গ্যালারি

রেসিপিঃ আখাউড়ার ছিটা পিঠা


আমার শশুরবাড়ী ব্রামনবাড়ীয়ার আখাউড়ায়। ভারত সীমান্ত এলাকা, শশুরবাড়ী থেকে কুক দিলে ভারতে শুনা যায়! বিবাহের প্রায় চৌদ্দ বছর পার হলেও আমি একবার গিয়েছি মাত্র। আগামী মাসে আর একবার যাব বলে স্থির করেছি। আখাউড়ার অনেক নামডাক হলেও আমার কাছে এই এলাকাকে এখনো তেমন উল্লেখযোগ্য এলাকা মনে হয় না। মানুষজন এখনো তেমন শিক্ষিত হয়ে উঠতে পারে নাই।

সীমান্তবর্তী বলে মাদকের ছোঁয়া এত বেশী যে, ঘরে বসেই নানান মাদক দ্রব্য হাতের কাছে পাওয়া যায় আর এই কারনেই এই এলাকার ছেলে মেয়েরা তেমন একটা উন্নতি করতে পারে নাই। সামান্য কিছু লোক ধনী, বাকীরা এখনো গরীবই রয়ে গেছে। পড়াশুনায় এই এলাকার লোকজনের মন আছে বলে আমার মনেই হয় না! বিরাট রেলজংশন থাকার কারনে এই এলাকার মানুষজন আরো বেশী ধুর্ত এবং চালাক কিন্তু কাজের কাজ কিছুই নয়।

সে যাই হোক, অনেকে আবার বলতে পারেন, শশুরবাড়ী এলাকার বদনামী করছি। আসলে যা সত্য তাই লিখে দিলাম। আমার নিজের চোখে যা ধরা পড়েছে! যাক গল্প আর না টেনে, এই এলাকার একটা পিঠার কথা আজ লিখি। আমার স্ত্রীর মুখে শোনা, এই পিঠার নাম – ছিটা পিঠা। এই নামেই এই পিঠা এলাকায় পরিচিত। আমার স্ত্রী পোথা বানাতে চান না কিংবা বানান না। একদিন বাসায় বানিয়েছিলেন এবং আমি তা টুকে রেখেছিলাম। খুব সহজ ও সাধারণ, পানির মত! আখাউড়া গেলে নাকি জামাইদের সকালের নাস্তা হিসাবে এই পিঠা মুরগী কিংবা গরুর গোশতের ভুনার সাথে পরিবেশন করা হয়। জামাই বাবাজীরা খেয়ে নিশ্চয় বলেন, ওয়াও! আমার কাছেও ভাল লেগেছিল।


এককাপ চালের গুড়ার সাথে একটা মুরগীর ডিম মিশিয়ে/মাখিয়ে গরম পানি এবং পরিমাণ মত লবণ দিয়ে একটা তরল খামির বানানো হয়।


পুরানো কড়াই কিংবা নন ষ্টিকি প্যানে সামান্য তেল দিয়ে মুছে কড়াই গরম করে নিয়ে তাতে হাত দিয়ে খামির নিয়ে ছিটিয়ে ছিটিয়ে দিতে হয়।


এমন করে নিতে হয়। প্রথম প্রথম খামির ছিটাতে ভুল হতে পারে, তাই লক্ষ করে।


খুন্তি দিয়ে অর্ধেক ভাজ করে উল্টে দিতে হবে। দুই পাশ থেকে।


তার পর আর একটা ভাজ করা যেতে পারে।


ব্যস প্লেটে তুলে নিন। পরিবেশনের জন্য প্রস্তুত।


বেশ ফুরফুরে এবং হালকা। চমৎকার। এত সহজে কোন পিঠা বানানো যায় তা না বানিয়ে দেখলে বুঝতে পারবেন না!

আগামী মাসে বেড়াতে গেলে এই অঞ্চলের আর কিছু পিঠা বানানো দেখে ও খেয়ে আসব। জামাই বাবাজীর জন্য তো কিছু পিঠা বানাতেই হবে!

