Gallery

বিফ বল বা মিট বল


লিখেছেনঃ সাহাদাত উদরাজী (তারিখঃ ৩ নভেম্বর ২০১১, ৩:৪১ অপরাহ্ন)

কোরবানীর ঈদ সমাগত। আর কয়েকদিন পরেই কোরবানীর ঈদ। গরু ছাগলের গোসত প্রায় পরিবারেরই থাকবে। এই সময় গোসত দিয়ে দুই একটা রেসিপি না থাকলে কি চলে। অনেকে আবার এই সময় গোসত দিয়ে নানা পদের রেসিপি বানান। চলে নানা ধরনের খানাপিনা। গরুর গোসত দিয়ে সাধারন ঝাল রান্না, শাহী রান্না (মশলা বেশী দিয়ে), ভুনা, কালা ভুনা সহ নানা ধরনের কাবাব ইত্যাদি অনেক করে থাকবেন।

আজ আমি ছোট একটা রেসিপি দিতে চাই। গরুর গোশত দিয়ে বল যা অনেকটা কাবাবের মতই। বিফ বল তথা মিট বল। ছোট সোনা মণিদের জন্য বিশেষ করে বানানো কারন ছোট সোনামনিরা গরুর সাধারন গোসত খেতে তেমন পছন্দ করে না। কিন্তু এই মিট বল খেতে পছন্দ করবে তবে একান্ত শুধু তাদের জন্য বানালে কাঁচা মরিচ কম দিতে হবে। চলুন দেখা যাক। খুবই সহজ এবং সাধারন রান্না!


কেজি খানেক গরুর গোসত কিমা করে নিন। তাতে আপনার আন্দাজ মত পেঁয়াজ কুচি, হাফ চামচ আদা বাটা, সামান্য হলুদ, সামান্য মরিচ গুড়া, সয়া সস, রেড সস, টমেটো সস (পরিমান মত) ও লবন দিয়ে দিন।


এই পর্যায়ে দুই তিন টুকরা পাউরুটির (চার পাশ ফেলে) কাই করে নিন এবং ভাল করে মিশিয়ে ফেলুন।


ভাল করে মলে মিশিয়ে এবার হাতে হাতে বল বানাতে থাকুন।


ব্যস তার পর হালকা গরম তেলে ভেজে ফেলুন। আপনার ইচ্ছা মত ভাজুন হয় কড়কড়া নতুবা হালকা।


হয়ে গেল বিফ বল বা মিট বল! পরিবেশনের জন্য রেডি।

বেলার খাবার হলে গরম ভাতের সাথে নতুবা নাস্তা হিসাবে সকাল বিকালে আলু চিপসের পরিবেশন করতে পারেন। আমি নিশ্চিত পরিবারের সবাই আপনার কাজের প্রশংসা করবে। আর প্রশংসা পেতে কার না ভাল লাগে! ঈদে যেহেতু গোশতের অভাব নাই, আপনাকেও কেহ কিছু বলবেও না, একটা এক্সপেরিমেন্ট করেই দেখুন না!

Advertisements

3 responses to “বিফ বল বা মিট বল

  1. vaia, gorur gosto diye kima banay kivabe?? shiddho kore kuchi kore kate .. naki shiddho kore pata putay batey?

    Like

    • ধন্যবাদ আপনাকে।
      কাঁচা গোস্তকে ভাল করে মিহি করে কুঁচিয়ে নিলেই কিমা হয়ে যায়, এটা যারা কসাই তারাই ভাল করতে পারে।

      এছাড়া আপনার কাছে বড় ব্লান্ডার (মিয়াকো বা অন্য কোন ব্যন্ডের) থাকলে সেখানে চপার বলে একটা গোসত কাঁটার বা মিহি করার পট/মেশিন থাকে, সেটা দিয়ে কিমা করতে পারেন।

      কসাইকে বললেও সে করে দিবে, ওদের রাম দা ভাল।

      সিদ্ব করলে কিমা করা যাবে না।

      শুভেচ্ছা।

      আশা করি বুঝতে পেরেছেন।

      Like

  2. ব্লেন্ডার এর যে অংশ দিয়ে মশলা গুড়ো করা হয় সেই অংশ দিয়ে আমি গোশত কিমা করি । তারপর এভাবেই মিটবল করেছিলাম তবে সস ব্যবহার করিনি । পরের বার করলে সস ব্যবহার করবো ।

    Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s