ফেবু স্ট্যাটাস সমুহ


ফেইসবুকে আমি প্রতিনয়ত স্ট্যাটাস লেখে থাকি, যখন যা মনে চায় বা যা ভাবনায় আসে! আমাদের সমাজ, মানব জীবন বা এমন কিছুর চিন্তায় আমি সেই সব লিখে থাকি। ব্লগ লেখার পাশাপাশি নানান দেশের বন্ধু পাপ্তিতে আমার এই সকল স্ট্যাটাস বেশ কাজ দিয়ে থাকে। ভাবছি এই সকল স্ট্যাটাস একটা জায়গাতে রাখলে যারা এই সাইটে আসবেন তাঁরা পড়ে নিতে পারেন। ভাবনা চিন্তায় হয়ত মিল খুঁজে পেতে পারেন। পেইজ এডিট করে লেখা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার, ফলে ভাবছি এই পেইজ পোষ্টের কমেন্ট সেকশনে যখন যা মনে হয়, লিঙ্ক বা রেফারেন্স সহ তুলে দিব। নিজের জন্যও কাজে লাগবে, দেখতে পারবো, কোথায় কেমন চিন্তা করছিলাম! সবাইকে শুভেচ্ছা।

55 responses to “ফেবু স্ট্যাটাস সমুহ

  1. ধন সম্পদের ব্যাপারটা এমনি যে, একবার অর্জন করলে, সেটা বাড়াতেই মন চায়, কঠিন নেশা! নিজের, সন্তানদের, এমন কি সন্তানদের ছেলে মেয়ে (নাতিদের) কিংবা সন্তানদের ছেলে মেয়েদের (পুতি) ধনী হিসাবে রেখে যাবার একটা নেশা পেয়ে যায়। মানে, এমন একটা ভাব আসে যে, আমার উপার্জন দিয়ে যেন পরবর্তি ১৪গোষ্টি ধনী বা কিছু না করে খেয়ে পরে যায়! বিরাট চিন্তা! ক্ষমতাও এমনি একটা চিন্তার বিষয়! (২০১৯)
    ভাইয়েরা আমার, বোনেরা আমার! আপনারা যারা আমেরিকা, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া বা ইউরোপের নানান দেশে স্থায়ী হয়ে গেছেন, আপনাদের কাছে অনুরোধ, আপনারা বাংলা কবিতা, উপন্যাস লিখে বই বের করার ইচ্ছা থাকলে তা বাদ দিন, যেই দেশে আছেন সেই দেশের ভাষা কিংবা ইংরেজী ভাষা নিয়ে পারলে লিখুন! ফেব্রুয়ারী মাসে আপনারা প্রকাশককে টাকা দিয়ে বই বের করার যে একটা প্রবনতা দেখান বা করেন, তাতে রাষ্ট্র, সমাজ বা পাঠক কারোই লাভ হয় না, শুধু পকেট ভারী হয় প্রকাশকের, আর এই লোভের কারনে এখন অনেক প্রকাশক দেশের ভাল লেখকের সাথে কথাও বলেন না! সাহিত্যে আসলে অর্থের কোন স্থান নেই, অর্থ দিয়ে সাহিত্য হয় না! (২০১৮)
    বিবাহ দুনিয়ার একটা জনপ্রিয় শব্দ! বিবাহিত অবিবাহিত সবার কাছেই এই শব্দ দারুন পরিচিত। বয়স হলে বিবাহ করা একটা দায়িত্ব! ছেলে মেয়ে সবাই এই বিবাহের দিনে অনেক অনেক আনন্দ করে থাকে! শিশুরা অনেক অনেক আনন্দ করে, যুবক যুবতীরা সুযোগ খুঁজে এবং বুড়ো বুড়িরা বিবাহের এই যজ্ঞ দেখে শুধু হাসে! (২০১৫)
    ”https://www.facebook.com/udraji/posts/10213874213524430

    Like

  2. অনেক অনেক ভেবেছি গত কিছু দিন, আমি আসলে কি চাই! জ্বি, পেয়েছি! আমি চাই আমার চার পাশে মানে পরিবারে, কর্মক্ষেত্রে, সমাজে এবং রাষ্ট্রে ‘ন্যায় বিচার’ (ইনসাফ বা রাইট জাস্টিজ)। আমার সাথে যারা থাকবে আমি তাদের ন্যায় বিচার করবো এবং তারাও আমার সাথে ন্যায় বিচারের আসবে! অথচ বিশ্বাস করবেন কি না জানি না, সর্বত্রই এই ‘ন্যায় বিচার’ অনুপস্থিত, পাশাপাশি ‘ন্যায় বিচারের জন্য যে ন্যায় জ্ঞান’ দরকার সেটাও দেখতে পাই না!😁 (২০২০)
    ”https://www.facebook.com/udraji/posts/10213874637655033

    Like

  3. আমার কথা কেহ মাইন্ড খাইয়েন না! খোলা জায়গা, সারাদিন চিন্তা ভাবনার উপরে থাকি! কারো সাথে মিলে, কারো সাথে মিলে না! তার পর এখনকার দুনিয়াতে আমরা সবাই পন্ডিত নয়, মহাপন্ডিত! ফলে যদি আমার কোন পান্ডিত্যে খারাপ লাগে আমাকে ইগ্নোর করতে পারেন! আমি যা বলি কাউকে কষ্ট দেয়ার জন্য নয়, সত্য ও বাস্তব তুলে ধরার চেষ্টা করি। আপনার সাথে মিলে যায় বলে আপনি রাগ বা ক্ষোভে পড়তে পারেন না! আপনি নিজকে সেই চরিত্র থেকে মুক্ত করুন, ফলে অন্যরা আনন্দ পাবে, যারা আপনার সাথে থাকে বা আছে! একটা কথা, সব ভাল লেখা যায় না কিন্তু সব খারাপ লেখা দরকার কারন এটা আমাদের সমাজ, আমরা খারাপ নিয়ে এগিয়ে যেতে পারি না! অন্যদিকে সব কিছুর একটা ‘মানদণ্ড’ আছে, আপনি সেই দন্ডের উপর দিয়ে যাবেন না নীচে থাকবেন, সেটা আপনার ব্যক্তিগত ইচ্ছা, তবে জেনারেলাইজেশন হচ্ছে, আপনাকে সেই মানদণ্ড বুঝতে হবে! এটাই বাস্তবতা, এটাই জীবন! গায়ের জোরে মান্দার গাছ ঠেলবেন না, কাঁটা বিঁধবে! কিংবা দুনিয়ার সেরা গোলাপ ফুল, এই গাছেও কাঁটা আছে, তা বুঝতে হবে!

    রহমত সাহেবের জীবন নিয়ে একটা বিশাল ভাবনায় আছি, গল্পটা সাজিয়েছি মনে মনে, লিখতে সাহস পাচ্ছি না! রহমত সাহেবের সাথে যে আমার মিল হয়ে যাচ্ছে!😍
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10213895115486966

    Like

  4. ভালবাসা এমনই এক ব্যাপার যে, একবার ভেঙ্গে গেলে আর জোড়া লাগে না! তবে ভালবাসার ভান করে সারা জীবন কাটিয়ে দেয়া যায়, পাশাপাশি আমৃত্যু থাকা যায়! এই তো! কাজেই ভালবাসায় যত্ন নিন, সময় থাকতে নিজকে ভালবাসার পাত্র করে তুলুন! অন্যদিকে প্রাচীন গুরু লালন শাহ বলে গেছেন, সময় গেলে সাধন হবে না! আর আধুনিক গুরু শেফুদা বলেছেন, তোমার পাশে যে আছে, তাকে জড়িয়ে ধর এবং বল ‘আই লাভ ইউ!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10213906972823392

    Like

  5. জনশক্তি রাপ্তানী ব্যবসার সাথে জড়িত ব্যক্তিদের চেনার সহজ উপায়, উনারা শুক্রবারে খুব মাঞ্জা দিয়ে পাজামা পাঞ্জাবী ও খুসবু লাগিয়ে বের হয়ে নানান জায়গায় ঘুরে বেড়ান!
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10207030182947943

    Like

  6. যা লিখতে বসেছিলাম! কালের আবর্তে আজকাল অনেক পরিবারে ধনী আছেন, পরিবারের তিন/চার/পাচ/ছয় ভাই বোনের মধ্যে একজন নিশ্চয় পাওয়া যাবেই! হয়ত তিনি ধনী হয়েছেন নানান কৌশলে কিংবা বিদ্যাবুদ্ধিতে, দেশে কিংবা প্রবাসে, আপত্তি নাই।! আমার দুঃখটা হচ্ছে, এই যে আপনি এত এত টাকার মালিক হলেন, পাশাপাশি আপনার এক ভাই/বোন যে না খেয়ে আছে কিংবা নিন্ম-হীন জীবন যাপন করছে, আপনি কি তা দেখছেন না! আপনার কি লজ্জা হয় না, আপনি খাচ্ছেন দেশ বিদেশে, কত বড় বাসায় থাকেন, ছোটবেলায় পাশাপাশি বড় হয়েছেন, অথচ এখন বুঝি এই গরীব ভাইবোনটার দিকে একবারো তাকাতে ইচ্ছা হয় না! হয়ত কোন কারনে, ভাগ্যে, আপনার সেই ভাই/বোনটা আপনার মত অর্থ জমাতে পারে নাই! আপনার এত শত অর্থ থেকে সেই ভাই/বোনের জন্য সামান্য অর্থ দিলে কি এমন আপনার ক্ষতি হয়ে যাবে! আপনি কি আপনার সব অর্থ নিয়ে কবরে যাবেন! চলুন কয়েকটা উদাহরন দেই, আমি যে ঘটনা গুলোর সাক্ষী!

    ১। আমাদের অফিসের কিছু কাজ (যাতে প্রতিটা কেইস টু কেইসে পাঁচশত থেকে হাজার খানেক লাভ হয়) করেন এক পঞ্চাশ পেরিয়ে ভদ্রলোক। তিনি পাঁচ ওয়াক্ত নামাজী, আমার দেখা ভদ্রলোক। আমি একদিন জানলাম, উনার ভাই এই শহরে অনেক ধনী, বাংলাদেশ/চায়নাতে নাকি নিজেই কয়েকটা ফ্যাক্টরী দিয়েছে, অন্য দেশেও আছে। ঢাকার অফিস বাসা এলাহি কারবার। বলা চলে, শত কোটি টাকার মালিক! সব শুনে আমার কথা বন্ধ, বলে কি! মাত্র দুই ভাই উনারা। ধনী ভাইটা কি এই ভাইকে এমনি এমনি মাসে টাকা দিতে পারে না? ধনী ভাইটার কি এক বারের জন্য এই গরীব ভাইটার কথা মনে পড়ে না?

    ২। আমার অনেক বন্ধু। নাম পরিচয় ছাড়া বলি। ৬/৭ ভাই বোনের মধ্যে আমার বন্ধুটা ছোট বেলা থেকেই বেখেয়ালী। ক্যারিয়ার বা জীবন নিয়ে তেমন চিন্তা ছিল না! আড্ডা এবং সাধারন জীবনেই সে খুশি ছিল। গত কয়েক বছর আগে মারা গিয়েছে বটে। খুব টাকার দরকার হলে আমার কাছে আসতো, বলতো, এই বারের মত দেন (আমাদের আপনি সম্পর্ক ছিল)।! তার একটা বোনের কথাই বলি (তার মাত্র একটা মেয়ে), আমেরিকায় বিরাট ব্যবসা আছে, ঢাকার বনানী/গুলশানে তিন কোটি দামের ফ্লাট/জমি আছে, আরো কত কি! অথচ ভাইটা মারা গেল কি অর্থ কষ্টে!

    ৩। আমার আরেক বন্ধু, প্রায় অফিসে আসে। টাকার দরকার হলে অবশ্য একটু ঘনঘন আসে! নয় ভাই বোন। প্রায় সবাই দেশ বিদেশে প্রতিষ্ঠিত। কানাডা, ইংল্যান্ডে কয়েকজন সেটেল্ড আছে। বাংলাদেশে যে কয়েকজন আছে (নাম বললে আপনারাও চিনবেন দুইজনকে) যাদের কার কত টাকা হয়ত সে নিজেও জানে না! আমার বন্ধুটি হয়ত জীবনবোধের জন্য পিছিয়ে পড়ছে কিংবা বেশী চালাক বলে কিছু করতে পারছে না! ওকে জিজ্ঞেস করি, তোর টাকার দরকার, ভাই বোন থেকে নিতে পারিস না! উত্তরে সে যা বলে, আমি অবাক হই! এই ভাইয়েরা কি টাকা নিয়ে কবরে যাবে! দেশে বসে ইংল্যান্ড, আম্রিকায় বাড়ী কেনা ভাইয়েরা কি এই নিরীহ ভাইটাকে একটা মসোহারা দিতে পারে না!

