গ্যালারি

খাবার দাবারঃ চট্রগ্রাম ২


খাবার দাবারঃ চট্রগ্রাম ১ লেখায় আমি বলেছিলাম বাসার খাবার দাবারই উত্তম। বয়স বাড়ার সাথে সাথে এই উপলব্ধিটা যেন আরো বাড়তে থাকে। বাসার বাইরে খেলে শরীর আর মানতে চায় না। অথচ প্রায় একি রকম খাবার বাসায় খেলে বেশ আরাম বোধ হয়। আমি সব সময়েই বাসার খাবার অগ্রাধীকার দেই। বাংলাদেশে মানুষ ঠেকায় পড়ে কিংবা মাঝে সাঁঝে হোটেলে খান। আমাদের দেশের হোটেল গুলো এখনে সভ্য এবং ভাল সার্ভিস দিতে শিখেনি। হোটেল ব্যবসাহীরা মনে করে, যে আজ খাবে সে আর কোন দিন আসবে না, সুতারাং তার সাথে যা খুশি করো! যাই হোক আমাদের কোপাল ভাল যে, আমাদের প্রতিদিন বা দিনের পর দিন হোটেলে খেতে হয় না।

আপনারা যারা আমার সাথে আছেন তারা জানেন যে, আমি গত কিছুদিন আগে চট্রগ্রাম বড়ভাইয়ের বাসা থেকে বেড়িয়ে এসেছি। কম সময়ে অনেক ঘুরাঘুরি করে নিয়েছি। যাই হোক খাবার দাবারঃ চট্রগ্রাম ১ এ বলেছিলাম আমার বড় ভাবীর রান্নার সাথে আপনাদের পরিচয় করিয়ে দেব। আজ সেই চেষ্টা। ভাবী চমৎকার ভাল রান্না করেন। একদিন শুক্রবারে দুপুরের আগে তিনি খুব কম সময়ে এই রান্না গুলো করেছিলেন। কম সময়ে ভাল রান্না এটা বিরাট সুন্দর গুন। চলুন ছবি দেখা যাক।


ফ্রাইড রাইস


ভেজিটেবলস


চিকেন সসেস


চিংড়ী ভুনা


বিফ ভুনা (ছবিটা ভাল তুলতে পারি নাই)


কাবাব।


লেবু শসা না হলে কি খাবার জমে!


ভাল খাবার বেশী পেলে দেখার মজাও আছে… কি দিয়ে শুরু করা যায়!


আমি সব একসাথে নিয়েই বসে পড়েছিলাম! বেশ মজাদার খাবার।


আমার ভাতিজী চমৎকার গান গায় কিন্তু দূরে থাকার কারনে কখনো শুনা হয় নাই। এবার তার গান শুনে একটা আলাদা আনন্দ পেলাম। আশা করি একদিন সে অনেক বড় হবে। কোন জ্যোৎস্না রাতে গ্রামের বাড়ীতে আমরা সবাই আবারো ওর গান শুনব।

Advertisements

6 responses to “খাবার দাবারঃ চট্রগ্রাম ২

  1. এ সব আহামরি খাবারের ছবি দেখার পরে আজ দুপুরে বাসায় যা খাবো, তাই-ই মনে হবে অখাদ্য! আহা, ছবি যদি খাওয়া যেত, কী ভালোই না হতো তা’হলে!!

    Like

    • হা হা হা…। ধন্যবাদ হুদা ভাই।
      গত কয়েক দিন নেট ভাল না পাওয়ায় সমস্যা চলছিল। আপনি মোবাইল সিম থেকে ব্রাউজ করেন, আপনার কেমন ছিল?

      হা, মাঝে মাঝে এমন মনে হয় যদি ছবি বাস্তব হত…।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  2. bangalir asol culture ki bangaladeshe boddho hoe aache, na eta charie ache sara biswamoy

    Like

    • ধন্যবাদ জ্ঞানেশ ভাই, আপনার কমেন্ট দেখে খুশিতে মন ভরে গেল। সামান্য চেষ্টা করে যাচ্ছি মাত্র। আসলে দেশ বিদেশে আমরা যারা আছি, যদি তাদের কিছু কাজে লাগে।

      আশা করি মাঝে মাঝে দেখে যাবেন। কোন পরামর্শ থাকলে জানালে খুশি হব।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  3. খাবারগুলো যে অসাধারণ সুস্বাদু হয়েছে তা ছবি দেখেই বোঝা গিয়েছে।
    আর শুভকামনা রইল ছোট্ট ভাতিজির জন্য।

    Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s