবেন। আপনিও ভাল থাকুন।

      শুভেচ্ছা আবারো।

      Like

  3. দারুন!!! তবে একটু আদা বাটা দিলে স্বাদ আরো বেড়ে যাবে।
    কবি পরমা মিত্রের বাড়ীতে নিশ্চয় এটাতে আদা দিয়েই রান্না করবে। 😀

    Like

    • ধন্যবাদ রান্নাতো বোন। কেমন আছেন? আমাদের ভাগিনা দেশে এসেছে? গত কিছুদিন অনলাইনে দেখতে পাইনি।

      ২য় বার আদা বাটার কথা মনে থাকবে। আদা কি মশলার মধ্যে পড়ে? হা হা হা… কোন মশলা ছাড়াই কোন রান্না আছে আপনার ভাণ্ডারে? থাকলে জানান। গত কিছু দিন আগে দেখলাম এমন মশলা ছাড়া রান্না নেটে অনেকেই খুঁজে থাকেন। আশা করি আমরা এই ধরনের রান্না দিতে পারলে অনেকেই উপকার পাবেন।

      শুভেচ্ছা নিন। অপেক্ষায় থাকলাম।

      Like

  4. এই গরমে শশা দিয়ে আমি একটি নিরামিশ রান্না করি।

    শশা টুকরো করে কেটে নিবেন। কড়াইতে তেল দিয়ে শশার টুকরো ছেড়ে একটু নেড়েচেড়ে লবন, ও অল্প আদাবাটা দিয়ে কষিয়ে অল্প আচে ঢেকে রাখবেন। শশা থেকে পানি বের হবে। তবুও যদি দরকার হয় অল্প পানি দিবেন। শশা সিদ্ধ হয়ে মাখা মাখা হয়ে গেলে কয়েকটি কাঁচামরিচ ও ১ চামচ ঘি দিয়ে নামিয়ে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করবেন।

    খেয়ে জানাবেন কেমন লাগলো।

    না ভাই, ছেলে এখনো আসেনি। মনটা ভিষন বিষন্ন হয়ে আছে মা ছেলে দুজনেরই। 😦

    Like

    • ধন্যবাদ আপা, এমন একটা অসাধারণ সহজ রান্নার রেসিপি দেবার জন্য। আমি এই সাপ্তাহেই এটা বানিয়ে খেয়ে দেখব এবং যথারীতি রেসিপি পোষ্ট। হা হা হা…

      শসা ছোট না বড়। কচি না বাত্তি। আমি যতদূর দেখেছি বাত্তি শশা দিয়ে তরকারী রান্না ভাল হয়। আমি গরু ও শসার একটা তরকারী খেয়েছি এবং তার রেসিপি আছে। এখনো পোষ্ট দিতে পারি নাই।

      শসার তরকারী আমি ভাল পাই। শুভেচ্ছা আবারো রেসিপির জন্য।

      Like

  5. প্রতিদিন একটি কেন, দশটি করে রেসিপি দিলে লাভের লাভ আমাদেরই।
    তাই আর কখনও এসব বলবেননা।

    এত চমৎকার একটি পুষ্টিকর রেসিপি দিলেন, যা কিনা জরুরী সকলের জন্যই।
    শুভ কামনা প্রিয় সাহাদাত ভাই।

    Like

  6. আজকে এটা নিজে নিজে অনেক কায়দা করে শেষ মেশ করেই ফেলেছি। খেতে আমার তো ভালোই লেগেছে খুব (নিজে রেঁধেচি বলে নয়, রসিপিটা আমার দাদা-বৌদির বলেই) আর বাকি সক্কলে যখন ফেলে কিছু রাখেনি তখন তাদেরও ধারনা তাই। আপনাকে আর বৌদিকে তাই খাওয়া শেষ হতেই জানাতে এলাম। অনেক অনেক আন্তরিক শুভেচ্ছা।

    Like

    • হা হা হা…।।
      আপনি নিরামিষ ভোজী এটা আমি বুঝতে পেরেই এমন রেসিপি দিয়েছিলাম। এখন মনে শান্তি পাচ্ছি যে, আপনি এটা রান্না করেছেন। তবে রান্না করে নিজে নিজে খেলে চলবে না। রান্না করে আশে পাশের কয়েকজন বন্ধুকে ডেকে নিয়ে আসতে হবে! খেয়ে ওরা কি বলে সেটাই কথা…।। হা হা হা।।

      শুভেচ্ছা ও আমাদের আন্তরিক ভালবাসা গ্রহণ করুন। আমরা আপনার সাথেই আছি।

      Like

      • বন্ধুদের সঙ্গেই একসাথে খেয়েছি, সেই জন্যেই তো বল্লুম কিচ্ছুটি ফেলে রাখেনি কেউ মানেই বুঝে নিয়েছি ভালোই হয়েচে 😀

        Like

      • বন্ধুদের সঙ্গেই একসাথে খেয়েছি, সেই জন্যেই তো বল্লুম কিচ্ছুটি ফেলে রাখেনি কেউ মানেই বুঝে নিয়েছি ভালোই হয়েচে 😀
        আপনাকে রাখী বন্ধন উৎসবের অনেক অনেক শুভেচ্ছা জানিয়ে গেলাম সেই সঙ্গে। খুব ভালো থাকুন দাদা, আর সেই সঙ্গে খুব ভালো রাঁধুনও 😀

        Like

  7. পিংব্যাকঃ রেসিপিঃ চিচিঙ্গা পটল মিক্স (আমার ফেবারেট) | রান্নাঘর (গল্প ও রান্না)

  8. পিংব্যাকঃ রেসিপিঃ চিচিঙ্গা পটল মিক্স (আমার ফেবারেট) | রান্নাঘর (গল্প ও রান্না)

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s