    ৪। উপ সচিবের ছেলে আমার বন্ধু, জীবন নিয়ে বেকুবি চিন্তা ও চাকুরী ছাড়া ধরায় অস্থিরতা, তার জীবনের সাফল্য আসে নাই। এই মৃত বয়সে এখনো সে চাকুরী খোঁজে কিংবা খোঁজে কিছু একটা করা যায় কি না! আমি দেখে অবাক হই, বলার কোন ভাষা আমার থাকে না! যার ভাই বোনেরা প্রাইভেট কারে সাধারন বাজার করতে যায়, অথচ এই ভাইটাকে এই বয়সে এখনো হেঁটে বাসায় ফেরার কথা ভাবতে হয়! আজ হয়ত পকেটে রিক্সা ভাড়া নেই! স্ত্রী কিছু একটা নিতে বলেছে, সে ভেবেই যাচ্ছে, কার কাছে ধার চাইলে আজ টাকা পাবে!

    ৫। আমার আরেক বন্ধু, ওর সাথে আমার বেশ জমে তবে বেশী সময় দিতে পারি না! পড়াশুনা তেমন করে নাই। যৌবনে একটা প্রেম ছিল, সেখানেও সাফল্য আসে নাই। মনের দুঃখে বিদেশ পাড়ি দিয়েছিল, কিছুই করতে পারে নাই! বাবা মায়ের সাথে আছে, তাদের দয়ায় চলে ফিরে! ভাই বোনেরা ডাক্তার/ইঞ্জিনিয়ার, দেশ বিদেশে সুপ্রতিষ্ঠিত। শুনি ওর ভাই বোনেরা ওকে কি দেখবে, ওরা যে বাবা মায়ের দিকেও ফিরে চায় না!

    এমনি আরো কত কি ঘটনা জানি! কোনটা রেখে কোনটা বলবো? আমার শুধু আফসোস হয় এই ধনী বা প্রতিষ্ঠিত লোক গুলোর কথা ভেবে, এত টাকা দিয়ে কি করবেন? এত স্ট্যাটাস দিয়ে কি করবেন? এত গাড়ি বাড়ি দিয়ে কি করবেন? এত সম্পদ শুধু কি স্ত্রী, মাত্র এক/দুই সন্তানের জন্য রেখে যাবেন? যে বাবা মার জন্য দুনিয়াতে আসছেন, যে ভাই বোন আপনার ছোট বেলায় আপনার সাথে ছিল, তাদের কথা কি একবারের জন্য মনে পড়ে না! আপনি খাবার খান কি করে? খেতে বসলে কি আপনার সেই দরিদ্র ভাই বোনের কথা মনে হয় না! প্রতি মাসে অসহায় ভাই/বোনটাকে একটা মাসোহারা দিলে কি এমন আপনার টাকা কমে যাবে? মৃত্যুর পর কি জবাব দিবেন? 😞
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10211753569149646

    Like

  7. নিজের ছবি দেখে নিজেই কাঁদলাম! কি চেহারা আমাদের কি হয়ে যাচ্ছে! আহ, কত তরুন ছিলাম, কত মায়াবী চেহারা ছিলো, আর এখন কি হয়ে গেল, ভোটকা, চুলবাল সব পেকে সাদা! গতকাল কমলাপুরের স্কুলবেলার দুই বন্ধুর সাথে দেখা, ওদের নিয়ে মতিঝিলে আড্ডা দিলাম, হীরাঝিলে খেলাম, বীমা ভবনের পিছনে একটা চায়ের দোকানের টুলে বসে সেই ছোটবেলার কত কথা বললাম! ঠিক সেই আগের মতই! বাসায় ফিরে ছবি গুলো নিয়ে বসছিলাম, দেখেই চোখে পানি আসছিলো! আহ, দিন! চলে গেলে আর আসে না! এভাবে কখন কে হারিয়ে যাই কে জানে? সত্যই দুই দিনের দুনিয়া!😞
    “https://www.facebook.com/photo.php?fbid=10213914316006967&set=a.1053773599517&type=3&theater

    Like

  8. বয়স বাড়ার সাথে সাথে মানুষ একা হতেই থাকে! এর নানান কারন আছে বটেই, অর্থ, অভিজ্ঞতা, বিবেচনা ইত্যাদি ইত্যাদি আছেই! তবে একটা কারন আমার কাছে মনে হয় ‘ব্যক্তিত্ব’! বয়সের সাথে ব্যক্তিত্ব বাড়তে থাকে ফলে যখন তখন আর সেটা নিচে নামানো যায় না, বয়সের সাথে সেই লেবেলের উপযুক্ত মানুষ পাওয়াও কঠিন হয়ে পড়ে, ফলাফল ‘একাকীত্ব’! অন্যদিকে বয়সী মানুষের কাছে ‘অসন্মান’ একটা ভয়াবহ ব্যাপার, তিনি অসন্মান হবেন ভেবেও একাকীত্ব বরন করে নেন! (ভাবনা চিন্তা)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10213920220474575

    Like

  9. ডোমেইন কিনে হোষ্ট করে ব্লগ বানিয়ে চালানো, এই সব যে জানি না তা নয়, আসলে এটা আমার পেশা নয় ফলে আমি চাই আমার মৃত্যুর পর যেন ব্লগ বন্ধ না হয়, এই জন্যই ফ্রিতে থাকতে চাই (আমার উদ্দেশ্য রান্নায় নুতন, প্রবাসী, ব্যচেলরদের হেল্প)! ওয়েব ডেভাল্প করে যেদিন মরে যামু তার পরের দিনেই বন্ধ হয়ে যাবে, কে চালাবে, কে দিবে টাকা! কত বাংলা ব্লগ বন্ধ হয়ে গেছে খবর রাখেন! কত পোজপাজ দিয়ে শুরু করা বাংলা ব্লগ, এক বছরের মাথায় কে টাকা দিবে বলেই শেষ! কত লেখা হারিয়ে ফেলেছি, তাদের বিশ্বাস করে! কত কি দেখলাম! এক মডারেটরের সাথে ঝগড়া হয়েছিল, সে যখন বলল তার ব্লগ বন্ধ করে দিবে, আমি প্রতিবাদ করাতে সে বলল, আমি নাকি __সাল লিখি! ফলে ফ্রী ভাল, কারো কাছে হাত পাত্তে হবে না, নিজের বনে নিজেই রাজা! আমার ছেলেরা এই সবে আসবে না বলে মনে হয়, দেখার মানুষ কই পাব, কে টাকা দিয়ে বছর বছর রিনু করবে। আমি এর জালা বুঝি। ফ্রী থাকার আরো সুবিধা গুগল সার্চে সহজেই থাকা যায়! বাংলাদেশ থেকে ওয়ার্ডপ্রেস ফ্রী সাইটে আমিই সেরা, আমার ভিজিটর বেশি, ফ্রি থাকার কারনেই! মানুষের হেল্প করতে পারছি বলে, আমি খুশি! আবারো বলি, আপনাদের ভালবাসা কাম্য!
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10213940552902873

    Like

  10. ‘সংস্কৃতি’ বিষয়টা শুধু গরীবের এবং তারাই এটা রক্ষা করার চেষ্টা চালিয়ে যায়, যদিও শেষ পর্যন্ত পরাজিতই হয়! রাজস্থানের ফোকগীত, ভানওয়ারী দেবী কিংবা কালবেলিয়া নৃত্য প্রসঙ্গে পড়াশুনা করতে গিয়ে আমার তাই মনে হচ্ছে! সময় সুযোগ পেলে এই বিষয়ে ব্লগ লিখবো। ধনীদের কোন ‘সংস্কৃতি’ নেই, টাকাই মাবাপ, মরন বাঁচন!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10213931286471218

    Like

  11. দুনিয়াতে ভাল মানুষ চেনার অনেক উপায় আছে, তবে আমার কাছে মনে হয়, ‘পুরুষ’ চেনার উপায় হচ্ছে সে তার মায়ের সাথে কেমন আচরন করে, ‘নারী’ চেনার উপায় হচ্ছে সে তার গৃহকর্মীর সাথে কেমন ব্যবহার করে আর ‘ক্ষমতাশীন’ চেনার উপায় হচ্ছে সে কেমন মিথ্যা বলে! (২০১৯)
    রাষ্ট্রের এখন সময় এসে গেছে, একজন মানুষ কতটা সম্পদের মালিক হতে পারবে তা নির্ধারন করে দেয়ার। একজন মানুষ কতটুকু জমি, বাড়ী, ফ্লাট, গাড়ী ইত্যাদি নিজের নামে রাখতে পারবে তাও রাষ্ট্রের এখন বলে দেয়া দরকার। কি কি ব্যবসা বানিজ্য একজন মানুষ করতে পারবে না, তা স্পষ্ট উল্লেখ দরকার। মানুষকে সম্পদ উপার্জনে এত হিতাহিত লোভী হতে দেয়া যায় না। পাশাপাশি অন্য একজন মানুষ অনাহারে বা ফুটপাতে জীবন কাটাবে তাও হতে দেয়া যায় না। রাষ্ট্র মানবিক হতেই হবে। রাষ্ট্রকে গরীব, দুঃখী, অসহায়, নির্যাতিত, নিপীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়াতেই হবে। (২০১৯)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10211737954879299

    Like

  12. ওগো, শুনেছ, আজ নাকি বৃহস্পতিবার 😀 রাত! (২০১৮)
    বাংলাদেশের অধিকাংশ (যারা যায়) মানুষ ভারত, নেপাল, ভুটান, থাইল্যান্ড, মালয়শিয়া যায় পাসপোর্টে দেশ গুলোর ভিসা সিল লাগাতে, আসল উদ্দেশ্য এই সিল গুলো দেখিয়ে যদি ইউরোপ, কানাডা, মেরিকা বা অষ্ট্রেলিয়ার ভিসা পাওয়া যায়! (২০১৬)
    বিবাহিত অসুখী নারী পুরুষেরা ফেসবুকে তাদের মুল্যবান (!) সময় কাটায়! (২০১৫)
    দুনিয়াতে যা একবার ঘটে তা আর ২য় বার ঘটে না! বাংলাদেশেও এমন কিছু ঘটবে যা দুনিয়ার কেহ এখনো চিন্তাও করতে পারে নাই! (২০১৪)
    “https://www.facebook.com/memories/?source=bookmark

    Like

  13. ‘পুরুষ নারী’ বিধাতার এক অপূর্ব জটিল সৃষ্টি! পুরুষ নারী সবাইকেই জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত একাধিক চরিত্র নিয়ে বেঁচে থাকতে হয় এবং পাশাপাশি সেই চরিত্র গুলোতে অভিনয় করে যেতে হয়! পুরুষের সেই সব চরিত্র দাদা, বাবা, চাচা, পুত্র, খালু, মামা, ভাই, স্বামী, বায়রা ভাই, দুলাভাই, বন্ধু ইত্যাদি ইত্যাদি, এর কোন চরিত্রতেই পুরুষ কখনোই আপ টু দ্যা মার্কে নেই বা বলা চলে, পুরুষেরা পুরাই ফেইল! এটাই বাস্তবতা!

    অন্যদিকে নারীদের যে সব চরিত্র কাজ করে যেতে হয়, দাদী, মা, বোন, শালী, চাচী, মামী, খালা, মেয়ে, বান্ধবী ইত্যাদি ইত্যাদিতে নারীরা পুরাই উর্ত্তীন এবং হান্ডেডে হান্ডড, কোন কথাই চলে না, পাশ পাশ পাশ! নারীদের শুধু দুটো চরিত্রের অভ্যন্তরীণ সামান্য বিষয়ে বলা চলে দুনিয়ার প্রায় সকল নারীরা ফেইল করে! কি বাংলাদেশ, কি চীন, কি রাশিয়া, কি জাপান! এই দুটো সম্পর্ক আমি উল্লেখ করতে চাই না, ধরে নিচ্ছি, আপনারা জানেন!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10213945419144526

    Like

  14. অনেক মানুষের পরিণতি কি হতে পারে (এর বাইরে যাবার কোন রাস্তাই নেই আমাদের, নিজের জীবনের পরিনতিও বুঝতে পারি) তা জীবনের নানান অভিজ্ঞতার কারনে বুঝতেই পারি/পারছি (এই সব অনেক কিছু সাধারণ জ্ঞানেই বোঝা যায়) কিন্তু মুখে বলে তাকে সতর্ক করার সাহস নেই দুটো কারনে, সে হয়ত রেগে যাবে কিংবা আরো কুপথে বা ভয়াবহ পথে চলে যাবে! এই অনলাইনেই অনেকের উপর অনেক দিন ধরে নজর রাখি, তাদের পড়াশুনা, চাকুরী, বিদেশ গমন, বিবাহ, সন্তান, স্ত্রী, বিচ্ছেদ, পিএইচডি, লিভিং ষ্টাইল ইত্যাদি আমলে এনে বুঝতে পারি, তার আগামী জীবন কি হবে? আমি সহ বেশীর ভাগেরই সামনে ভয়াবহ জীবন আছে, আমি বুঝেই হয়ত সেই জীবন আলিঙ্গন করবো, আর দুঃখের বিষয় অনেকেই সেই দুঃসহ জীবন না বুঝেই আলিঙ্গন করবে!😁 (লিখে রাখেন!)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10213957211519328

