Gallery

করলা ভাজি


সাধারন খাবারের মাঝে ‘করলা ভাজি’ আমার ফেবারেট, সুস্বাদু করলা ভাজি হলে আর কিছু লাগে না। গতকাল বাজার থেকে করলা কিনে ওয়াইফকে বললাম, আমি নিজে আজ করলা ভাজব! আমি রান্নাঘরে গেলে কেন জানি আমার ওয়াইফ ভীষন খুশি হয় (নানা বিধ হেল্প করে)। চুপিচুপি আপনাদের বলি, করলা ভাজির রেসিপিটা আমি গত সপ্তাহে সুরঞ্জনা আপা থেকে সংগ্রহ করে নিয়েছিলাম। চলুন ছবিতেই দেখে ফেলি। খুব সহজ রান্না, কিন্তু অত্যান্ত সুস্বাদু। বিশেষ করে আমার করলা ভাজির তারিফ আমার ওয়াইফ করেছে, তা হলে বুঝুন! আসলেই, অনেক স্বাদ হয়েছিল।


করলা ভাল করে ধুয়ে পানি শুকিয়ে নিন। কেটে ফেলার পর আর ধোয়া চলবে না।


করলাকে মডেল বানিয়ে হালকা একটা ফটোসেশন করতে পারেন।


আমার ব্যক্তি মডেলকে রাজী করাতে আমার জান শেষ হয়েছিল। করলার সাথে ছবি – অসম্ভব!


যেভাবে ইচ্ছা কেটে নিন। পুনিমার চাঁদের মত কিংবা অর্ধচন্দ্রের ন্যায়।


ইচ্ছা হলে ছুরি কিংবা চপার ব্যবহার করতে পারেন।


খুব সহজ রেসিপিঃ কড়াইতে পরিমান মত তেল ঢেলে কাটা করল্লা এবং পরিমানমত পেঁয়াজ কেটে ছেড়ে দিন। পরিমান মত লবণ দিতে ভুলবেন না। (আর যারা একটু হলুদ রঙ চান তারা সামান্য হলুদ দিতে পারেন)


কাঠের খুন্তি ব্যবহার করবেন, ধাতব খুন্তি ব্যবহারে তিতা হয়ে যেতে পারে।


ঝরঝরে ভাজা চাইলে ঢাকনা দিবেন না, আর ঢাকনা দিলে পানি জমে ভিজে ভাজা হতে পারে। আপনার ইচ্ছা।

এবার সব সাজিয়ে বসে পড়ুন। অন্য তরকারী থাকলে সব নিয়ে সাজিয়ে ফেলুন।

চিংডি মাছ, ডাটা আর আলু

বাচ্ছাদের জন্য মুরগী ফ্রাই। এটা ওদের আবদার ছিল।

পুরানো তরকারী গরম করে নেয়া।

সাজিয়ে আমার স্বাদের করলা ভাজি।

আজকের খাওয়া অনেক মজার ছিল।

যারা কারো ভাল করে করলা ভাজি করতে চান তাদের জন্য সুরঞ্জনা আপার লিখাটা হবহু তুলে দিলাম।

৩০ এপ্রিল ২০১১, ৮:১৭ অপরাহ্ন তারিখে সুরঞ্জনা বলেছেন
আমার রান্না করলা ভাজা অনেক মজা হয়। আপনিও করে দেখুন। :)

প্রথমে আস্ত করলা ধুয়ে নিবেন। পাতলা করে চাক চাক করে কেটে নিন। আমি অবশ্য ঐ চাকের মাঝে আবার কাটি। মাটে অর্ধ চন্দ্র আর কি!! :প :p :প :p আলু দিতে চাইলে পাতলা করে চারকোনা আকারে কেটে নিন। আলাদা করে আলু ধুয়ে করলার উপর দিন। ১টা বড় পেঁয়াজ আলুর মত টুকরো করে করলার উপর দিন। ৩/৪টা আস্ত বা ২ টুকরা করে নেয়া কাঁচামরিচ দিন। ননস্টিক কড়াই বা ফ্রাইপ্যান চুলায় দিয়ে পরিমান মত তেল দিন। তেল গরম হলে করলা( আলু, পেঁয়াজ সহ) ছেড়ে দিন। আন্দাজ মত লবন দিয়ে কাঠের চামচ বা হাতা দিয়ে নেড়ে চুলার আগুন কমিয়ে রাখুন। কিছুক্ষন পর পর ঢাকনা খুলে নেড়ে দিবেন। করলা, আলু সেদ্ধ কয়ে গেলে আগুন একটু বাড়িয়ে নেড়ে দিবেন। আপনি যদি লালচে করে খেতে চান তবে চুলার সামনে দাঁড়িয়ে থেকে করলাটাকে ভাজা ভাজা করে নামান। আর যদি একটু সবুজ সবুজ রঙ পছন্দ করেন তবে সেদ্ধ হলে নামিয়ে নিন।

সতর্কতাঃ করলা কাটার পর ধোয়া চলবেনা। আর লোহা বা পিতল মানে ধাতব খুন্তি ব্যাবহার করা চলবেনা। খুন্তি ব্যাবহারে করলা তিতা হলে আমার দোষ নাই। আর আমি করলা ভাজাতে শুধু পেঁয়াজ আর লবন ছাড়া আর কিছু দেইনা। ওহ!! হ্যা, তেল দেই।


সবাইকে নিয়ে একসাথে বসে খাবার মজাই আলাদা। আমি কিন্তু করলা ভাজি আর ভাত ছাড়া আর কিছু নেই নাই!

9 responses to “করলা ভাজি

  1. পিংব্যাকঃ রেসিপিঃ করলা ভাজি (ইয়া হাবিবী! বিলিভ ইট অর নট, ইট ইজ বেটার দ্যান চিকেন রোষ্ট!) | রান্নাঘর (গল্প ও রান্

  2. করলা ভাজির আর একটা রেসিপি এখানে আছে…
    http://wp.me/p1KRVz-qm

    Like

  3. পিংব্যাকঃ রেসিপিঃ করলা ভাজি (এত সহজ!) | রান্নাঘর (গল্প ও রান্না)

  4. via, apni khub sudor koray description den. portay khub valo lagay. ami apner rannar akjon vokto. valo thakben

    Like

  5. viea, amar rannar proti onak agrogo asay. ami valo koray ranna korar try kori. kintu khub je valo pari ta bolbo na,onak vul hoy rannay. tar por o chesta kori valo ranna korar. valo thakben.

    Like

    • ধন্যবাদ বোন।
      আসলে রান্না হচ্ছে একটা ভালবাসা। আপনি যার জন্য রান্না করছেন সেটা মনে রেখে রান্না করুন। একটু ধৈর্য দেখান, তবে রান্না ভাল হবেই। রান্না দিয়ে অন্য কোথায় চলে যাবেন না। রান্না ঘরেই থাকুন। ঝোল বানাতে সময় নিন, ঝোল স্বাদ এবং রং ভাল হলেই দেখবেন রান্না ভাল হয়েছে।

      যাই হোক, আশা করি আমাদের সাথে থাকবেন। মজার মজার রান্না করবেন।

      শুভেচ্ছা।

      Like

  6. thank you viea for ur valuable comment.

    Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s