কৃতজ্ঞতাঃ মানসুরা হোসেন

Advertisements

29 responses to “রেসিপিঃ আখাউড়ার ছিটা পিঠা

  1. দারুন আউডিয়া! নিশ্চয়ই খেতে মজার হবে…

    Like

  2. শ্বশুর অঞ্চলের বদনামও করবেন আবার সেখানে বেড়াতে গিয়ে পিঠে ( পিটা নয় তো? ) খাওয়ার আশাও করবেন? হা হা হা। সিলেটেও এটাকে ছিট পিঠা / ছিট রুটি বলে। আর হাসের মাংস বা যে কোন মাংস দিয়ে খাওয়া হয়।

    Like

  3. আমরা এটিকে বলি চাপটি।
    খুব প্রিয় একটি পিঠা আমার। মাংস দিয়ে খেতে এর স্বাদের জুড়ি নেই।
    ভাল লাগলো সাহাদাত ভাই।

    Liked by 1 person

  4. চট্টগ্রাম এটাকে “হাত ঝারা” পিঠা বলা হয়। অবশ্য এতে ডিম মেশানো হয় না।

    Like

  5. কিছুই আপনার ঈগল-চোখকে ফাঁকি দিতে পারেনি দেখছি! সমস্ত জীবনে কেবল একবারই আখাউড়া গিয়ে (ভাগ্যিস, একবারই গিয়েছেন, বারবার গেলে কী হত এটা ভেবে শিউরে উঠতে হয়) আপনি আখাউড়া সম্বন্ধে যে বর্ণনা দিয়েছেন, বিশদ লিখেছেন তা আপনার বিপুল জ্ঞানের সামনে আমাদেরকে দাঁড় করিয়ে দেয়।

    Like

    • ধন্যবাদ আলী মাহমেদ ভাই, সালাম। আপনার এই কমেন্ট দেখে আপনার জন্য একটা নুতন রেসিপি লিখে ফেললাম। আশা করি দেখে আসবেন। আখাউড়া নিয়ে আমার আরো কথা আছে, আমি লিখতে চাই। কিন্তু সাহসে কুলায় না। হা হা হা…
      http://wp.me/p1KRVz-nP
      আশা করি দেখে আসবেন। শুভেচ্ছা থাকল।

      Like

  6. সালাম কেমন আছেন আমি সাংবাদিকে সাদ্দাম বলছি ।
    আখাউড়া হইতে আপনার শশুর বাসা কোথায় বলবেন।

    Like

  7. আমাদের এলাকায় এই জিনিষ নেই। তবে আমার ছেলেমেয়ে যখন ছোট ছিল,মাঝে মাঝে পিঠা খাওয়ার বায়না ধরলে এমন জিনিষ বানিয়ে দেওয়া হতো। আটার গুলা ছিটিয়ে যে রুটি বানানো হয়, তার নাম ছিট রুটি। এটাকেই পিঠা বলে চালানো হতো। খেতে খারাপ না। তবে বেশ ফাঁকি দিয়ে মজার জিনিষ খাইয়ে দেওয়া!!

    Like

  8. আমার সবচেয়ে প্রিয় খাবারগুলোর মধ্যে একটি।

    শীতের ভোরে আগুন গরম হাত ঝাড়া পিঠা (চাটগার দিকের মানুষেরা এই নামেই বলে) আর গরম চা কিংবা গরুর গোসত ভুনা …উফ, আর কি লাগে !

    Like

  9. amader elakay (Madaripur) eta kobutor vuna diye jonoprio (ekhn obosso eta khub ekta khayna) amar kace veb valo e lage 😀

    Like

  10. আখাউড়ার বনর্না যা দিয়েছেন আংশিক সত্য। নেগিটিভ বিষয়গুলো হাইলাইটস করেছেন বেশি । আখাউড়ার পজিটিভ বিষয়ও আছে যা আপনার চোখে পড়ছেনা । শ্বশুড় শ্বাশুড়ি ও স্ত্রীর প্রতি শ্রদ্ধাবোধের অভাব থেকেই এরকম মূল্যায়ন হতে পারে। মাদক, বখাটে সারাদেশেই আছে সিলেটেও কম বেশি আছে । বর্ডার কাছে হওয়ায় মাদক রুট হিসাবে আখাউড়া ব্যাবহৃত হচ্ছে। মাদকের ভোক্তা শহুরে লোকের সংখ্যা বেশি। আখাউড়ায় সিলেটের ছেলেরাও আসে মাদক খেতে। বদনামটা হয় আখাউড়ার।

    Like

  11. আপনাকেও ধন্যবাদ, আশা করি ভবিষ্যতে পজেটিভ লিখে ব্যালেন্স করে দিবেন। আপনার শুভ কামনা করছি।

    Liked by 1 person

  12. পিংব্যাকঃ রেসিপিঃ ধনিয়া পাতায় চিংড়ী ভুনা (আমাদের সেরা ব্লগার আলী মাহমেদ ভাইয়ের জন্য) | রান্নাঘর (গল্প ও রান্

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s