    Like

  15. আপনি ছবি কার সাথে তুলছেন, কত দূরে দাঁড়িয়ে ছবি তুলছেন সেটা আপনাকেই ভাবতে হবে! আপনার হাত, পা, চোখ কোথায় রাখবেন সেটাএ দায়িত্ব আপনার। ফটোগ্রাফারের দোষ দিয়া লাভ নাই! মা, বোন, স্ত্রী, মেয়ে, কাজিন, অফিস কলিগ কার সাথে কত দূরে, বয়স ভেদে দাঁড়াবেন এটা আপনাকে আপনার বিবেক দিয়েই নির্নয় করতে হবে! আমজনতা ছবি দেখে কখনো রিলেশন বুঝতে পারে না, পারাও সম্ভব নয়, কাজে কাজেই আপনার দাঁড়ানোর ভঙ্গিও অনেক সময় আমজনতার চিন্তায় হেল্প করতে পারে!
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10202721447192242

    Like

  16. জ্ঞানী ব্যক্তিদের সাথে আলাপ আলোচনা করলে অনেক কিছু জানা যায়! তিনি জানালেন, বাংলাদেশের পুরুষদের এমন দিন আসছে যে, তাঁরা মেয়েদের কাছে যাওয়া তো দূরে থাক, তাদের নাম নিতেও চাইবে না! এমন কি জৈবিক চাহিদার জন্যও যাবে না! বিশেষ করে বিবাহত পুরুষেদের এমন দিন আসছে যে, তাঁরা আত্মহত্যা করতে পছন্দ করবে, তবুও সুন্দরী স্ত্রীর সাথে থাকা পছন্দ করবে না!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10213963055865433

    Like

    • খাবারের দোকানে কাপড়ের রঙ দিয়ে খাবার বানাচ্ছে, নানাভাবে খাদ্যে ভেজাল দিচ্ছে, পরিদর্শনে পরিদর্শক এসে মাত্র কিছু টাকা জরিমানা, কি অসভ্য চিন্তা! এই দোকান/কারখানার তো সাথে সাথেই সিল্গালা করে তার মালিককে (অবশ্যই অন্য পদের কাউকে নয়, দোকান/কারখানার কর্মচারীকে নয়ই) জেলে ভরে ফেলা উচিত, পারলে বিচার ছাড়াই মালিকদের পরপারে পাঠিয়ে দেয়া উচিত! এরা গনহত্যার সাথে জড়িত!
    • একজন ব্যক্তি যখন তার চারপাশের ঘটনা প্রবাহ দেখে বা কল্পনা করে নিজের মত করে সেটা প্রকাশ করেন, সেটাই ‘সাহিত্য’ এবং সেই হিসাবে তাকে বলা হয় ‘সাহিত্যিক’! আজকাল সেই সাহিত্যিক আর আসছেন না, এর অনেক কারন হতে পারে, তবে আমার ধারনা, আজ কালের ধাপে ধাপে বাঁধা বা প্রতিরোধ! সরকারের/রাজনীতির লোকবল, সমাজের যে কোন পেশা, স্বামী চরিত, স্ত্রী চরিত্র, সন্তান চরিত্র যাই নিয়েই লিখুন না কেন আপনাকে বাঁধা পেতেই হবে, ঘরে কিংবা বাইরে! কোন কোন বাঁধা এতটাই নির্মম যে, আপনার সাহিত্যিক/লেখার স্বাদ চিরকালের জন্যই মিটে যাবে!

    • অধীনস্তদের ধরে রাখতে হলে বা কাজ করাতে হলেও তাদের কিছুটা স্বাধীনতা দিয়ে হয়, তাদের কথা শুনতে হয়! নুতবা তাদের গলা চিপে সোনার থালে ভাত খাওয়ালেও লাভের লাভ কিছু হয় না, সুযোগ পেলেই সোনার খাঁচা ফেলে উড়ে পালায়, পালিত পাখি!

    • অনলাইনের সামাজিক নেটওয়ার্ক/ব্লগ ইত্যাদিতে দীর্ঘ দিন থাকতে থাকতে আপনি নিজেই নিজের অজান্তে বেহায়া, বেশরম, বেয়াদপ, বেহিসাবী, বেদরকারী হয়ে উঠবেন! (এটা আমার নিজের উপলব্ধি মাত্র, আপনার ক্ষেত্রে নাও হতে পারে!)

    (এই দিনে নানা বছরের চিন্তা ভাবনা)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214018614134355

    Like

  17. বাংলাদেশের প্রায় মানুষই এখন লোভী, প্রতারক এবং আইন অমান্যকারী (আমি সহ), কথাটা শুনতে খারাপ লাগলেও আমি যা দেখছি তাই বলে দিলাম! যে যত বেশি অর্থের মালিক বা ক্ষমতাবান, সে তত বেশি এই কু-গুন গুলোর অধিকারী এখন! তবে এই পরিস্থিতি একদিনে হয় নাই, ভুল শাসন ব্যবস্থায় থেকে থেকে বা ভুল প্রশাসকদের সাহায্যেই এই অবস্থা, এখন চরম পরিণতি! সব চেয়ে দুঃখের ব্যাপার, দেশের গন মানুষের (যারা সরকারী চাকুরী করেন, তারাও গনমানুষ, তাঁরা দিনের একটা বিশেষ সময়ের জন্য সরকারী, অবসরে গেলে পুরাই গনমানুষ, কথাটাও আর কারো কল্পনায় নেই) জন্য যে আইন আছে, তা এখন আর কেহই মানে না, এমন কি এই আইনের প্রতি যে ভয় বা শ্রদ্ধা থাকা দরকার, সেটাও এখন আর অবশিষ্ট নেই!😞 (চারপাশ ভেবে দেখুন)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214040620644504

    Like

  18. বর্তমান বাংলাদেশে এখন যাদের বয়স পঞ্চাশ বা তার উর্ধে, তাদের আমি অভিজ্ঞ নাগরিক বলবো। এরা মোটামুটি গুটি বসন্ত, কলেরা, হাম, পলিও, খুঁজলি প্যাঁচরা, আগুলের চিপা চাপায় গা বিচি, নানান চর্ম রোগ ইত্যাদি পরোক্ষ/প্রতক্ষ্য করে আসছে। ১৯৭৩ থেকে ১৯৭৫ সালের অনেক ঘটনা এখনো আমার আলি ঝালি মনে আছে! আমাদের গ্রামে কলেরা লেগেছিল, অনেক বাড়ির মানুষ এই কলেরাতে মারা যায়, বলা চলে প্রায় ঘরে ঘরে একজন/দুইজন নাই হয়ে গিয়েছিল! স্বাধীনতার পরবর্তি জেনারেশন এই সবের ভয়াবহতা তেমন বুঝতেও পারছে না! এখন মনে হয় স্কুল কলেজে এই সব বিষয় পাড়ানো হয় না বা বাস্তব ইতিহাস চর্চা করা হয় না, সব লুকিয়ে চাপিয়ে দেশ পরিচালনায় ব্যস্ত সরকার প্রধান! কথাটা ভুল বললাম কি না, জানতে চাইলে ‘করোনা’ ভাইরাস নিয়ে কোন কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীর সাথে আলোচনা করে দেখুন, দেখবেন কি ভাব ছাড়া অবস্থা জ্ঞানের! জ্ঞান আরোহনের মুল যদি অভিজ্ঞতা বা সাক্ষাত লব্ধ হয়, তবে দেশ এগুবে কি করে? দেখে বা শুনেও যে অভিজ্ঞতা নেয়া যায়, তা এখন আর হচ্ছেই না!
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214041669510725

    Like

  19. অনলাইনের দুনিয়ায় সব চেয়ে বেশী অস্থায়ী ফেইসবুক, অথচ এটাই সবার কাছে জনপ্রিয় অথচ এমনটা হবার ছিলো না! ফেইসবুক নারীদের কাছে ভালবাসা (সেলফি), পুরুষের কাছে আশা (চাপামারা) আর সরকারের কাছে নিরাশা (কখন লোকে কি জেনে যায়)!
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214077683051041

    Like

  20. বিবাহের পূর্বে পুরুষ নারী দুইজনকেই ‘কাবিননামা’ পুরো পড়ে একটা পরীক্ষা নেয়া দরকার! কোথায়ও না বুঝলে শিক্ষকের সাহায্য নেয়া যেতে পারে, সময় নিয়ে পড়ে জ্ঞান আহরণ করে তবেই বিয়ের ‘কবুল’ বলা উচিত এবং পরবর্তিতে দুইজনকেই তার শর্ত মেনে চলা উচিত! বিবাহ কি, বিবাহের পর একজনের সাথে অন্যের অধিকার কি, কি ব্যবহার করতে হবে, কি করা যাবে না, এটা আমরা কেহই জানি না! ফলে সব সময়েই মনে হয়, ‘আমি ঠিক, আমি ঠিক’! যুদ্ধটা তখনই শুরু! যুদ্ধ শুরু হলে গোলাগুলি হবে, কেহ না কেহ প্রান হারাবেই! সুন্দর এই দুনিয়ায় কারো প্রান বেসময়ে যাক, এটা কাম্য নয়। বিবাহের শর্ত না মানতে চাইলে বা যিনি মানবেন না, তিনি বিদায় নিতে পারেন! তবুও যুদ্ধ নয়, দুই দিনেই এই দুনিয়া, সবার আনন্দে কাটুক! 😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214091544597571

    Like

  21. মানুষে মানুষে সমতা শুধু একটা জায়গাতেই, খাবারে। ধনী বলে বেশি খাবে, গরীব বলে খাবে না, পুরুষ বলে বেশী খাবে কিংবা নারী বলে কম খাবে, এমন চিন্তাই করা যাবে না! খাবার মুলত যার যা ইচ্ছা, যার যা পরিমান দরকার তাই খাবে! কোন বৈষম্য মাথায় আনা যাবেই না! খাবারে ধনী দরিদ্র নারী পুরুষ সবার সমান অধিকার! আমাদের দেশের মানুষ অনেক বিষয় থেকে বের হয়ে আসতে পেরেছে, আমি এমন স্বপ্ন দেখি, এই বিষয়েও একদিন আমাদের জয় হবে! ক্ষুধা, দারিদ্র ও বৈষম্যমুক্ত স্বপ্নের বাংলাদেশ একদিন গড়ে উঠবেই!😍
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214098467490639

    Like

  22. একটু চেষ্টা করেই নিজের হাতে ফলাতে পারতাম নিজের দৈনিক খাবারের প্রয়োজনীয় অংশ, পুকুরে মাছ চাষ করে ফরমালিন মুক্ত মাছ খেতে পারতাম। কয়েকটা গরু লালন পালন করলে পেয়ে যেতাম খাঁটি দুধ। মোরগ মুরগী পালার কতই না ভাল জায়গা আছে সেখানে! গ্রামের মেঠো পথে সাইকেল চালাতে কতই না আনন্দ! ফসলের মাঠের সবুজ মন হরণ করে তুলত। আম গাছের কচি পাতা হয়ত ডেকে বলত, আয় আমাকে দেখে যা! দিন শেষে রাতে বিশাল রুমে গা এলিয়ে বই পড়তে পড়তে ঘুমাতে পারতাম। কোন জেস্ন্যা রাতে বাঁশ ঝাড়ের কাছে যেয়ে গল্প শুনতাম হয়ত! না, কিছুই হচ্ছে না। কিসের আশায় পড়ে আছি এই শহরে, অবশ্য সেটাও এখন আর মনে করতে পারি না!
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214104663125526

    Like

  23. আমার ব্যক্তিগত অভিমত, একজন তারকার (বিশেষ করে কবি সাহিত্যিক শিল্পী সমাজ) কখনো নিজকে গনমানুষের মধ্যে নিয়া আসা উচিত নয়! তিনি যত মানুষের আড়ালে থাকবেন এবং তার কাজ সীমিত মানুষের দ্বারা ছড়িয়ে দিবেন, তত গনমানুষ আরো আরো উৎফুল্ল হবে বরং তার ও তার কর্মের প্রতি আগ্রহ বাড়াবে! আপনারা হয়ত এই কথার সাথে এক হবেন না জানি, তবে আমার অভিজ্ঞতায় সেই কথাই বলে।

    আমি নিজে বেশ কিছু তারকাখ্যাতি ব্যক্তির সাথে মিশে দেখেছি, ব্যক্তি আর তার কর্ম পুরো আলাদা ব্যাপার! আপনি/আমি সেটা গুলিয়ে ফেললে হবে না! কল্পনা আর বাস্তবতার ফারাক আছে। ধরুন যে ব্যাক্তি ভাল অভিনয় করেন, ক্যামেরায় উচ্ছাস দেখাতে পারেন, ব্যক্তি জীবনে সে হয়ত পুরোই আলাদা, সুযোগ পেলেই মদ্যপান, নেশা বা নানান কর্ম নিয়ে মেতে থাকে! আপনি তার এই জীবন দেখে নিশ্চয় বিচলিত হয়ে পড়বেন বা আপনার চোখে ঘৃনা জমে যেতে পারে!

    উদাহরণ দিলে অনেক দেয়া যায়, সেই পথে যাচ্ছি না! বইমেলায় লেখক/লেখিকা পাঠক/পাঠিকার সেলফি নিয়ে আমি অনেক ভেবে দেখেছি। এই পাঠক পাঠিকা তো লেখক/লেখিকাকে সামনা সামনি দেখে ফেললো, আর কি তার লেখা পড়বে? 😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214148615344304

    Like

    • অনলাইনে প্রতারক তারাই (এদের স্ট্যাটাস খুব মিষ্টি), যারা সামান্য পরিচয়েই নানান কারন দেখিয়ে, সাহায্যের নাম করে, কিংবা ধার চায়, বিকাশ করেন বলে! এদের পেলে সাথে সাথেই ব্লক দিন! নিজে নিরাপদ থাকুন এবং অন্যকে নিরাপদ রাখুন। মা-বোনেরা চ্যাটিং এ আরো সাবধানতা অবলম্বন করুন, প্রতারকেরা ফাঁদ নিয়ে বসে আছে, এদের ব্লক দিয়ে নিজের জীবন আনন্দময় করে তুলুন।
    • আমি মনে করি, কিছু পেশা আছে, যা গ্রহন করলে অবশ্যই আপনি আর সাধারন মানুষের কাছে আসতে পারেন না বা সাধারন মানুষের সাথে ছয় আনার হাটে মিশতে পারেন না, আপনার পরিচয় আপনার কর্ম! যদিও আপনার নানা দিকবিদিক অভিজ্ঞতার দরকার, তবুও কিছু নিদিষ্ট গন্ডির বাইরে আপনি যেতে পারেন না! আপনি কেন আপনাকে এত হালকা করে ফেলবেন? আপনি না আপনাকে অমর করতে চান! হ্যাঁ, আমি একজন লেখক/লেখিকার কথা বলছি!

    • মধ্যবিত্তের(!) ‘টাকা’ বাঁচানোর চ্রম উপায় হচ্ছে, কম খাবার দাবার/বাজার সদাই কম করা। আর ‘সময়’ বাঁচানোর উপায় হচ্ছে, নিজের দিকে তেমন নজর না দেয়া!

    • এই দেশে অনেক পুরুষ বিবাহের পরই দূর্নীতি, ঘুষ সহ টাকা রুজির যত বাজে পথ আছে, সেই সকল পথে হাটা শুরু করে (অনেকে অবশ্য পথ চিনলেও লোভ সামলান)! এক রাস্তার এই চোরাগলি থেকে কেহ কেহ চাইলেও আর ফিরে আসতে পারে না, ফলে আরো আরো’তে জড়িয়ে পড়ে! বর্তমানে দেশের শহুরে চাকচাক্যের পিছনে এই খারাপ লোক গুলোর অবদানই(!) বেশী!

    (পুরানো ভাবনা, এই দিনে!)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214177385343536

    Like

    • আমি একবার একটা সিঙ্গেল লাইনের স্ট্যাটাস দিয়েছিলাম, ‘উপরে ফিটফাট ভিতরে সদরঘাট’! এই স্ট্যাটাস এর কারনে আমাকে বেশ কিছু দেশী বিদেশী জাষ্ট ফেন্ড কথা শুনিয়েছিলেন, এদের মধ্যে সেলফি লাভার্স ছিলেন (যদিও আমি এই সেলফি লাভার্সদের জন্য এই কথা লেখি নাই!)! আমি নিজকে নিয়ে যখন চিন্তা করি আমিও মুলত এই দলেই পড়ি! আমারও উপরে উপরে ফিটফাট, ভিতরে আমি বিরাট সদরঘাট! মানে আমি অনেকটাই ‘ জীবন্ত ওবায়দুল কাদের’ হয়ে আছি! উনার ড্রেস গেটাপ, এটা ওটা দেখে মনে হত, তিনি বেশ আছেন, আরামে আছেন, তলে তলে শরীরের অবস্থা এমনি বানিয়ে ছিলেন যে, এই বিষয়ে আলাপই চলে না! আমাকেও ডাক্তারের কাছে যাওয়া দরকার, শরীরের যত্ন নেয়া দরকার, কিন্তু না, মন চায় না, যাই না! কবে কি হবে কে জানে! ক্ষমা সুলভ দৃষ্টিতে দেখবেন, ক্ষমা করে দেবেন! মৃত্যু চিন্তায় এখন যে কোন ঝগড়া বিবাদে অংশ নেই না! (২০১৯)
    • ফেইসবুকে কে কার সাথে থাকলেন, কে কারে ছেড়ে গেলেন, তাতে দুই পক্ষের কারোই কিছু যায় আসে না! যে যাচ্ছেন যান, যে থাকেন থাকেন! ব্লক কিংবা আনফলোতে কারো কিছু যায় আসে না! আপনি যত বড় ষ্টার হউন না কেন, তাতে কারোই কিছু যায় আসে না! এই সহজ কথা বুঝে গেলে, আপনি নিজেই আনন্দে থাকবেন! অহেতুক চাপ নিয়ে বা দিয়ে হার্ট দূর্বল করবেন না! আপনি বেঁচে থাকলে আপনার পরিবার লাভবান হবে! (২০১৯)

    • সত্য এবং বাস্তব কথা হচ্ছে, পরিচালক বা পরিচালনা পরিষদের ভুল পরিচালনায় একটা প্রতিষ্ঠান দেউলিয়া বা নষ্ট হয়ে যায়! অবস্থা এখন তেমনি! (চিন্তা ভাবনা, উগান্ডা) (২০১৮)

    • বুদ্ধি এবং বিবেক, দুটো আলাদা ব্যাপার! বুদ্ধি দিয়ে সংসার চালালে চলে, কিন্তু বিবেক দিয়ে সংসার চালালে চলে না! আবার বুদ্ধি এবং বিবেকের মিশ্রণ দিয়ে সংসার চালালে, না পাবেন বেহেস্থ, না পাবেন দোজগ! (২০১৬)

    • কিছু প্রবাসী ফেইসবুক বন্ধুর স্ট্যাটাস (পারে শুধু এখানেই) দেখে পাড়াতো খালাম্মার কথা মনে হয়, যিনি সব সময় মায়ের আগেই দৌড়ান! দেখেও কিছু বলি না, আকাশ থেকে কাশবন সাদা ও ঘনই মনে হয়! স্ট্যাটাস লিখতে তো পয়সা লাগে না! (২০১৩)

    (পুরানো ভাবনা)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214246374708227

    Like

  24. নারী দিবসে কয়েকজন প্রিয় মানুষ বললেন, কিছু বলেন। সব বিষয়ে কথা বলা যদিও আমার কাজ নয় বা পারি না! তবুও সামান্য বলি, একজন পুরুষ যত চরিত্র নিয়ে বেঁচে থাকেন তার সব গুলোতেই তার ফেল মারেন বা উত্তীর্ন নয়, খারাপ। কিন্তু নারীরা যত চরিত্র নিয়ে বেঁচে থাকেন তার একটি মাত্র চরিত্র ছাড়া বাকী সব চরিত্রেই নারীরা উত্তীর্ন। শুধু ‘স্ত্রী চরিত্র’ ছাড়া বাকী সব চরিত্রে নারীরা সেরা বা কিছুই বলার দেখি না! ‘স্ত্রী চরিত্র’ অবশ্য নারীদের জন্য বেশ কঠিন একটা চরিত্র! আর স্বামী স্ত্রী চরিত্র নিয়ে শুধু এই টুকু বলি। স্বামী চরিত্র খারাপ (অনেক কিছু মিলিয়ে) হলেও সন্তানদের ‘ভাল বা যোগ্য’ হবার সামান্য একটা চান্স থাকে, কিন্তু স্ত্রী চরিত্র খারাপ হলে সন্তানদের আর সেই সুযোগই থাকে না! মা চরিত্রের জন্য হয়ত সন্তান বেঁচে থাকে মাত্র!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214266638854818

    Like

    • শয়তানের কাছেও তার অন্যায় কর্মের পক্ষে ন্যায় যুক্তি বা ব্যাখ্যা(!) আছে! কিন্তু শয়তান এটা বুঝে না যে, তার কোন যুক্তি বা ব্যাখ্যাই মানুষের কাছে গ্রহনযোগ্য নয়! বর্তমানে কিছু মানুষ অবশ্য শয়তানের পক্ষেই কথা, তথা শয়তানের কাজ সমর্থন করে! উদাহরণ চাহিয়া লজ্জা দিবেন না! (চিন্তা ভাবনা) (2018)
    • বিবাহের মুল কাজ কি জানি না! তবে বুঝে গেছি, বিবাহ পুরুষ মানুষকে মিথ্যাবাদী, চোর এবং ভাল অভিনেতা বানিয়ে দেয় এবং বিবাহিত পুরুষেরা বাস্তবতার জন্য এমনি হয়ে পড়েই! উপরে সরল, ভিতরে গরল! (2017)

    • নারীদের সন্মান করার হাজারো কারন আছে। তবে রান্না শেখার পর আমার কাছে একটা কারণই বার বার ভেসে উঠে, নারীরা স্বার্থ ছাড়াই আমাদের বছরের পর বছর রান্না করে খাওয়ান, কখনো মা, কখনো বোন, কখনো স্ত্রী, কখনো মেয়ে হিসাবে। এক বেলার জন্য তিনি যদি বেঁকে বসেন, অনেক পুরুষই চোখে পথ দেখবেন না! বিশ্বাস না করলে কয়েকটা দিন রান্নাঘরে থেকে রান্না করেই দেখুন! এক একটা রান্নায় কি মমতা, কি ভালবাসা লাগে তা রান্নাঘরে না গেলে বুঝতে পারবেন না! গল্প ও রান্না ‘র পক্ষ থেকে নারীদের প্রতি সন্মান থাকল। (2014)

    (পুরানো ভাবনা)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214266023199427

    Like

  25. আমরা কাল কি হবে জানি না, জানলে আমাদের চাল চলন আচার ব্যবহার কিছুটা পরিবর্তন হত। তবে আগামীকাল যে ভাল যাবে না, তা আনুমান করেই আমাদের চলা উচিত, আমাদের ব্যবহার আচার আচরণ চিন্তা চেতনা সেই জন্যই ভাল হওয়া দরকার। দাম্ভিকতা, অহংকার, মানবতাহীনতা কাজ কর্ম ইত্যাদি পরিহার করা জরুরী। একটা জাতি গঠনে অনেকের অবদান থাকে, ধনী দরিদ্র মেথ্র মুচি সহ সকলের অবদানেই একটা জাতি তিলে তিলে গড়ে উঠে, কারো অবদান অস্বীকার করার উপায় নেই। যারা রাষ্ট্র পরিচালনায় আছেন, আপনাদের আরো বেশী সতর্ক হতে হবে। সবাইকে টেনে একটা নিদিষ্ট মানের উচ্চতায় নিয়ে যেতে হবে। ইতিহাসের পাতায় মানুষ আপনাদের ঘৃনা নিয়ে স্মরণ করবে, তা হতে পারে না!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214272786928516

    Like

    • মিয়া ভাই, আপনি দাড়ি রাখছেন, টুপি পরেন, পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়েন, কপালে দাগ পড়ছে, হ্যাঁ আপনারেই বলছি, আপনি কিন্তু আমাদের মত আম জনতা নন! আপনি নিজকে আল্লাহর পথে সঁপে দিয়েছেন, এর অর্থ হচ্ছে আপনি যা করছেন তা কিন্তু উদাহরণ হয়েই যাচ্ছে! ভুলে যাবেন না, আপনার সকল কাজ কর্ম আল্লাহর জন্য সমর্পিত! সুতারাং নিজের কাজ কর্ম খেয়াল করে!
    • বিখ্যাত ভাই, আপনি কত কি করেছেন? কত নাটক নভেল কবিতা লিখেছেন, কত মানবিক কাজ কর্ম করে নিজকে হাইলাইটে নিয়ে এসেছেন, পথটা কিন্তু সহজ ছিল না! হালকা পাতলা নেশা পানি করেন, করে যান কি আর আছে? তয়, নারী ঘটিত কাজ কামে কিন্তু খেয়াল রাখবেন! প্রযুক্তিজ্ঞানটা মাথায় নিয়েন! নাইলে কিন্তু কট, পাবলিক আপনার মুখে ওয়াক থু দিবে, এখনো জানেন না, শাক দিয়ে মাছ ঢাকা যায় না!

    • আফামনি, কোন এক হালায় আপনাকে ফোন দিলো কিংবা ফেইসবুকে মেসেজ দিলো, আপনারে সুন্দর সুন্দর কইলো, আপনি এক্কেবারে গদগদ হয়ে হুতি পড়লেন! আফামনি আপনার না স্বামী সন্তান আছে, এত জলদি সব ভুলে গেলেন! আফামনি, আপনি না এমএ পাশ দিচ্ছেন, কোনটা প্রতারনা হতে পারে এই সামান্য জ্ঞানটুকু কি অর্জন করেন নাই!

    • রাজনীতিক ভাই, আপনি যে মিথ্যা বলছেন তা কিন্তু বুঝতে পারছি! কাজের চেয়ে আকাম কুকাম যে বেশি করছেন তা কিন্তু জানি! টাকা রুজিই যে আপনার দুনিয়া তা আমরা জানি! আমজনতারে মগা ভাব্বেন না! হয়ত চুপ আছি, পিঠে কিন্তু বস্তা বান্ধন লাগবো!

    • ছোটভাই, খাটো, পরিশ্রম করো! নসিবে থাকলে কে ঠেকাবে? এত সহজে হতাশ হবার কি আছে! সর্টকাট পথ ছাড়ো, প্রতারনা করা থেকে দূরে থাকো!

    (ভাবনা চিন্তা) 2018
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214279271290621

    Like

    • মুলত একজন ধনী মানুষ তার তথাকথিত সুখ বা বেঁচে থাকার উপকরণ গুলো অর্থ দিয়েই কিনে থাকেন! টাকা উপার্জন (বৈধ বা অবৈধ, এই বিষয় নিয়ে অন্যদিন কথা হবে) করার পথে পথে তিনি এই শিক্ষা লাভ করেন যে, তিনি একা এবং ভীষন একা! বস্তুত স্ত্রী ও সন্তানেরাও যে তার সাথে নাই এটা তিনি উপলব্ধি করে থাকেন ক্রমে ক্রমে! কাজে কাজেই বেঁচে থাকার স্বার্থে তিনি অর্থ দিয়েই নানান জায়গায় লোকবল নিয়োগ দিয়ে রাখেন! এই ধরুন আজ সকালের নাস্তায় তিনি হালুয়া রুটি খাবেন চিন্তা করছেন, কথাটা কিন্তু তিনি তার স্ত্রীকে বলেন না যে, ‘আজ একটু হালুয়া রুটি করো’! কারন তিনি জানেন, স্ত্রীকে সাত সকালে হালুয়া রুটির কথা বললে বিষয়টা অন্যদিকেও গড়াতে পারে! থাক, কি দরকার! তাছাড়া স্ত্রী সারাদিন রাত তার নিজস্ব লোকজন নিয়ে যে ব্যস্ততায় থাকেন, এতেই তো সাত সকালে ঘুম ছুটে না! তিনি বাসার বেতনভুক সহকারীকে বলেন, সকাল ৯টায় বের হব, হালুয়া রুটি করিস! টাইমলি সব টেবিলে এসে পড়ে! অন্যদিকে, স্ত্রী সন্তানের চেয়েও এই ধনী মানুষ গুলো এই ধরনের সহকারী পরিবেষ্টিত হয়ে থাকেন ঘরে বাইরে, ফলে সময় বাঁচে এবং তিনি সব জায়গাতেই অনটাইম হয়ে পড়েন! ঔষধ পত্র সব কিছুতেই এমনি করেই এগিয়ে চলেন তিনি! এই সুখেই তো জীবন! (২০১৯)
    • বেলা শেষের গান! কেন মানুষ এই দুনিয়াতে আসে কেনই বা বিদায় নিতে হয়! কিছু অমানুষকে পাহারা দিতে দিতেই এই জীবন পার করে ফেললাম! বিধাতায় বিশ্বাসী বলে চুপ থেকে গেলাম, একাল তো গেল, যদি পরকালে পাই! (২০১৯)

    • ধনী হতে হলে অনেক গুন থাকতে হয়! একটা গুন এমন, নেয়ার সময়ে হিসাব নাই, শুধু দাও আর দাও! আর কাউকে দেয়ার সময়ে কঠিন হিসাব, পাই টু পাই!
      (২০১৬)

    (পুরানো ভাবনা)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214279198208794

    Like

  26. আমি হিন্দি ছবির বিরাট পোকা ছিলাম, হিন্দি পুরানো গানের বিরাট ভক্ত বলা চলে। প্রবাসে একা থাকার সময় শত শত হিন্দি ছবি দেখে ফেলেছি।, দেশে ফিরেও দেখেছি, পুরানো গানতো সময়ে পেলে কিছুদিন আগেও দেখতাম! হিন্দি ছবিতে অভিনয় করা লোক গুলোকে সব সময়ে সেরা বিবেকবান ভাবতাম, এদের সেরা উদার ভাবতাম, হিন্দি ছবির আজকের এই উথান শুধু একা কোন গোষ্ঠী বা একক কোন ব্যক্তির নয়, যা দেখে ও বুঝে আসছি, এটা সারা অভিবক্ত ভারতবর্ষের কোনা কোনা থেকে আসা নানা বর্ন, ধর্মের লোকজনদের দ্বারাই এগিয়ে গেছে।

    সম্প্রতি ভারতের মুসলিম হাটাও বা হিন্দু মুসলিম দাঙ্গা বা মিঃ মোদীর এহেন ঘৃন্য কার্য্যকর্মে খুব মর্মাহত হয়ে দেখলাম, কিছু কিছু অমানুষ/অমানবিক এই খোলা ফ্লিমি জগতের সাথে আছে। তেমনি একজনের নাম ও প্রকাশ্যে আসা দেখলাম, তিনি অনুপম খোর (এই লোককে আমি সেরা বিবেকবান ভাবতাম, তিনি আমার এত প্রিয় ছিলেন যে, আমি তার প্রায় সব ছবি দেখেছি, দেখেছি তার সব টিভি শো)!

    হিন্দু মুসলিম ভেদাবেদে তার এগিয়ে আসা বা বক্তব্য এত আমার জন্য এত দুঃখজনক ছিলো যে, এই ঘটনার পর আমি আর হিন্দি ছবি বা গান শোনা প্রায় বন্ধই করে দিয়েছি।

    এখন করোনা ভাইরাসের যুগ চলছে (মোটামুটি প্রায় দুনিয়ার বিচি সবার কাঁধে, ভারতের বিচি কাঁধ ছেড়ে একদম মাথায় উঠেছে), সারা ভারত এক অস্থির অবস্থায় মধ্য দিয়ে চলছে, মিঃ মোদী আজকাল প্রায় লাইভে বা ভাষনে আসছেন, ভুলেও আর হিন্দু মুসলিম নিয়ে কথা বলছেন না! তার কথা বলা ও জনগণকে বুঝানোর ধরন দেখে হাসি পেলেও বুঝতে পারি, সামান্য হলেও তার মনের অবস্থা পরিবর্তন হয়েছে (যদিও বিশ্বাসযোগ্য মনে হয় না), গেরুয়া রঙ ছেড়ে এখন সাদা কাপড় ধরেছেন তার দলের অনেকেই!

    বার বার এখন মনে প্রশ্ন জাগে হিন্দি ফ্লিমি এই অবিবেচকেরা এখন কোথায়? কোথায় এই অমানুষ অনুপম খোর? হিন্দু মসলিমে পার্থক্য দেখা করোনা ভাইরাস নিয়ে এই অমানুষ অনুপম খোর কিছু বলছে না কেন? হিন্দি ফ্লিমি পাড়ার অবিবেচকেরা আর সামনে আসছে না কেন, সব অবিবেচক কি কোয়ারেন্টাইন করছে খাটিয়ার তলায়?

    (ব্লগ হিসাবে প্রকাশিত) ছবিঃ দি ইকোনমিক টাইমস
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214401285580902

    Like

  27. রাষ্ট্রের কথা মত ধরে নিলাম, আজ কেহ আক্রান্ত নেই, কেহ মারা যায় নাই ইত্যাদি ইত্যাদি। বেশ ভাল, বিধাতার কাছে ধন্যবাদ জানাই, সেই সাথে রাষ্ট্র পরিচালকদের শুভেচ্ছা জানাই। আমার কথা হচ্ছে কোথায় রাষ্ট্রের একশন প্লান বা রাষ্ট্রের আগামীর করনীয় বা বিষয়টা থেকে উত্তরনে রাষ্ট্রের আগামী চিন্তা! বিষয়টা আমাদের মত সাধারন জনগণের কাছে পরিস্কার হওয়া দরকার এই জন্য যে, আমাদের জীবিকা আমাদের নির্বাহ করতে হয়, আমাদের কেহ খাবার মুখে তুলে দেয় না বা এমন আশাও করি না এই দেশে! মুলত রাষ্ট্রের একশন প্লান জানলে আমি নিজেও আমার জীবিকার ব্যাপারটার আগামী দিন গুলো ভাবতে পারতাম, যদি আমাকে আরো মাস খানেক ঘরে বসে থাকতে হয়, থাকবো, তবুও এর একটা ফয়সালা চিন্তা করতে পারতাম! রাষ্ট্রে অর্বাচীন/অবিবেচক শাসন আছে জানি, তবুও আমি মনে করি অন্তত এই বিষয়ে রাষ্ট্র আমাদের আরো সু-স্পষ্ট কর্মপন্থা দিবে! ভাল মন্দ যাই হোক, মরা বাচা যাই হোক, রাষ্ট্রের স্পষ্ট নিদের্শনা চাই!
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214424025309381

    Like

  28. কোন শালী আমার প্রিয়তমা স্ত্রীর কাছে এমন মেসেজ দিয়েছে, “ভাইয়া তিন বেলা হাড়ি বাসন কোসন মেজে মেজে ফেইসবুকে এসে স্ট্যাটাস/কমেন্টে কান্নাকাটি করছে।! আপনি ভাইয়ার প্রতি সদয় হউন, ভাইয়াকে দিয়ে কাজ কাম করাইয়েন না!” কন তো কেমন্ডা লাগে!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214666556732515

    Like

  29. ভাইয়েরা বোনেরা, যে কোন বিষয়ে নিজকে একদম গোঁয়ার করে ফেলবেন না! আপনি কার পারপাস সার্ভ করছেন, যারা পারপাস সার্ভ করছেন সে কি মিথ্যা না সত্য তা আপনাকেই বুঝে নিতে হবে। চাকুরী ব্যবসাহী জীবনে বা বাস্তব জীবনে আপনার চারিপাশে এমন অনেক চরিত্র আসবে যে, যাকে আপনি ‘না’ করতে পারবেন না, কিন্তু এই ‘না’ করাটাই আপনাকে শিখতে হবে। আর ‘না’ না করতে পারলে সেই চরিত্র থেকে নিজকে দূরে নিয়ে যেতে হবে, এতে আপনার সাময়িক ক্ষতি হয়েছে মনে হতে পারে, আসলে সুদুরে আপনারই লাভ! জীবনের অনেক বছর পার করে ও নানান অভিজ্ঞতা দেখে এখন এমন বলতেই পারি, রাজনৈতিক সমর্থক হিসাবেও আপনার নিজস্ব বিচার বিশ্লেষন থাকা দরকার, উপরি মহলের মিথ্যা অন্যায়কে সমর্থন করে কিছু করার বা বলে ফেলার আগে নিজ অবস্থান ভেবে দেখুন, আপনার পরিনতি আগে চিন্তা করুন। মিথ্যা অন্যায় সমর্থন না করে অন্তত চুপ থাকুন, এতেও দিন শেষে আপনার মঙ্গল আছে!😞
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214712310676335

    Like

  30. বেঁচে আছি! আমি আরো অন্তত বিশ পচিশ বছর বেঁচে থাকতে চাই, এখনো ছেলেদের বিয়ে দেয়া হল না, বেয়াইনদের হাতে ধরা পান চিবুতে পারি নাই, প্রিয়তমা স্ত্রী এটা দেখে কি কটু বলবে সেটা জানা হয় নাই! আমার আরো আরো কত কি করা হল না, পাহাড় সমুদ্রে কত কি এখনো দেখা হল না, সমতলের কত রুপ এখনো বাকী, জীবনের বাঁকে বাঁকে কত সৌন্দর্য্য এখনো বাকী! এখনো একটা কাব্য লেখা হল না, একটা গল্প সেই কবে থেকে ভেবে আছি, আপনাদের জানাবো বলে, সেটাও বাকী! একটা গান গাওয়া হল না, আরো কত রেসিপি লেখা হচ্ছে না! এত কিছু ফেলে আমি এক্ষুনি যেতে চাই না, আমি তো কাউকে খুন করি নি, কিংবা কোন বিচারে তো আমার ফাঁসি হয় নাই!😍
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214733373002880

    Like

  31. অনলাইন/ফেসবুকে কিছু লিখলেই কিছু মানুষ এমন গাইঘুই শুরু করে দেয় বা গায়ের উপর টেনে নিয়ে এমন হিংস্র হয়ে উঠে যে, শেষে ব্লক মেরে রক্ষা পেতে হয়! অথচ নাটক, নভেল, সিনেমায় কত কি দেখায় (প্রায় নাটক সিনেমায় নারীকে অসন্মান বা পন্য হিসাবে দেখায়) কিংবা খবরের পাতায় কত কি লেখে (সব কিছুই তো সরকারের বিরুদ্ধে যায়)! সুবিধা মনে হয় এটাই অনলাইনে ব্যক্তিকে হাতের নাগালে পাওয়া যায় আর ওদের নাগাল পাওয়া যায় না!

    যারা অনলাইনে কথা বলে আমি মনে করি তারা মুলত আপনার বা সরকারের প্রিয় ব্যক্তি হওয়া উচিত। আপনার দোষ ধরিয়ে আপনাকে সাহায্য করছে এবং আপনাকে সঠিক পথে চলার অহব্বান জানাচ্ছে। অন্যদিকে সরকারের জন্যও এটা মঙ্গল বিষয়, কারন সরকার টাকা খরচ না করে শুধু চোখ রেখেই জানতে পারছে কোথায় কি হচ্ছে, কোন সিধান্ত জনগণের বাইরে দিয়ে যাচ্ছে বা কোনটা সঠিক হয় নাই ইত্যাদি ইত্যাদি।

    অনলাইনে সাহস করে ব্যক্তিটা আপনার ও সরকারের শত্রু নন, তিনি বিবেক হিসাবে কাজ করতে চান মাত্র। ফলে কিছু একটা দেখলেই বা আপনার মতের বিপক্ষের কোন কথা দেখলেই মাইন্ড খেয়ে হাম্লে পড়বেন না এবং সরকার বাহাদুরকে অনুরোধ করবো, যারা লিখে তাদের আপনারা ডেকে নিয়ে ব্যাখ্যা চাইতে পারেন, যদি তার ব্যাখ্যার জবাব আপনাদের কাছে থাকে বা বুঝাতে পারেন, তবে তিনি নিশ্চয় বিরুদ্ধে যাবেন না, আর যদি তার ব্যাখ্যার জবাব আপনাদের না থাকে তবে আপনারাও সংশোধন হয়ে বেশী মানুষের ভালবাসা পেতে পারেন।

    মানুষের ভালবাসা ছাড়া মুলত এই দুনিয়াতে আর তেমন কিছুর মুল্য নেই (ঘৃণা মানুষ্য সমাজে কাম্য নয়), মানুষের ভালবাসা অর্জন করার সুযোগ নিন!😍
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214830842479556

    Like

  32. একজন মানুষ কেমন ভদ্র বা তার বুঝ বিবেচনা কেমন তা বুঝতে হলে অনেক দূর যেতে হয় না, তিনি রুম থেকে বের হতে দরজা কত উচ্চ নিন্ম শব্দে লাগিয়ে গেলেন, তাতেই বোঝা যায় (যারা মেসে থাকেন আপনাদের চোখে এটা পড়ার কথা)! আরো নিন্মে গেলে বলা যায় ট্যাবলেট/ঔষধের ষ্টিপ থেকে তিনি কোন স্থানের ট্যাবলেটটা আগে নিলেন বা সিরিয়াল মানলেন কি না (যারা ঘরে থাকেন আপনাদের চোখে এটা পড়ার কথা)! জীবনে এমন মানুষ পেলে ভুলেও এদের সাথে কোন তর্কে যাবেন না বা বোঝাতে যাবেন না! এই জ্ঞান গুলো মুলত বিধাতা প্রদত্ত ব্যাপার, তিনি যাকে ইচ্ছা তাকেই দেন!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214841493985837

    Like

    • একটা মানুষ কতটা সভ্য বা ভদ্র তা তার আচরনে বা শারীরিক ভঙ্গিতে কিংবা তার দ্বারা সংগঠিত ছোট ছোট কাজ কর্মে বোঝা যায়! এই ধরুন, ঔষধের পাতা থেকে সে কিভাবে কোন সিরিয়ালে ট্যাবলেট খুলছে বা কর্ম সেরে ছোট ঘর থেকে বের হয়েই কি বাতিটা নিভালো কি না কিংবা বাসা থেকে বের হতে দরজা শব্দ করে লাগালো কি না অথবা একজন বয়স্ক ব্যক্তিকে সিট ছেড়ে দিল কি না, ইত্যাদি ইত্যাদি! তবে খুব উন্নত চোখে দেখতে গেলে বলা চলে, সময়জ্ঞানহীন ব্যক্তি কখনোই সভ্য বা ভদ্র নয়! (২০১৯)

    • আমার ব্যক্তিগত ধারনা, দুনিয়াতে আমরা যা কিছু করি তার পিছনে একটা না একটা উদ্দেশ্য আছে, একটা না একটা কারন আছেই! কিন্তু একটা ব্যাপার মাথায় ধরে না, যারা সকাল থেকে সন্ধ্যা বা গভীররাত পর্যন্ত জেগে শুধু নিজের ছবি ফেসবুকে আপলোড করে যান, এদের উদ্দেশ্যটা কি? ইহহি, যদি জানতে পারতাম! (২০১৬)

    • দুনিয়ার প্রায় মানব সৃষ্ট সম্পর্ককে দ্বিমুখী বলা চলে, দেয়া ও নেয়া। আপনি শুধু নেয়ার আশা করবেন, তা হবে না! আপনাকে দিতেও হবে আর দেয়া নেয়ার বিষয়টা আপনাকেও বুঝতে হবে। আপনি শুধু আপনার মত করে চাইলে দুনিয়ার কোন সম্পর্কই টিকবে না, ফলাফল ভাল হবে না! (২০১৫)

    • হে উপরওয়ালা, যাদের স্ত্রীরা হিন্দি সিরিয়াল দেখতে যেয়ে দুনিয়া ভুলে যায়, সেই সব হতভাগ্য স্বামীদের তুমি তোমার সাত আসমানের উপরে উঠিয়ে নাও, উঠিয়ে নাও! হে মালিকে জাহান, তুমি কি এই সব স্বামীদের কষ্ট বুঝ না! তুমি কি দেখতে পাও না এইসব স্বামীরা প্রতিদিন কি করে একটু একটু মরে মরে যাচ্ছে যাচ্ছে! (২০১৪)

    • মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, দেশের বেশিরভাগ মানুষ ভাল নেই। মৌলিক অধিকার থেকে বেশিরভাগ মানুষই বঞ্চিত এখন। রোগে শোকে আর্থিক কষ্টে অনেক পরিবারই এখন দিশেহারা। ভাসা চোখে না দেখে বিষয় গুলো তলিয়ে দেখুন। নিরপেক্ষ গবেষনার রিপোর্ট গুলো মেনে নিন। কথা না বলে জলদি ব্যবস্থা নিন, এখনো সময় আছে। (২০১৪)
      “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214860571582765

    Like

  33. করোনা ভাইরাস নিয়ে মুলত আমজনতার আর কিছু বলার নেই! আমি নিজেও এই বিষয়ে আর কথা না বলার সিধান্ত নিয়েছিলাম! করোনা ভাইরাস এবং সরকার – এমন একটা ব্লগ লেখার দুই পর্ব মাথায় রেখেই অনেক দিন ঘুমিয়ে আছি প্রিয়তমা স্ত্রী এবং সন্তানদের মুখের দিকে তাকিয়ে! খুব লজ্জার সঙ্গে খেয়াল করে থাকবেন যে, এখনো করোনা ভাইরাস নিয়ে সরকারের কোন কার্যপ্রনালী/একশন প্লানই নেই (আমার চোখে পড়ে নাই), ফলে কখন কি সরকার করবে, কখন কি জনগন করবে, কার কি দায়িত্ব, তা কেহই মুলত বুঝতেই পারছে না! ঘরে শুধু খিচুড়ি আছে, খাইলে খা না খাইলে দূরে যা – অলস কিংবা অভাবী বাবা মায়ের এই ডায়ালগ হয়ত আপনারা অনেকে শুনেছেন, আমাদের সরকার মশাই এমনি হয়ত সময় কাটাচ্ছেন!

    যাই হোক, করোনা ভাইরাসের ভয়ে খুব বিপদে আছে এই দেশের মেয়াদউর্ত্তীন (৫০ উর্ধ) বিবাহিত পুরুষ সমাজ! তারা করোনা ভাইরাস জনিত মৃত্যুর সব চেয়ে বেশি টার্গেটে আছে, এদের কলকব্জা খুব ত্রুটিপূর্ন, গেটিংসেটিং দিয়ে অনেকে বেঁচে আছে! অথচ বিশ্বাস করবেন কি না জানি না, এদের প্রিয়তমা স্ত্রীরা সরকারের মতই এখনো মিটিমিটি হাসছে, হয়ত এমন চিন্তাও করছে, হালা মরুক তাতে কিছু আসে যাবে না বা ক্ষমতা তো চলে যাবে না, আছি থাকবো! এইতো!😁 (ভয়কে জয় করুন! স্ট্যাটাস বুঝতে অসুবিধা হলে আমাকে জানাতে পারেন, আরো ব্যাখ্যা দিতে রাজি আছি!)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214866312046273

    Like

  34. কথা বললে অনেক কথাই বলতে হয়! বৃটেন থেকে স্বাধীনতা, দেশ ভাগ পরে আলাদা ইত্যাদি ইত্যাদি যা কিছুই ঘটেছে সবই ধরা যাক সঠিক বিষয়, তবে এই সময় গুলোতে এই অঞ্চলের কোন দেশেই সঠিক বা ভাল বুদ্ধিমান শাসক পায় নাই, যে শাসক দেশের জনগণকে সত্য মিথ্যা, বাস্তবতা বা পরের দিনের কথা গুলো, দারিদ্রতা দূর, শিক্ষা ইত্যাদি বিষয়ে সচেতনা বা বাঁধা বা একটা মান তৈরী কথা বলে নাই বা চেষ্টাও করে নাই! নিজেরা মজা লুটেছে যা পেরেছে, সাথে তল্পিতল্পা বেঁধেছে! এদিকে প্রায় সব দেশেই ফ্লিম বানানোতে মনোযোগী হয়েছে (হিন্দি সিনেমা বেশী) যা অবাস্তব নয় শুধু এই অঞ্চলের মানুষের মাথাও খেয়েছে, বুদ্ধি বিনাশ করেছে, দারিদ্রতা বাড়িয়েছে, মানুষ্কে কর্ম বিমুখ করেছে! বলা চলে, হিন্দি সিনেমা (পরে হিন্দি টিভি, সিরিয়াল, শো, ম্যাগাজিন, হান্ট) এই অঞ্চলের মানুষের প্রধান দূর্ভোগের কারন যা এখনো অব্যাহত আছে!

    অন্যদিকে এই অঞ্চলের দেশ গুলোর মধ্যে এখনো তেমন কোন ভাল শাসক (সুশাসক) আসে নাই, যে এই কাঠামো পরিবর্তন করতে পারে বা জনগণের কানে এটা বলতে পারে যে, আপনারা ভাল না থাকার কারন এটা এটা, আপনাদের এই এই কাজ, আপনাদের এই এই সবেই মঙ্গল, পাশাপাশি টাকার দূর্বিত্তদের রুখতে পারা এবং সুষ্ট একটা বিচার ব্যবস্থার চিন্তা করতে পারা!

    আগামী শতকেও এই অঞ্চলের মানুষের মুক্তি মিলবে বলে মনে হয় না! এখনো এই অঞ্চলের মানুষ স্বপ্নে আছে, নিজদের অধিকার বুঝতে পারছে না, শোষিত হয়ে দেয়ালে পিট/পেট লেগে যাবার পরেও এখনো নিজ ভাষার সিনেমা/ অপর ভাষা হিন্দি সিনেমা দেখতে বসে পড়ে! অবাস্তবতাই প্রিয় এখনো! (ক্রমশ)😞
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214974187303087

    Like

  35. অনলাইনে এখনো কত প্রকারের কত কি মানুষ আছে অনেক সময় ভেবেও কুল পাই না!

    • গত কয়েকদিন আগে একটা ছবি দেখলাম, ছবিতে লেখা আছে দেশী মুরগীর রান্না, আমার সন্দেহ হল, আমি বললাম, এটা কিছুতেই দেশী মুরগী হতে পারে না, শক্তিশালী নাদুস নুদুস এমন রান দেশী মুরগীর হয় না! ব্যস, এখন আর সে ছবিটা নেই উপরন্ত আমি ব্লক হয়ে গেলাম উনার কাছে!

    • গত রাতে আমার ফিডে একটা স্ট্যাটাস দেখলাম, ঘটনা এই রকম, তিনি মেয়েটাকে খুব পছন্দ করতেন, গত ১০ বছর ধরে, ফেইসবুকে মেসেজ আদান প্রদান হয় কিন্তু তিনি মেয়েটাকে কখনো বলেন নাই, ভালবাসি। গত কয়েকদিন আগে তিনি মেয়েটার বিবাহের ছবি দেখেন, এখন খুব মনোকষ্টে আছেন। এই সব তারই স্ট্যাটাস। আমি দুঃখের ইমো দিয়ে লিখলাম, আহা রে! ব্যস কথা বার্তা নেই, আমি ব্লকড! নোটিফিকেশন দেখে আবার তার স্ট্যাটাস দেখতে গেলেম কিছুই আর প্রবেশ করতে পারছি না!

    • দোস্ত আমার, কত আড্ডা দিয়েছি, অনলাইনে বেশী সময় দিচ্ছে এখন এই তো! অথচ এক সময়ে যাকে দিয়ে একটা ভাল ফোন ব্যবহার করাতে পারি নাই, টাচ ফোন দেখলে বলত, আলাদা ফুটানী, ফেইসবুক দেখলে বলত, খাইয়া দাইয়া আর কাজ কাম নাই! এখন সে অনলাইন বিশেষজ্ঞা সেজেছে! একটা চাপামারা পোষ্ট দেখে বললাম, এবার থাম! হ্যাঁ, আমাকে পুরাই থামিয়ে দিয়েছে, আই মিন ব্লক করেছে!

    • কিছু একটা লিখলেও নিজের গায়ের উপর টেনে নিয়ে এসে ঝগড়া বাঁধানোর এবং পরিশেষে ব্লক করার উদাহরণ আমার ভুরি ভুরি! যা কিছু লিখি সবই আমার জীবন থেকে নেয়া নয়, এটা অবশ্য আমার প্রিয়তমা স্ত্রীও বুঝেন না!

    • পাশাপাশি ফিডে কিছু পরিচিত/ আত্মীয় শুয়োর বা শুয়োরের বাচ্চা আছে, যারা কিছু লিখলেই সেটা নিয়ে প্রিয়তমা স্ত্রীর সাথে আলোচনায় মেতে উঠে! এটাই যেন তাদের একমাত্র সুখ! আমি যে একজন ব্লগার এবং সব কিছুই লিখে প্রকাশ করতে পারি এটা বোঝার জ্ঞান এদের নেই! দুঃখের কথা এদের আমি চিনহিত করতে পারি না, পারলে আমি নিজেই ব্লক করে দিতাম!😁
      “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214977796153306

    Like

  36. আমাদের অনেকের প্রিয়তমা স্ত্রীরা মাঝে মাঝে বলেন, তুমি জান না বা তারা মনে করেন আমরা সেই বিষয়ে জানি না! ভাল স্বামীধনেরা সাধারনত চুপে চাপে জীবন পার করেন বলে এই কথার উত্তর দেন না বা এই কথা শুনে আরো বোকা সেজে বা না শোনার ভাল করে চলে যান! মুলত স্বামীধনেরা যে বাইরে বান্দর পিটিয়ে মান্দার গাছে উঠানোর অভিজ্ঞতা নিয়ে ঘর করেন, তা হয়ত এই প্রিয়তমা স্ত্রীগন বুঝেন না! আরো বলা চলে এই স্বামীধনেরা তার জ্ঞানের বাহার স্ত্রীকে দেখাতে চান না, কারন এই জ্ঞান দেখালে যে সেই নিন্ম জ্ঞানের স্ত্রীকে আর কাছে রাখা যায় না!😁 (হালকা চিন্তা, মাইন্ড খাইয়েন না, আপনার কোন অভিমত থাকলে রেখে যেতে পারেন)
    “https://www.facebook.com/groups/2573644649621277/permalink/2607933346192407/

    Like

  37. ফেইসবুক/অনলাইন জীবন না, জীবনের ছোট ছোট ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অংশের কনা কনা পরমানু পরমানু এমন কিছু হয়ত হতে পারে! কাজে কাজেই ফেইসবুকের লেখা বা প্রকাশ দেখে সহজেই কাউকে বিবেচনা করে ফেলা সঠিক নয়! ফেইসবুক একটা খোলা জায়গা, এখানে সবার সমান অধিকার, আপনি আমি সবাই সমান! আপনার আবেগ, অনুভূতি, অভিজ্ঞতা ইত্যাদি আপনি প্রকাশ করতেই পারেন, এটা আপনার মৌলিক অধিকার! আপনার লেখা দেখে আমি কি করবো এটাও আমার মৌলিক ব্যাপার! কথা হচ্ছে আমি আমার মৌলিক অধিকার দেখাতে গিয়ে খুব সহজেই এক রোখা বিবেচনা করতে পারি না! তা করলে মৌলিক অধিকার আবার লঙ্গন হয়ে যায়! কাজেই বিপরীত পক্ষ আপনাকে ব্লক করে দিতে পারে এবং তার সুযোগ আছে!

    কাজে কাজেই ফেইসবুকের লেখাটেখা নিয়ে এত আলোচনার কি আছে, এক্কেবারে বাসা বাড়িতে মিলিত আলোচনার কোন দরকার নেই! আমার লেখা দেখলে, পড়ে যান, ভাল না লাগলে আমাকে ব্লক করে আপনি শান্তি লাভ করেন ইত্যাদি (আপনি আমার কাছে বা আমি আপনার কাছে গুরুত্বপূর্ন নই)! কিন্তু আপনি আমাকে এক রোখা চিন্তায় নারী, প্রবাসী, দেশ, রাষ্ট্র ক্ষমতা বিদ্বেষী ইত্যাদি বলতে পারেন না! আমি আমার অভিজ্ঞতা (নিজের বা অন্য থেকে পাওয়া) লব্ধ কথা লিখবো, সেটা আপনার ভাল নাও লাগতে পারে কিন্তু আমি যা লিখেছি তা বাস্তব বা কল্পনায় আমি দেখেছি বা ভেবেছি! আপনি লুতুপুতু লেখা বা সেলফি/ছবি দিচ্ছেন, দিতে থাকেন, আমিতো আপনাকে কিছু বলছি না! মোদ্দা কথা, আপনি কাউকে বাধ্য করতে পারেন না, আপনি বলতে পারেন না আমি কি লিখবো কি লিখবো না!

    যাই হোক, হালকা মনের দুঃখের (এই দুঃখ অবশ্য খাঁটি নয়) কথা বলি, বিশেষ করে নারীদের নিয়ে কিছ লিখতে আমি কেমন চিন্তা করি তার একটা নমুনা দিচ্ছি! আমি প্রথমে চিন্তা করি আমার লেখা পড়ে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কি ভাববেন, পরে জেলে থাকা বিএনপি নেত্রী কি ভাববেন, জাতীয় পার্টির নেত্রী কি ভাববেন, মাননীয় স্পীকার কি ভাববেন, আমার মা কি ভাববেন, আমার খালা/মামী/চাচীরা কি ভাববেন, আমার স্ত্রী কি ভাববেন, আমার স্ত্রীর বান্ধবীরা কি ভাববেন ইত্যাদি ইত্যাদি! এত শত চিন্তা করে যত সামান্য লিখি বা স্ট্যাটাস দেই, সেটা দেখে আমাকে নারী বিদ্বেষী বলে দিচ্ছেন? এই আপনার ঘটে মাল! সব ঘটনাতে আমাকে পার্সোনালী জড়াচ্ছেন কেন? আমি কি আপনার জীবনে ঘটে যাওয়া কোন ঘটনা কাউকে বলেন নাই! সে কি সেটা তার মধ্যেই সীমাবদ্ধ রেখেছেন? যাই হোক, ধরি আপনি অনেক বুদ্ধিমান, ধরেন সেটা আমার জীবনেই ঘটেছে, আমি কি সেটা উল্লেখ করতে পারবো না! যারা লেখা লেখি করে, তাঁরা কি আকাশ থেকে নিয়ে আসে! নাকি আমাকে আপনার সামান্য ব্লগারও মনে হয় না!

    হ্যাঁ, এই যে, আপনাকেই বলছি! আমার সাথে থাকলে থাকুন, না থাকলে চলে যান, কারো জন্যই কোন ব্যাপার না! আমি জানি বুঝি, আমার ‘মা’ আমাকে যেদিন খারাপ বলবে সেই দিনেই আমার মৃত্যু! (ক্রমশ)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10212601957958836

    Like

  38. আজকাল ব্যাড পেরেন্টিং নিয়ে কথা উঠছে। অনেক সন্তান বড় হয়ে পিতা মাতার ভুমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন! ছোট বেলায় আদর যত্নে এক সন্তান থেকে অন্য সন্তানের কম বেশি, সম্পদের ভাগভাটোয়ারা, বিবাহ দেয়া ইত্যাদি বিষয়ে কথা বলছেন। হ্যাঁ, দুইজন সন্তানের পিতা হিসাবে আমিও বিষয়টা নিয়ে ভাবছিলাম, কি করে পিতামাতা এমন করতে পারেন! বার বার মনে হয়, সন্তানের মুল ভাল চরিত্র গঠনে মায়ের ভুমিকার বিকল্প নেই, পিতার ভুমিকাও ভাল হতে হবে! তবে সন্তান বড় হতে থাকলে সন্তানেরো একটা ভুমিকা এসে যায়, ভালবাসা আদায়ে বা ন্যায় বিচারের প্রশ্নে সন্তানকেও ভাল ভুমিকায় থাকতে হয়! পিতামাতা যে সন্তানকে ইগ্নোর করেন বা তার প্রতি ন্যায় আচরণ করেন না, এই ক্ষেত্রে ভেবে দেখা যেতে পারে। সন্তান শুরু থেকেই হয়ত পিতামাতার প্রতি বাধ্য নয়, বুদ্ধি বিবেচনায় সে হয়ত অত্যাচারী মনোভাব সম্পন্ন, অবিশ্বাসী এবং রুক্ষ! পিতামাতার ভালবাসা আদায়ে সন্তানকেও এগিয়ে আসতে হবে, তাকেও বুঝতে হবে কোথায় তার নিজের গলদ, কেন পিতামাতা তাকে সমভাবে ভাবছে না!😞
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10214993376262799

    Like

  39. এই লিষ্ট দেখে বিচি খুলে পড়ে যাবার দশা আমার, যদিও ডাক্তারগন এই লিষ্ট থেকে বাদ পড়ছেন বলে জানছি! এমন ছবি দেয়া লিষ্ট আরো আসবে সামনে হয়ত! আমি চিন্তা করছিলাম, কেহ কি এই মৃত্যু গুলোর লিষ্ট রাখছে কি না! যাই হোক, সরকারের হিসাবের মধ্যে যে এই মান গুলো আছে তাতেই বা কম কি! প্রথম আলোকে ধন্যবাদ জানাই! সারা দেশে এমনি করোনা উপসর্গ নিয়ে মরা ব্যাক্তিদের অন্তত একটা লিষ্ট হয়ে যাক! কেহ নিশ্চয় এগিয়ে আসবেন, অন্তত মোবাইলে একটা এপস হয়ে যাক, স্বজনেরা নিজ টাকা খরচ করে আপডেট দিবে, তবুও হয়ে যাক!😞
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10215004456619801

    Like

    • মানুষের মন বড় আজীব, মানুষ যখন যে অবস্থায় থাকে সে তখন সেই অবস্থায় থাকার মানুষ গুলোকেই বুঝতে পারে, উপরে নীচের অবস্থা কখনো নয়! এই ধরুন একজন মানুষ দরিদ্র থেকে ধনবান হল, ধনী হয়ে গেলেই মুলত তার কাছে আর দারিদ্রতার মূল্য থাকে না এবং এক সময় পরে তিনি হয়ত আর দারিদ্রতা বুঝতেও পারবে না! অন্যদিকে ভাবনা গুলোও তখন পরিবর্তন হয়ে যায়! ধনী চোখে শুধু ধনীদের দেখায় যায়, গরীব শুধু গরীবের জন্যই! (২০১৯)

    • শিল্প সাহিত্যে আমাদের দেশ এমন পিছিয়ে পড়ছে যে, বর্তমানে এখন আর উল্লেখ করার মত তেমন কোন কবি, সাহিত্যিক, আঁকিয়ের নাম বা তার কাজ এই প্রজন্মের কাছে জানাই নেই! রাষ্ট্র* তার মৌলিক দিক থেকে সরে বিপথে পরিচালিত হচ্ছে বলে এমনি অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে! সবচেয়ে বড় ব্যাপার এভাবে চলতে থাকলে বিবেকবান মানুষ খুঁজে পেতে আগামীতে দূরবীন নিয়ে বসতে হবে! (২০১৬)

    • অনলাইনে নানান সামাজিক সাইটে থেকেও যদি আপনি কোন ভুল, মিথ্যা বা বিবেকহীন বক্তব্য/কাজের সমর্থন করে যান বা প্রকাশ্যে বলেন, যুক্তি দেখান তবে আপনাকে আর কি বলবো? মনে রাখুন, আপনি দল বা ব্যক্তির পা ছাটা কুকুরের চেয়েও অধম! (দয়া করে এই সব বিষয়ে চুপ থাকুন, অন্তত আপনাকে গালি দিতে হবে না।) (২০১৫)

    • সাধারন শিক্ষার সর্বোচ্চ সার্টিফিকেট পেলে, আর যাই হোক না হোক, ‘সৎ সাহস’ নামক বিষয়টা চরিত্র থেকে হারিয়ে যায়! ফলাফল, ছাপোষা জীবন নিয়েই মরার পথে এগিয়ে যেতে হয়! অবশ্য বাংলাদেশের শিক্ষায় এই মানুষ গুলো বেশীই! (২০১৫)

    • কত কথা লিখতে ইচ্ছা হয়, কত কথা মনে জমে আছে, কত কবিতা নিরবে অদৃশ্য হয়! কখনো স্ত্রীর ভয়, কখনো স্ত্রীর আত্বীয় স্বজনের ভয়, কখনো সরকারের ভয়, কখনো অফিসের বসের ভয়, কখনো প্রিয় বন্ধুদের ভয়, কখনো গুম হবার ভয়, কখনো দলকানা সাপোর্টারদের ভয় আরো কত কি! এই জীবনে আর ভয় কাটিয়ে বলা হবে বলে মনে হয় না! (২০১৪)
      “https://www.facebook.com/udraji/posts/10215007103085961

    Like

  40. অনলাইনের যত মাধ্যম আছে, তার মধ্যে সব চেয়ে ক্ষণস্থায়ী হচ্ছে ফেইসবুক! এটা অনেকটা যাত্রী বাহী লোকাল বাস। আপনি উঠলেন, নিদিষ্ট জায়গাতে নেমে গেলেন, বাস তার সামনের গন্তব্যের দিকে চলে গেল। এভাবে ফেইসবুকে আমরা প্রতিদিন উঠানামা করছি! এবার চিন্তা করুন! আপনি হারিয়ে যাবার সাথে সাথে বলা চলে আপনাকে মনে রাখার আর কেহ প্রয়োজন মনে করবে না কারন আপনার কোন নুতন লেখা/ছবি থাকবে না, তাদের ফিডে যাবে না এবং তাদের চোখেও পড়বে না। এদিকে একের পর এক নুতন বিষয় সামনে আসবে আর সবাই তা নিয়ে মেতে থাকবে! সামান্য কিছু মানুষ অতীত দেখবে হয়ত, যদি সেদিন আপনার জন্মদিন হয়, তবে হয়ত সে একটু মনে করবে (যদি ততদিন আপনাকে সে বন্ধু রাখে)! তবে আপনি মৃত বা এক্টিভিটি বন্ধ হলেই অন্যেরা আপনাকে আর চিনবে না বলেই মনে হচ্ছে, কারন সে ধরে নিবে, এর থেকে আর লাইক কমেন্ট পাব না, অহেতুক স্পেস নষ্ট (বন্ধু সংখ্যাতো নিদিষ্ট), ফলে আনফেন্ড করে দিবেই, একটা সিট খালি হলে আর একজনকে জায়গা দেয়া যাবে (যাত্রীবাহী বাস), নুতন বন্ধু মানে নুতন লাইক কমেন্টস!😁
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10215041766232518

    Like

  41. এখনকার সময়ের সন্তানাদিও বেয়াদপ, যতই চেষ্টা করুন, এদের লাইনে ভিড়ানো যায় না, ভাল কিছু শেখানো যায় না! এই ধরুন বললেন, খাবারের টেবিলে খেতে বস। বসার আগেই জানতে চাইবে, আজ কি রান্না হয়েছে? পোলাও কোরমা রোষ্ট রেজালা না হলে যেন মুখেই রুচি ধরে না! সবজি মাছ ডাল দেখলে, মুখের কি ধরন করে ফেলে, বলে, ‘খিদে নেই, পরে খাব’! মনে অনেক কিছু চায় কিন্তু পারি না, সন্তানতো বেশি না এক দুইটা! মাঝে মাঝে বলি, ওরে হরিপদ, তোদের এই বয়সে আমরা নিজেরাই নিজের খাবার বেড়ে খেয়েছি। স্কুল ফিরে নিজেরাই পরিমান মত যা পেয়েছি তাই খেয়েছি, মায়ের অন্য কাজে হেল্প করেছি, বাবার কাছে তো যেতেই পারি নাই, মাকে তেমন কষ্ট দিতে চাইতাম না, উপরন্তু কি রান্না হল তা ভাবনার সময় আমাদের ছিল না! আমরা অপেক্ষায় থাকতাম, কবে শুত্রবার আসবে, ভাল খাবার জুটবে! অতি আদরে এরা কোথায় যাচ্ছে? আমি তো মানুষ হবার কোন লক্ষন দেখি না!😄
    “https://www.facebook.com/groups/2573644649621277/permalink/2620250324960709/

    Like

  42. ব্যাখ্যাঃ আমার ফিডে অনেক ইন্ডিয়ান বন্ধু আছেন, তারা মাঝে মাঝে আমার কিছু লেখাতে বিরক্ত হন, আই এম সরি। আমার মুলত কোন ব্যক্তি ইন্ডিয়ানের প্রতি কোন ক্ষোভ নেই, আমার নিজের পছন্দে শহর কলকাতা, যদি ঢাকা ছেড়ে অন্য কোন শহরে বসবাস করতে বলা হয়, আমি কলকাতাই বেছে নিব। আমাদের ক্ষোভটা কোথায় সেটা আপনাদের বুঝতে হবে, অর্থনীতি, বানিজ্য, সীমান্ত সহ নানান নির্যাতনে আপনাদের সরকার আমাদের রাখে প্রতিনিয়ত, ছোট একটা দেশের প্রতি আপনাদের প্রশাসনের নানান কটু কৌশলে আমরা মুলত দুঃখ পেয়ে থাকি। যাই হোক, এই সব ধরার মধ্যে না আনলেও যে বিষয়টা আমাদের পীড়া দেয়, তা হচ্ছে আমাদের দেশে আমরা সুশাসন পাচ্ছি না, শুধু আপনাদের প্রশাসনের ভুল সমর্থনে, আপনারা জেনে পীত হবেন যে, আপনাদের রাষ্ট্রীয় এই সমর্থনের কারনে আমরা আমাদের ভোটাধিকার হারিয়েছি, সুশাসক নির্বাচন করতে পারছি না! ফলত, আমাদের দুঃখ লাগার কথা এবং তার কিছুটা বহিঃপ্রকাশ হবেই! সাধারন বন্ধু হিসাবে মুলত আপনাদের মাইন্ড করার কারন দেখি না! দেশপ্রেম অনেক বড় বিষয়!😍
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10215092500020831

    Like

    • অমুলক ভাবনা চিন্তা মাথায় ভর করে আছে! ধর্মের ভিত্তিতে রাষ্ট্র গঠনে কোথায় যেন একটা খটকা আছে, ভাষার ভিত্তিতে রাষ্ট্র গঠনে অনেক গোলযোগ হয়ত হত, তবে আরো বেশী কিছু মানুষ স্বস্তি পেত! সবার আগে মানুষ, তার পরেই ভাষা, মায়ের আদুরে মুখের শব্দ! (২০১৯)
    • মালিবাগ কমিউনিটি সেন্টারের সামনে ফুটপাতে একটা চা দোকান চালান বরিশালের এক বৃদ্ধ দম্পতি। আমি মাঝে মাঝে রিক্সার জন্য দাঁড়াই! প্রায়ই দেখি স্ত্রী সব সময়েই স্বামীকে কটু কথা বলে, উন থেকে চুন খসলেই স্বামীকে ত্যাড়া ব্যাকা কথা বলেন। স্বামীকে আমি কখনো প্রতিবাদ করতে দেখি নাই, বেচারা চুপচাপ কাজ করেই যায়। আজ সকালে তেমনি ঘটনা, স্ত্রী একজন কাষ্টমারকে এক টাকার কয়েনের বদলে দুই টাকার কয়েন দিয়ে দিয়েছেন, স্ত্রী স্বামীকে বকাঝকা করছিলেন, কেন তিনি একটাকার কয়েনের কোটায় দুইটাকার কয়েন রেখেছেন! দেয়ার সময় তিনি নিজে কেন দেখেন নাই, সেই নিয়ে কোন কথা নাই, বার বার অনেক কাষ্টমারের সামনে স্বামীকে বকেই যাচ্ছিলেন! পাশে চা পানরত এক ছোকড়া আজ বিল্লা সাউন্ড দিয়েই দিল, ভাইবোন মিলে দোকান চালানো ঠিক না! (২০১৮)

    • রাষ্ট্র যখন একের পর এক সত্য আড়াল করে, বার বার মিথ্যা সামনে নিয়ে আসে, তখন রাষ্ট্রে বসবাস করা প্রায় প্রত্যেক নাগরিক কোন না কোনভাবে সমস্যায় পড়ে যায়, চরিত্র বলে আর কিছু থাকে না! শেষ পরিনতি, একটা জাতির ধ্বংস কিংবা পরাধীনতা! (২০১৬)

    • অনেক অনেক ভেবে চিন্তে বলছি, ফেসবুকই জীবন সুখ দুঃখের সাথী! (২০১৪)

    • প্রায় ২০জন একটিভ ফেবু স্টার বন্ধুকে (সবাই নিজ নামেই ব্যাপক পরিচিত) আনফেন্ড করে দিলাম! আনফেন্ড করে এখন ভাবছি, এটা না করলেও চলত! (২০১৪)

    • দুনিয়ার সবচেয়ে সহজ কাজ হচ্ছে ফেইসবুকে পড়ে থাকা! (২০১৩)

    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10215118335226695

    Like

  43. ভালবাসা ঘৃণায় পরিনত হতে সময় লাগে না, আর ঘৃণা নিয়ে একসাথে বসবাস করা যায় না! ঘৃণা নিয়েও যারা বসবাস চালিয়ে যেতে পারে, তারা মানুষ নয়, দুনিয়ার দেবতা! এই দেবতাদের অনেকের নাম ‘স্বামী’, তবে দুঃখের বিষয় এই স্বামীদের কোন পূজা হয় না, ফুলও জুটে না!😁
    “https://www.facebook.com/groups/2573644649621277/permalink/2624565427862532/

    Like

  44. সন্তান সন্তুতি মুলত বিধাতার দান এবং তাদের ভালবাসা পাওয়া কিংবা তাদেরকে নিজ পক্ষে রাখা, সঠিক জ্ঞান থাকাও বিধাতার ইচ্ছা বলে আমি মনে করি, মানুষের এত কোন হাত আছে বলে আমি মনে করি না! মানে আপনি হয়ত আমার সাথে তর্ক করবেন বটেই কিন্তু সত্য যা বলেই দিলাম! আপনি যত করে, যেভাবে চাইবেন সে যদি অমানুষই হয় বা সেই পথেই চলে যেতে চায়, আপনি কিছুতেই তাকে আটকাতে পারবেন না! আপনি হাজার হাজার টাকা খরচ করে, প্রয়োজনীয় সব কিছু দিয়ে, হুজুরের পর হুজুর রেখে, এমন কি বিদেশে পড়ালেখা করিয়ে তাকে বিন্দু মাত্র মানুষের পর্যায়ে আনতে পারবেন না! যাদের সন্তান এখনো ছোট আপনারা হয়ত স্বপ্ন দেখেন সে মানুষ হবে, বিবেকবান হবে, রুচিশীল হবে, ধর্ম মানবে কিন্তু দেখতে দেখতে একদিন আপনি তার চাহিদা যোগান দিতে দিতেই শেষ দেখায় এসে পড়বেন যে, আরে সে তো অমানুষ, অবিবেচক, শুদ্ধ জ্ঞানহীন!

    তবে আপনারা আমার জেল জরিমানা যাই দেন, আমি শেষ কথা পৌছাবো, ‘মা’ যদি সুষ্টু ও সুজ্ঞানের ধারক বাহক না হয়, তবে সন্তানের কখনোই ‘ভাল’ হবার চান্সই থাকে না, হবেই না! আপনার কাছে যদি এটা পরীক্ষা করার দরকার হয় তবে ভাল সন্তান খুঁজে বের করে তার মায়ের পরিচয় নিন, নিঃসন্দেহে তিনি গুনী স্ত্রী ছিলেন বা আছেন।
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10215141186117953

    Like

  45. করোনা ভাইরাসের ভয়াহতা নিয়ে আর বলার কিছু নেই, কার বা কোন পরিবারের কি অবস্থা হবে, তা আর কেহ বুঝতেও পারছেন না! তবে দুটি কারনে বাংলাদেশ থেকে করোনা নির্মুলের কোন সম্ভবনাই দেখি না;

    ১। দৃশ্যত সরকারের প্রশাসনিক কোন এজেন্ডা বা কার্য্য‍ক্রম বা একশন প্লান নেই, আমার মত সাধারন মানুষের চোখেও তা ধরা পড়ছে না। কোন ধাপে কি করবে, কি করে সক্রামন রোধ করবে, আক্রান্তদের কি করে আলাদা করবে, স্থাপনা গুলো কি কি ইত্যাদি নিয়ে একটা ক্যালেন্ডার দরকার ছিলো। একটা শক্তিশালী কমিটি করে তার প্রধান দ্বারা যাচাই বাঁচাই শেষে সব কিছু পরিচালনা দরকার ছিলো, কার্য্যত সব অনুপস্থিত!

    ২। দেশের অর্ধের বেশী নারী, এই নারীদের আবার যারা কার্যত পরিবার চালান, তারা এখনো সচেতন বা অবগত নন, তারা করোনা পূর্ব যা ছিলেন, এখনো তাতেই বহাল আছেন বটে, মাত্র কেহ কেহ চুক্ষু লজ্জায় হয়ত চুপ আছেন কিন্তু ভেতরে ভেতরে করোনার ভয়াহবতা মেনে নেন নাই বলেই মনে হয়! এখানে বিরাট সচেতনা দরকার ছিলো, এই অসচেতনা করোনা আক্রান্ত নয় করোনা উত্তরনেও অনেকের প্রান নিবে!

    😞 (ভাবনা চিন্তা)
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10215127746941982

    Like

  46. আমাদের বাংলাদেশীদের মুল সমস্যা হচ্ছে আমাদের ধর্ম ও সংস্কৃতির মধ্যে কোন মেইলবন্ধন নেই। যা যা ধর্মে নিষিদ্ধ তার প্রায় সব কিছুই আমাদের সংস্কৃতিতে বিরাজমান! মানুষ ধর্মকে ভয় পায় আবার সংস্কৃতি ছাড়া অচল! এমতাবস্থায় আমাদের একেকটা মানুষ বলা চলে সারা জীবন এই কন্টক পথ পাড়ি দেয়! স্বাধীনতার এত বছর পরেও রাষ্ট্রের শাসকেরা জনগণের সামনে এটা পরিষ্কার করতে পারেন নাই যে, আমাদের কোনদিকে যাওয়া উচিত! গ্রহন ও বর্জনের পরিস্কার কোন তালিখাও এখনো বানাতে পারেন নাই! ফলাফলতো হাতেই!😞
    “https://www.facebook.com/udraji/posts/10215139243869398

    Like

[প্রিয় খাদ্যরসিক পাঠক/পাঠিকা, পোষ্ট দেখে যাবার জন্য ধন্যবাদ ও শুভেচ্ছা। নিম্মে আপনি আপনার মন্তব্য/বক্তব্য কিংবা পরামর্শ দিয়ে যেতে পারেন। আপনার একটি একটি মন্তব্য আমাদের অনুপ্রাণিত করে কয়েক কোটি বার। আপনার মন্তব্যের জন্য শুভেচ্ছা থাকল। অনলাইনে ফিরলেই আপনার উত্তর দেয়া হবে।]

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s